দেশের গুচ্ছ সংবাদ

শপথ নিলেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী
স্টাফ রিপোর্টার: দেশের ২৩তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে শপথ নিলেন বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। গতকাল শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) বিকেল ৪টায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তাকে শপথবাক্য পাঠ করান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও। বঙ্গভবনের দরবার হলে শপথ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। পরে নিয়মানুযায়ী শপথনামায় সই করেন নতুন প্রধান বিচারপতি। শেষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে করমর্দন না করে তারা কনুইয়ে কনুই ছুঁইয়ে এলবো বাম্প করেন।
বৃহস্পতিবার বিকেলে সরকারের পক্ষ থেকে দেশের ২৩তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে আপিল বিভাগের বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নাম ঘোষণা করা হয়। দেশের বিচারাঙ্গনের শীর্ষ এ পদে তিনি বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের স্থলাভিষিক্ত হন।
২০১৩ সালের ২৮ মার্চ আপিল বিভাগের বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। ১৯৭২ সালে খোকসা জানিপুর পাইলট হাইস্কুল থেকে এসএসসি এবং ১৯৭৪ সালে সাতক্ষীরার সরকারি পিসি কলেজ থেকে আইএসসি পাস করেন। সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ থেকে বিএ পাস করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে এমএ পাস করেন।
ধানমন্ডি ল’ কলেজ থেকে এলএলবি পাস করে ১৯৮১ সালে ঢাকা জজ কোর্টে আইন পেশায় যোগদান করেন। ১৯৮৩ সালে হাইকোর্ট বিভাগে এবং ১৯৯৮ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হন। ২০০১ সালে হাইকোর্টে অতিরিক্ত বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান তিনি। ২০০৯ সালে হাইকোর্ট ডিভিশনে স্থায়ী বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান বর্তমান আপিল বিভাগের এ বিচারপতি। বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ১৯৫৬ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মরহুম আবদুল গফুর মোল্লা ও মাতা মরহুমা নূরজাহান বেগম। তিনি ২০১৫ সালের ৩০ এপ্রিল থেকে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

মতিঝিলে কিশোরীকে ধর্ষণ : পুলিশ সদস্য কারাগারে
স্টাফ রিপোর্টার: কিশোরীকে ধর্ষণ ও মারধরের অভিযোগে রাজধানীর মতিঝিল থানায় করা মামলায় আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) কনস্টেবল শিমুল আহমেদকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) ঢাকা মহানগর হাকিম মাহবুব হোসেনের আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গতকাল শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) সংশ্লিষ্ট আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) স্বপন কুমার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রিমান্ড শেষে আসামি শিমুলকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আদালত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।
এর আগে গত ২৮ ডিসেম্বর শিমুলকে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তার তিন দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা মতিঝিল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাসেল হোসেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তার এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

একমাত্র ছেলের মৃত্যুর খবরে মারা গেলেন বাবা
স্টাফ রিপোর্টার: একমাত্র ছেলের মৃত্যুর খবরে শোক সইতে না পেরে অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন বাবাও। বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) এমন ঘটনা ঘটেছে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায়। একইদিনে বাবা-ছেলের এমন মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
মৃতরা হলেন-বীরগঞ্জ পৌরসভার কলেজপাড়া গ্রামের বাসিন্দা ছেলে ইমরান তানিম (৩২) ও তার বাবা আমজাদ হোসেন (৬৬)। বৃহস্পতিবার ভোর ৪টায় ছেলে ও দুপুর দেড়টার দিকে বাবার মৃত্যু হয়।
নিহতদের স্বজন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ইমরান তানিম বৃহস্পতিবার ভোর ৪টার দিকে নিজ বাসভবনে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে দিনাজপুর জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।
এদিকে ছেলের মৃত্যুর খবর শুনে কিছু সময় পরে বাবা আমজাদ হোসেন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করেন স্বজনরা। তিনিও চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুর দেড়টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বীরগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম জানান, আমজাদ হোসেন তার আপন ভাই ও ইমরান তানিম ভাতিজা ছিলেন। তার ভাই বীরগঞ্জ উপজেলা চালকল মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

৫৪ বছর বয়সে এসএসসি পাস করলেন আব্দুল হান্নান
স্টাফ রিপোর্টার: ইচ্ছে থাকলে উপায় হয়। তেমনি এক ইচ্ছা পূরণ করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার প্রত্যন্ত কামাত গ্রামের মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান। অনেক বাধা পেরিয়ে তিনি এসএসসি পরীক্ষায় কারিগরী বোর্ডের অধীনে জিপিএ ৪ পেয়ে এখন এলাকায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও তিনি এখন ভাইরাল।
সরেজমিনে জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার বিনোদপুর ইউনিয়নের সীমান্তঘেঁষা কামাত গ্রাম। এ গ্রামের মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান পেশায় কৃষক। শিশুকালে বাবাকে হারান তিনি। পরে যুদ্ধের সময় ঘরবাড়ি হারিয়ে মা, বোন ও ভাইসহ পাঁচজনকে নিয়ে যখন দিশেহারা তখন ঠাঁই হয় চাচার বাড়িতে। ২০ বছর বয়সে মায়ের চাপে বিয়ে করে সংসারের হাল ধরেন পুরোদমে। তবে লেখাপড়া করতে না পারার আক্ষেপ তার রয়ে যায়।
তিন ছেলের মধ্যে এক ছেলে তার সঙ্গে কাজে যোগ দেওয়ায় তিনি প্রতিজ্ঞা করেন বাকি দুই ছেলেকে শিক্ষিত করার পাশাপাশি নিজে অন্তত এসএসসি পাশ করবেন। দুই মেয়ের বিয়ে দেওয়ার পর ছেলেদের সঙ্গে বাড়ির পাশের তেলকুপি জামিলা স্বরণি ভকেশনাল স্কুলে ভর্তি হন। অনেকের নিন্দা ও বিরুপ মন্তব্যের মধ্যেও তিনি চালিয়ে যান তারা পড়ালেখা। ৫৪ বছর বয়সে তিনি তেলকুপি জামিলা স্বরণি ভকেশনাল স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে কৃতিত্বের সঙ্গে ৪.১১ পেয়ে উত্তীর্ণ হন। এদিকে পাশের খবর ছড়িয়ে পড়লে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকে তার বাড়িতে ভিড় করতে থাকেন স্থানীয়রা।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More