ডিসি এসপিদের সঙ্গে সামান্য  ভুল বোঝাবুঝি : সিইসি

এনআইডি সুরক্ষা বিভাগে নেয়ার বিষয়ে মাথা ঘামাবো না

স্টাফ রিপোর্টার: জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পুলিশ সুপারদের (এসপি) সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে হইচইয়ের ঘটনাকে সামান্য ভুল বোঝাবুঝি বলে আখ্যায়িত করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল। ঘটনার দুদিন পর এ বিষয়ে তিনি বলেন, হয়তো সামান্য একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। এটা নিয়ে এত চিন্তাভাবনার কোনো কারণ নেই। এটা নিয়ে মন্তব্য করতে চাচ্ছি না। নির্বাচন কমিশন থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিতে আইন পাশের উদ্যোগের বিষয়ে সিইসি বলেন, এনআইডি চলে গেলে সেটা আমাদের ব্যাপার নয়। এটা রাষ্ট্র, সরকার এবং পার্লামেন্টের বিষয়। এখানে আমরা কী করব? মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান, বেগম রাশেদা সুলতানা ও মো. আলমগীর সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তবে নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমান গতকালও নির্বাচন ভবনে আসেননি।

জেলা পরিষদ, গাইবান্ধা-৫ উপ-নির্বাচন ও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মাঠের পরিস্থিতি জানতে ডিসি ও এসপিদের নিয়ে গত শনিবার বৈঠক করে নির্বাচন কমিশন। ওই বৈঠকে নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমানের বক্তব্যের এক পর্যায়ে হইচই করেন ডিসি ও এসপিরা। এক পর্যায়ে তিনি বক্তব্য থামিয়ে নিজ চেয়ারে চলে যান।

এ ঘটনার দুদিন পর সোমবার সিইসি তার প্রতিক্রিয়া জানান। এ বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে, অনেক কিছু হয়েছে। খামোখা এত কথা বলার প্রয়োজন নাই। আপনারা (সাংবাদিক) আগামীর দিকে তাকান। ওখানে কিছু হয় নাই। হয়তো সামান্য একটু ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। এটা নিয়ে এত চিন্তাভাবনার কোনো কারণ নাই। এটা নিয়ে মন্তব্য করতে চাচ্ছি না। এটা নিয়ে আপনারাও মাথা ঘামাবেন না। আমরাও মাথা ঘামাচ্ছি না।

এদিকে জাতীয় পরিচয়পত্র সুরক্ষা বিভাগে নিতে আইন পাশে সোমবার মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, আইন তো এখনো হয় নাই। নীতিগত অনুমোদন হয়েছে। এনআইডি চলে গেলে তো আমাদের ব্যাপার নয়। এটা রাষ্ট্র, সরকার এবং পার্লামেন্টের বিষয়। এখানে আমরা কী করব? কাজেই এটা নিয়ে আমাদের চিন্তাভাবনার কোনো কারণ নেই। এটা নিয়ে আমরা মাথা ঘামাব না। আমাদের কাজ হচ্ছে নির্বাচন করা। আমরা নির্বাচনের দিকে মনোযোগ দেব।

নির্বাচন কমিশনের কাছে স্বচ্ছ ভোটার তালিকা থাকবে উলে¬খ করে সিইসি বলেন, আমরা ভোটার তালিকা দিয়ে নির্বাচন করব। এনআইডি নিয়ে আমরা মাথা ঘামাব না। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এনআইডি আমাদের বিষয় নয়। এনআইডি এখানে থাকুক, সরকারের কাছে যাক; সেটা হচ্ছে তাদের (সরকারের) ওয়ার্ক। আমাদের নির্বাচন প্রক্রিয়ায় ভোটাররা যাতে ভোট দিতে পারেন, সেজন্য ভোটার তালিকা শুদ্ধ আছে কিনা, যদি ইভিএমে ভোট হয় আঙুলের ছাপ দিয়ে ভোট দিতে পারবে কি না, এগুলো আমাদের বিষয়।

ভোটার তালিকার সঙ্গে এনআইডির সংযোগের কোনো প্রয়োজন নেই জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের ভোটার তালিকার বাই প্রোডাক্ট হচ্ছে এনআইডি। এনআইডির বাই প্রোডাক্ট কিন্তু ভোটার তালিকা নয়। আমি পেপারে পড়ালাম, যে শিশুটির জন্ম হবে সেও এনআইডি পাবে। এখন সরকার যদি একটা উদ্যোগ নিয়ে থাকে সেখানে আমাদের প্রশংসা করা দরকার। এখন নির্বাচনটা যদি নিয়ে যেতে চায়, যে নির্বাচনটা অন্য কেউ করবে, তখন আমি কথা বলব। এনআইডি যদি চলে যায়, এতে নির্বাচন প্রসেস যদি বিঘ্নিত হয় তখন আমরা দেখব।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More