দেশে করোনায় আরও ৪৫ জনের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার: দেশে করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা কমতে শুরু করেছে। দৈনিক মৃত্যু ৫০-র নিচে নেমেছে। শনাক্ত দেড় হাজারের কম। এক সপ্তাহে শনাক্ত কমেছে ৩৬ দশমিক ৫২ শতাংশ এবং মৃত্যু ৩৪ দশমিক শূন্য পাঁচ শতাংশ। সুস্থ রোগীর সংখ্যা কমেছে ২৯ দশমিক ৬৯ শতাংশ এবং নমুনা পরীক্ষা কমেছে ১৯ দশমিক ৯০ শতাংশ। একদিনে দেশে করোনা আক্রান্ত আরও ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৮৭৮। ২৪ ঘণ্টায় আরও ১২৮৫ জনের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। সাত সপ্তাহে এটিই দৈনিক শনাক্ত রোগীর সর্বনিম্ন সংখ্যা। এর আগে ১৪ মার্চ ১১৫৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছিল। সব মিলিয়ে দেশে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লাখ ৭২ হাজার ১২৭ জন। সরকারি হিসাবে আক্রান্তদের মধ্যে আরও ২৪৯২ জন এক দিনে সুস্থ হয়েছেন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৭ লাখ ৬ হাজার ৮৩৩ জন। শনিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে গত বছর ৮ মার্চ। এ বছর ২৭ এপ্রিল তা সাড়ে সাত লাখ পেরিয়ে যায়। আর ৭ এপ্রিল রেকর্ড ৭ হাজার ৬২৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়। প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এ বছর ১ মে তা সাড়ে ১১ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ১৯ এপ্রিল রেকর্ড ১১২ জনের মৃত্যু হয়। জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় বিশ্বে শনাক্তের দিক থেকে ৩৩তম স্থানে বাংলাদেশ, আর মৃতের সংখ্যায় রয়েছে ৩৭তম অবস্থানে।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ৪৪৩টি ল্যাবে ১৪ হাজার ৭০৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৫৬ লাখ ১৩ হাজার ৯৭৯টি নমুনা। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৭৪ শতাংশ, এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৫৪ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫৪ শতাংশ। একদিনে যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ২৬ জন পুরুষ আর নারী ১৯ জন। তাদের ৩৫ জন সরকারি হাসপাতালে এবং ১০ জন বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান। তাদের মধ্যে ২২ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি, ১২ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছর, সাতজনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছর, দুজনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছর এবং দুজনের বয়স ১০ বছরের কম ছিল। মৃতদের মধ্যে ২১ জন ঢাকা বিভাগের, ১৩ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, একজন রাজশাহী বিভাগের, তিনজন খুলনা বিভাগের, দুজন বরিশাল বিভাগের, দুজন সিলেট বিভাগের, দুজন রংপুর বিভাগের এবং একজন ময়মনসিংহ বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন। দেশে এ পর্যন্ত মারা যাওয়া ১১ হাজার ৮৭৮ জনের মধ্যে আট হাজার ৯১৫ জনই পুরুষ এবং তিন হাজার ২৬৩ জন নারী।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More