ধর্মের নামে কেউ যাতে বিভ্রান্ত করতে না পারে

মেহেরপুরের দুটিসহ দেশে আরও ৫০টি মডেল মসজিদ উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইসলাম ধর্মের দোহাই দিয়ে কেউ যেন মানুষকে বিভ্রান্ত করতে না পারে। প্রকৃত ইসলামের মূল্যবোধ সম্পর্কে মানুষের মাঝে যেন সচেতনতার সৃষ্টি হয় সেদিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি রেখেই এই মডেল মসজিদ নির্মাণের প্রকল্প আমরা নিই এবং নির্বাচনি ইশতেহারেও সেটার ঘোষণা দিই। প্রধানমন্ত্রী সোমবার সকালে গণভবন থেকে সারা দেশে ভার্চুয়ালি আরও ৫০টি মডেল মসজিদের উদ্বোধনকালে এ কথা বলেন। একই সাথে মেহেরপুর সদর ও গাংনীতে উপজেলায় পৃথক দুটি মডেল মসজিদের উদ্বোধন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, মডেল মসজিদে ইসলামি মূল্যবোধের চর্চা হবে, ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে মানুষের জ্ঞান আরও বাড়বে, ইসলামি সংস্কৃতি লালন ও বিকাশের আরও সুযোগ থাকবে এবং ইসলাম ধর্মকে আরও উন্নতভাবে পালনের সুযোগ সৃষ্টি হবে। তিনি বলেন, জাতির পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে তার সরকার চলে বলেই ইসলাম ধর্ম এবং শিক্ষাকে গুরুত্ব দেয় এবং দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ করে দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের মর্যাদা দিয়েছে। ইসলামিক আরবি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছে। তাছাড়া প্রতিটি উপজেলা ও জেলা সদরে একটি করে মডেল মসজিদ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে। শেখ হাসিনা বলেন, এই প্রকল্পটির মূল লক্ষ্য এবং উদ্দেশ হচ্ছে মুসল্লিদের জন্য নামাজের ব্যবস্থা, ধর্মীয় শিক্ষা, প্রশিক্ষণ, দ্বীনি দাওয়াতি কার্যক্রমের সুবিধা সৃষ্টি করা, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ এবং নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ, সরকারের উন্নয়ন প্রক্রিয়ার নীতিনির্ধারণের বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধি এবং স্বাধীনভাবে ইসলামি জ্ঞান ও সংস্কৃতিচর্চার মাধ্যমে ইসলামি মূল্যবোধের প্রসার ঘটানো। এছাড়া এখানে একটি লাইব্রেরিও থাকবে। কেননা ইসলাম ধর্মের ভ্রাতৃত্ব এবং সাম্যের প্রচার এবং প্রসারও এর একটি অন্যতম লক্ষ্য।  তিনি বলেন, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মসজিদগুলোতে অজু ও নামাজের জন্য আলাদা জায়গা রয়েছে। এছাড়া হাজিদের জন্য রেজিস্ট্রেশন ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা, ইমাম প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, গবেষণা কেন্দ্র ও ইসলামিক লাইব্রেরি, অটিজম কর্নার, দাফনের আগে আচার, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ও কুরআন শিক্ষার ব্যবস্থা, ইসলামি সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের জন্য সম্মেলন কক্ষও থাকবে। ইসলামিক দাওয়াত, ইসলামি বই বিক্রয় কেন্দ্র, দেশি-বিদেশি অতিথিদের জন্য বোর্ডিং সুবিধাও এখানে থাকছে। প্রধানমন্ত্রী মডেল মসজিদ উদ্বোধন করতে পারায় মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে শোকরিয়া আদায় করেন।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, মেহেরপুরে দু’টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল সোমবার দুপুরে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করেন। মেহেরপুর সদর উপজেলা মডেল মসজিদ প্রাঙ্গণ ও গাংনী উপজেলা অডিটরিয়মে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মসজিদে যেসব সুবিধা থাকছে তা হলো-প্রথম তলায় গাড়ি পার্কিং, মরদেহ ধোয়ার কক্ষ, লাইব্রেরী, সাব স্টেশন কক্ষ, প্রতিবন্ধীদের জন্য নামাজ ও ওজুর ব্যবস্থা। এছাড়াও থাকছে ইমাম প্রশিক্ষণ সেন্টার, নারী ও পুরুষের জন্য আলাদা নামাজের স্থান। মেহেরপুর জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মুনসুর আলম খান, মেহেরপুর ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক এজেএম সিরাজুম মুনির, গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শম্ভু রাম পাল, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইয়ারুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের আহ্বায়ক হাসানুজ্জামান মালেকসহ সরকারি-বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন, ব্যবসায়ী এবং বিভিন্ন মসজিদের ইমামগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

অপরদিকে, মেহেরপুরের গাংনীতে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল সোমবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন। মসজিদে প্রথম তলায় গাড়ি পার্কি, মরদেহ ধোয়ার কক্ষ, লাইব্রেরী, সাব স্টেশন কক্ষ, প্রতিবন্ধীদের জন্য নামাজ ও ওজুর ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও থাকছে ইমাম প্রশিক্ষণ সেন্টার, রয়েছে নারী-পুরুষের আলাদা নামাজের স্থান। গাংনী উপজেলা অডিটোরিয়ামে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে স্থানীয় প্রশাসন। অনুষ্ঠানে সরকারি-বেসরকারি অফিসের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক ব্যক্তি ব্যবসায়ী ও বিভিন্ন মসজিদেও ইমামগণ উপস্থিত ছিলেন  প্রসঙ্গত. মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্যের চুক্তিমূল্য ধরা হয়েছে ১৩ কোটি ১৬ লাখ ৪৫ হাজার টাকা।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More