পায়ে হেঁটে দেশ ভ্রমণে বের হওয়া শান্ত এখন চুয়াডাঙ্গায়

রক্তদানের প্রয়োজনীয়তা বৃক্ষরোপণের গুরুত্ব ও প্লাস্টিক ব্যবহারে সচেতনতার বার্তা
আনজাম খালেক: বুকে বাংলাদেশের পতাকা সম্বলিত রঙ বে রঙ এর টি শার্ট পড়ে সারা বাংলাদেশ হেঁটে চলেছেন এক তরুণ। জীবন বাচাতে রক্তদানের প্রয়োজনীয়তা, পরিবেশ সুরক্ষায় বৃক্ষরোপণের গুরুত্ব ও প্লাস্টিক ব্যবহারে সচেতনতা বাড়ানোর বার্তা নিয়ে হেঁটে হেঁটে দেশের ৬৪ জেলা ভ্রমণে বের হয়েছেন সাইফুল ইসলাম শান্ত (২৫) নামের এই তরুণ। গত ১৪ জানুয়ারি রাজধানী ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে যাত্রা শুরু করেন। এরপর গত ৪২ দিনে ৩৪ টি জেলা হেঁটে গতকাল বৃহস্পতিবার পৌছেছেন চুয়াডাঙ্গায়। রাত ৮টার দিকে ডিঙ্গেদহ এলাকায় পৌছান তিনি। শুক্রবার সকালে আবারো ডিঙ্গেদহ থেকে হাঁটা শুরু করবেন জানিয়ে সাইফুল ইসলাম শান্ত বলেন, শুক্রবারেই ঝিনাইদহ হয়ে মাগুরায় পৌছাবো। এরপর মাগুরায় রাত্রীযাপন শেষে পরশু সকাল থেকে আবারো হাঁটা শুরু।
সাইফুল ইসলাম শান্ত কুমিল্লার দেবীদ্বার এলাকার সিরাজুল ইসলাম ও করুনা বেগমের ছেলে। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে সে দ্বিতীয়। ঢাকার যাত্রাবাড়ি এলাকার দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে ভূগোল ও পরিবেশ বিষয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেছেন। দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে তিনি হাঁটা কার্যক্রমের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছেন।
সাইফুল বলেন, ১৪ জানুয়ারি সকাল ১০টায় ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে ৬৪ জেলায় হেঁটে ভ্রমণের যাত্রা শুরু করেন। কক্সবাজারে গিয়ে তার এই পদযাত্রা শেষ হবে। ৩৪ তম জেলা হিসেবে তিনি বৃহস্পতিবার চুয়াডাঙ্গায় পৌঁছান। এর আগে ঢাকা থেকে শুরু করে নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জ, কুষ্টিয়া, মেহেরপুরসহ ৩৩টি জেলা হেঁটে ভ্রমণ করেন। এ কর্মসূচিতে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন তাকে সহায়তা করছে। আর ষড়জ অ্যাডভেঞ্চার তার এই কাজে আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে।
এর আগে সোমবার সকালে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া রানার্স কমিউনিটির উপদেষ্টা অধ্যাপক দিলারা আক্তার খান। এ সময় কলেজের বাংলা বিভাগের শিক্ষক ও রানার্স কমিউনিটির অ্যাডমিন মোহাম্মদ রাজন মিয়া, আখাউড়ার শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রভাষক আলী আহাদ, রানার্স কমিউনিটির সদস্য সুমন রায় ও মো. রিফাত, বাইসাইকেলের দেশের ৬৪ জেলা ভ্রমণ করা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আবু হানিফ নোমান উপস্থিত ছিলেন।
গতকাল রাতে দামুড়হুদার রুপকথা কফি হাউেজ সাইফুলের সঙ্গে কথা হয় দৈনিক মাথাভাঙ্গার সঙ্গে। এসময় সাইফুল বলেন, দামুড়হুদার জয়রামপুর শেখপাড়ার ম্যারাথন দৌড়বিদ মিরাজের বাড়িতে রাত্রীযাপন করবেন। এর আগে বুধবার রাতে মেহেরপুর জেলার গাংনী থানার বামন্দী গ্রামে এক আত্মীয়ের বাড়িতে ছিলেন।
সাইফুল ইসলাম শান্ত গত বছরের ১২ আগস্ট থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৪০ দিনে কুমিল্লা থেকে বাংলাবান্ধা পর্যন্ত দেশের ১৬ জেলার ১ হাজার কিলোমিটার পথ হেঁটে অতিক্রম করেন। এছাড়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গত বছরের ২০ নভেম্বর ২৪ ঘণ্টায় ঢাকার জিরো পয়েন্ট থেকে কুমিল্লা পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার হেঁটে অতিক্রম করেন।
এ বিষয়ে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন আগেই হাঁটার প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি। রক্তদানে উদ্ধুদ্ধকরণ, বৃক্ষরোপণ, প্লাস্টিক ব্যবহারে সচেতনতা বাড়ানোসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষায় হাঁটার উপকারিতা তুলে ধরতেই বিভিন্ন সময়ে দেশের ৬৪ জেলা হেঁটে ভ্রমণের জন্য বের হয়েছেন। পাশাপাশি রক্তদানে কোনো ভয় নেই, গাছের অভাবে উষ্ণতা বাড়ছে এবং প্লাস্টিক যেখানে সেখানে না ফেলে নির্ধারিত জায়গায় ফেলার বিষয়ে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এসব বার্তা পৌঁছে দেয়ার চেষ্টা করছেন জানিয়ে শান্ত বলেন, গতকাল গাংনীর মিকুশিস মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও বামুন্দী নিশিপুর স্কুল অ্যান্ড কলেজে গিয়ে শিক্ষার্থীদের এ বিষয়ে সচেতন করেছেন। এক্ষেত্রে স্কুলের শিক্ষকদের সহযোগিতাও পেয়েছেন তিনি।
সাইফুল বলেন, প্রতিদিন সকাল সাতটা থেকে আটটায় হাঁটা শুরু করি এবং সন্ধ্যায় শেষ করি। প্রতিদিন তিনি গড়ে ৪৫-৫০ কিলোমিটার হাঁটছেন। ৩ মাসে মোট ৪ হাজার ৫০ কিলোমিটার হাঁটবেন তিনি। অ্যাপসের মাধ্যমে তার এই কার্যক্রম তত্বাবধান করছে হাইকারস সোসাইটি অব বাংলাদেশ।
শান্ত দেশের বৃহৎ রানিং গ্রুপগুলোর সক্রিয় সদস্য এবং কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় ‘দেবিদ্বার রানার্স’ নামে ২ হাজার সদস্যের একটি রানিং গ্রুপ পরিচালনা করে আসছেন।
একজন নিয়মিত এথলেট হিসেবে তিনি ভ্রমণ, হাঁটাহাঁটি ও ট্রেকিং করে আসছেন। শান্ত গত ১২ আগস্ট থেকে ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ সময়ে ৪০ দিনে পায়ে হেঁটে দেশের ১৬টি জেলার ১০০০ কিলোমিটার (কুমিল্লা থেকে বাংলাবান্ধা) পথ অতিক্রম করেছেন। এছাড়াও তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এই মহান নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে গত ২০ নভেম্বর ২০২০ তারিখে ২৪ ঘন্টায় ঢাকা থেকে কুমিল্লা পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার হাঁটার একটি সচেতনতামূলক কর্মসূচি পালন করেছেন।
বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে সাইফুল ইসলাম শান্ত ১৬ ডিসেম্বর ২০২১ বিজয় দিবসে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে ৭১ কি.মি ‘বিজয় দিবস পদযাত্রার’ একটি কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। তিনি ২০১৮ সালে দেশের সর্বোচ্চ (বান্দরবান-আলীকদম) সড়কে ‘১০০ কিলোমিটার হিল চ্যালেঞ্জ’ হিসেবে একটি হাইকিংও সম্পন্ন করেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More