বাবা-ছেলের ধর্ষণে কিশোরী ‘অন্তঃসত্ত্বা’

স্টাফ রিপোর্টার: বরগুনা পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক, পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়ন ও দয়ালগাজীকালু দরবারের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম (৫২) ও তার ছেলে আরিফের (২৬) বিরুদ্ধে এক কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী কিশোরীর মা বলেন, আমার মেয়ের বাবা নেই, আমি তরকারি বিক্রি করে সেই উপার্জানে সংসার চালাই।
কাজের প্রয়োজনে সারাক্ষণ বাইরে থাকতে হয়। আমার মেয়ে প্রায় সময়ই নুর ইসলামের ছোট মেয়ের সঙ্গে তাদের বাসায় থাকে, আমার মেয়েকে দিয়ে তারা কাজও করায় কিন্তু তারা যে আমার মেয়ের এতো বড় সর্বনাশ করবে কখনওই ভাবিনি, বুঝতে পারলে আমি মেয়েকে ওখানে যেতে দিতাম না।
তিনি আরও বলেন, ‘নূর ইসলাম আমার থেকেও বয়সে অনেক বড়, সে আমার ছোট মেয়েটার দিকে কুনজর দিতে পারে না। আমার মেয়ের এ অবস্থা যে করছে আমি তার কঠিন বিচার চাই।
ভুক্তভোগী কিশোরী জানায়, নুর ইসলামকে মুই খালু বোলাই, হ্যাগো ঘরে গেলে মোরে দোহানের সদয় আনতে দেতে আর হেরা খাইলে মোরেও খাওয়াইতে, তয় অনেক সময় খালু মোর দিগে ক্যামন হইরা যেন চাইতে, মাঝে মাঝে মোর গায় আত (হাত) দেতে, এরপর হে কইতে তোরে মুই বিয়া হরমু, হেইলইগা মুই হের সব কতা হোনতাম। পরে একদিন হের পোয়া আরিফ ভাইয়ায় কয় তুই যা করছো তা কিন্তু আমি জানি, এখন আমার সাথে না করলে সবাইকে বলে দিবো। হেইয়া কইয়া হে মোরে চাইপা ধরে এবং আরও দুইদিন মোর লগে এইয়া হরছে। এহন সবাই কয় মোর প্যাডে নাকি বাচ্চা অইছে কিন্তু মোর খালু মোরে বিয়া হরে না। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী পরিবার জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ করলে তিনি বরগুনা সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে বলেন। পরে বরগুনা থানার ওসি বিষয়টি আমলে নিয়ে একটি টিম পাঠিয়ে রোববার রাত সাড়ে ১২টায় প্রথমে নুর ইসলামকে ও পরে তার ছেলে আরিফকেও আটক করে। এ বিষয়ে বরগুনা থানা ওসি এ কে এম তারিকুল ইসলাম জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More