ট্রাক মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নামে চালান : বই দিয়ে চাঁদাবাজির প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গায় সভা

স্টাফ রিপোর্টার: নতুন কৌশলে ট্রাক মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নামে চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে চুয়াডাঙ্গায় প্রতিবাদসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে আন্তঃজেলা ট্রাক ও ট্রাঙ্কলরী শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয়ে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ইউনিয়নের সভাপতি এমদাদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি পিরু মিয়া, মামুন অর রশীদ ও লাইন সেক্রেটারি শহিদুল ইসলাম।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, করোনাভাইরাস মহামারিতে গত ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে লকডাউন শুরু হওয়ার কারণে দেশের প্রায় ৭০ লাখ পরিবহন শ্রমিক কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছিলো। সেসময় অধিকাংশ পরিবহন মালিক ও শ্রমিকের সংগঠনগুলো তাদের শ্রমিকদের যথার্থ সাহায্য সহযোগিতা করতে ব্যর্থ হয়। ক্ষুব্ধ পরিবহন শ্রমিকরা সারাদেশের মালিক ও শ্রমিক কল্যাণের নামে চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে রাজপথে জড়ো হয়ে দফায় দফায় ক্ষোভ প্রকাশ ও বিক্ষোভ করে। গত ৪ জুন বিকেলে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন নেতৃবৃন্দ এক সভায় সকলপ্রকার চাঁদা উত্তোলন বন্ধে ঐক্যমতে পৌঁছান। এরপর পরিবহন সেক্টরে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর হয়ে মাঠে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কিছুদিন বন্ধ থাকলেও চুয়াডাঙ্গা জেলাতে আবারও ট্রাক মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নাম করে নতুন কৌশলে চাঁদাবাজির কার্যক্রম দেখা যাচ্ছে। ট্রাক ভাড়ার সময় প্রতি ট্রাকে মালামাল বহনের স্থান, পণ্য, ট্রাক পরিচিতি, ভাড়া বিবরণী সম্মিলিত চালানপত্র ব্যবহার করে থাকে। আর এটাকে টার্গেট করেই চাঁদাবাজির কৌশল পরিবর্তন করা হয়েছে। সেক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে চুয়াডাঙ্গা জেলার ট্রাক বন্দোবস্তকারী অফিসগুলোকে।

তারা আরও বলেন, চুয়াডাঙ্গা ট্রাক মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ নামীয় ৫০ পাতার চালান বই ৫ হাজার টাকায় কেনার জন্য বন্দোবস্তকারী প্রতিষ্ঠানে বলা হয়েছে। ট্রাক প্রতি ১শ থেকে ২শ টাকা চাঁদা উত্তোলন করে চালান বইয়ের একেকটি পাতা রশিদ হিসেবে প্রদানের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যে সকল ট্রাক বন্দোবস্ত অফিস এ নির্দেশনা মানবেনা তাদের ব্যবসা বন্ধ করে দেয়া হবে বলে হুমকি দেয়া হয়েছে ঐক্য পরিষদের পক্ষ থেকে। এভাবে জিম্মি করা হচ্ছে ট্রাক বন্দোবস্তকারী অফিসগুলোকে। আমরা এ ধরনের কাজের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানায়।

চুয়াডাঙ্গা আন্তঃজেলা ট্রাক ও ট্রাঙ্কলরী শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শেখ মুনতাজ আলীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়নের দৌলাতদিয়াড় শাখার সাধারণ সম্পাদক ডাবলু ড্রাইভার, আলমডাঙ্গা শাখার সভাপতি আব্দুল মালেক, দামুড়হুদা শাখার সভাপতি ফকির আহম্মেদ, জীবননগর শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হালিম, সরোজগঞ্জ শাখার সভাপতি ইদ্রিস আলী ও কার্পাসডাঙ্গা শাখার সাধারণ সম্পাদক জামাত আলী প্রমুখ।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More