জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করবো

চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুরসহ সারাদেশে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত : ঢাকায় প্রধানমন্ত্রী
স্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশে পরিণত করার মাধ্যমে দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোটাই তার সরকারের লক্ষ্য। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের এটাই আজকের লক্ষ্য, যে স্বপ্ন নিয়ে তিনি বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছিলেন, সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা, দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানো, বাংলাদেশকে ক্ষুধামুক্ত, দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়ে তোলা, আজকের দিনে সেই প্রত্যয় ব্যক্ত করছি। যতটুকু পারি, জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশের দুঃখী মানুষ, তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করে দিয়ে যাব এবং দেশবাসীকে আমি সেই আহ্বানই জানাই, আজকে যে অগ্রগতি হয়েছে, এটা ধরে রেখেই যেনো আমরা এগিয়ে যেতে পারি সোনার বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল সোমবার বিকেলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত ‘মুক্ত স্বদেশে জাতির পিতা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বে সভাপতির ভাষণে একথা বলেন। তিনি গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রাজধানীর রামপুরাস্থ বাংলাদেশ টেলিভিশন সেন্টারের (বিটিভি) শহীদ মনিরুল আলম মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত এই বিশেষ অনুষ্ঠানটি টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কিন্তু বহু আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে ছিলেন, যে বাংলাদেশকে স্বাধীন করতে হবে। আর এ স্বাধীনতার উদ্দেশ্যটাই ছিল বাংলাদেশের যে দুঃখী মানুষ, দরিদ্র মানুষ, তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করা, শোষণ-বঞ্চনার হাত থেকে মানুষকে মুক্তি দেয়া এবং বাঙ্গালি জাতিকে তাদের মৌলিক চাহিদাগুলো পূরণ করা। তার সংগ্রামের মধ্য দিয়ে তিনি কিন্তু তার লক্ষ্য অর্জন করেছিলেন। একটি মানুষ তার জীবনের যে লক্ষ্য স্থির করে, সেটি অর্জনের জন্য সেই ১৯৪৮ সাল থেকে ভাষা আন্দোলন থেকে নিয়ে শুরু করে ৬ দফা, ৭০-এর নির্বাচন, ৭১-এ অসহযোগ আন্দোলন, ৭১-এ ৭ মার্চের সেই ঐতিহাসিক ভাষণ, সেই ভাষণে ছিলো সারা মাঠ উত্তপ্ত, হাতে বাঁশের লাঠি, নৌকার বৈঠা থেকে শুরু করে সবকিছু নিয়ে মানুষ এসেছিলেন নির্দেশ নিতে এবং সেই যথাযথভাবে পেয়ে সমগ্র বাংলাদেশে তারা মুক্তিযুদ্ধ করার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। আজকে আমি কৃতজ্ঞতা জানাই বাংলাদেশের জনগণের প্রতি, যে তারা আমার ওপর আস্থা রেখেছেন, বার বার আমি ক্ষমতায় এসে দেশের মানুষের উন্নয়নে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। সব থেকে বড় কথা হলো- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন এবং এই ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের পাকিস্তানি কারাগার থেকে ফিরে আসা, তার আপন মাতৃভূমি, স্বাধীন মাতৃভূমিতে ফিরে আসার এই প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করতে পারছি।
এদিকে, গতকাল সোমবার চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে দিনের কর্মসূচী শুরু হয় এবং বিকাল ৪টা ৩০ মিনিটে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সংগ্রামী ও বিপ্লবী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জাতীয় সংসদের সাবেক হুইপ ও চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. শামসুজ্জোহা, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান, দপ্তর সম্পাদক অ্যাড. আবু তালেব বিশ্বাস, যুব ও ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক আরশাদ উদ্দীন আহমেদ চন্দন, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক মো. নুরুল ইসলাম মালিক, উপ-প্রচার সম্পাদক মো. শওকত আলী বিশ্বাস, কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাড. বেলাল হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. আলাউদ্দিন হেলা ও পৌর সকল ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদকগণ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা নুরুন্নাহার কাকলী, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী রিনা, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি মো. আফজালুল হক বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক মো. রিপন ম-ল, শ্রমিক নেতা আব্দুস সালাম, জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি আফরোজা পারভীন, সাধারণ সম্পাদক গিণি ইসলাম, জেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক আরেফিন আলম রুঞ্জু, যুবলীগ নেতা সিরাজুল ইসলাম আসমান, আব্দুল কাদের, মিরাজুল ইসলাম কাবা, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোহাইমেন হাসান জোয়ার্দ্দার অনিক, সাবেক সহ-সভাপতি মো. সাহাবুল হোসেন, সাবেক ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক মো: ফিরোজ জোয়ার্দ্দার, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক তানিম হাসান তারেক, বাপ্পী আহমেদ, ছাত্রলীগ নেতা অয়ন জোয়ার্দ্দার, রাজু আহমেদ, সোয়েব রিগান, সোহেল, রকি, রানা, মুন্নাসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
এছাড়াও স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে গতকাল সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের ব্যানারে চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ চত্বরে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস। জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. শফিকুল ইসলাম শফির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আইলহাস ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক, সদর উপজেলা কৃষকলীগের আহ্বায়ক আব্দুল মতিন দুদু, সদর উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর মাফিজুর রহমান মাফি, পৌর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আব্দুল হালিম ভুলন। জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. জানিফের পরিচালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন পৌর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ সামি তাপু, সদর উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক যুগ্ম-আহ্বায়ক ইমরান আহমেদ, ছাত্রলীগ নেতা রাকিবুল হাসান নিপ্পন প্রমুখ। এর আগে সকালে জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আসাদুল হক বিশ্বাস ও জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক মতিয়ার রহমান মতির নেতৃত্বে চুয়াডাঙ্গা নতুন বাজারস্থ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্যালয়ের সামনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
এদিকে, নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন করেছে চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগ। দিবসটি পালন উপলক্ষে গতকাল সোমবার সকাল সাতটায় যুবলীগের জেলা কার্যালয়ে জাতীয় সংগীতের তালে তালে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। পরে যুবলীগের কার্যালয়ের সামনে রক্ষিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার। পুষ্পস্তবক অর্পণের পর স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদনের অংশ হিসেবে সেখানে কিছুক্ষণ নীরবতা পালন করা হয়।
পরবর্তীতে সন্ধ্যায় ৬টায় জেলা যুবলীগের কার্যালয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার। চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের সদস্য আজাদ আলীর সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় আরও বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের সদস্য হাফিজুর রহমান হাপু, আবু বক্কর সিদ্দিক আরিফ ও আলমগীর আজম খোকা।
জেলা যুবলীগের সদস্য সাজ্জাদুল ইসলাম লাভলুর সঞ্চালনায় এসময় চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের বিভিন্ন উপজেলা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা-কর্মী, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্তীরা উপস্থিত ছিলেন।
ভালাইপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, আলমডাঙ্গা চিৎলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে গতকাল বিকেল ৪টায় কয়রাডাঙ্গা গ্রামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি রবিউল হক ঝন্টু। প্রধান অতিথি ছিলেন চিৎলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান নান্টু। বিশেষ অতিথি ছিলেন চিৎলা ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান সরোয়ার, সহ-সভাপতি তহিদুল ইসলাম ফকা, আ.লীগনেতা মহাসিন আলী, চিৎলা ইউনিয়ন আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক কাউছার আলী বিশ্বাস, চিৎলা ইউনিয়নের মহিলা সম্পাদিকা আফরোজা খাতুন, চিৎলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মাহবুবুর রহমান টিটু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম, সাবেক মেম্বার শফিউদ্দীন শাফে। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাবু, ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশুতোষ বিশ্বাস, বেল্টু মিয়া, নজরুল ইসলাম, আবু ছদ্দিন, মনিউজ্জামান, মাসুদ রানা। আরো উপস্থিত ছিলেন রুপা খাতুন, সঞ্জয়কুমার, আবুল কালাম আজাদ, ওয়াসিম, রহিম, মোফাজ্জেল, মজিবার, টিটন, এনামুল শাহাদীর আলম, ডাবলু, মহিউদ্দিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন চিৎলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোজাম্মেল হক।
দর্শনা অফিস জানিয়েছে, দর্শনায় স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সকাল ৯টার দিকে দর্শনা পৌর আ.লীগের কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন ও সংক্ষিপ্ত আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক দামুড়হুদা উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মঞ্জু, ইউপি চেয়ারম্যান এসএএম জাকারিয়া আলম, আ.লীগ নেতা গোলাম ফারুক আরিফ, দামুড়হুদা উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আ. হান্নান ছোট, সহ-সভাপতি সোলায়মান কবির, জয়নাল আবেদীন নফর, আব্দুস সালাম ভুট্ট, বিল্ল¬াল হোসেন যুবলীগ নেতা মামুন শাহ, হবা জোয়ার্দ্দার। দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলী মুনছুর বাবুর উপস্থাপনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম মল্লি¬ক, দর্শনা পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববি, কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন তপু প্রমুখ।
আলমডাঙ্গা ব্যুরো জানিয়েছে, স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগ নানা কর্মসূচি পালন করেছে। দিবসটি উপলক্ষে গতকাল ১০ জানুয়ারি সকাল ১০টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় সংগীতের তালে তালে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এরপর বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান ও কার্যালয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনাসভায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ হাসান কাদির গনুর সভাপতিত্বে ও উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাস্টারের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন জেলা আ.লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খাঁন, পৌর আ.লীগের সাবেক সভাপতি আবু মুসা, পৌর আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাইফুর রহমান পিন্টু, দফতর সম্পাদক মাসুদ সালেহীন উৎপল, আ.লীগ নেতা আব্দুল মালেক, মহসিন কামাল, উপজেলা মহিলা আ.লীগের সভানেত্রী শাহেদা ইসলাম, পৌর ওয়ার্ড আ.লীগের সভাপতি আসমান মালিথা, পরিমল কুমার কালু ঘোষ, কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক সোহেল রানা শাহীন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. সালমুন আহম্মেদ ডন, উপজেলা আ.লীগের অর্থ সম্পাদক আলম হোসেন, পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাহিদ হাসান তমাল, আলমডাঙ্গা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক হাসানুজ্জামান হাসান, ছাত্রলীগ নেতা টিটন প্রমুখ।
মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে মেহেরপুরে পালিত হয়েছে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। দিবসটি পালন উপলক্ষে গতকাল সোমবার সকাল ৮টার দিকে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি’র বাসভবনের সামনে জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন আ.লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুস সামাদ বাবলু বিশ^াস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. ইব্রাহীম শাহীন, মহিলা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শামীম আরা হীরা, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আরিফুল এনাম বকুল প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
এদিকে দিবসটি পালন উপলক্ষে এদিন দুপুরের দিকে মেহেরপুর জেলা পরিষদ ও মেহেরপুর সদর উপজেলা পরিষদে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। পরে মেহেরপুর সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। মেহেরপুর শহর আ.লীগের সভাপতি সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাড. ইয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ গোলাম রসুল। আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মেহেরপুর পৌরসভার মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন, জেলা আ.লীগের উপদেষ্টা আলহাজ আশকার আলী, জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি সাজ্জাদুল আনাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুল আলম, যুবলীগ নেতা জসিম রহমান বকুল প্রমুখ।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More