নাহিদের পর দোকান কর্মচারী মুরসালিনও না ফেরার দেশে

বিএনপি নেতাসহ আসামি ১ হাজার ৪২৪ : ছাত্র ও ব্যবসায়ীদের সমঝোতায় খুলেছে নিউ মার্কেট

স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর নিউ মার্কেটের দোকানপাট খুলতে শুরু করেছে। শুধু নিউ মার্কেট নয়, আশপাশের মার্কেটগুলোর দোকানও খুলতে শুরু করেছেন ব্যবসায়ীরা। টানা দুইদিন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দোকান মালিক ও কর্মচারীদের ব্যাপক সংঘর্ষের পর গতকাল সকাল ১০টা থেকে এসব দোকানপাট খুলতে দেখা যায়। তবে দোকান খুললেও ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্ক কাটেনি। ঈদের আগে এমন পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় সবারই লোকসান হয়েছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। সংঘর্ষের ঘটনায় পৃথক তিন মামলায় ১ হাজার ৪২৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়া সংঘর্ষের ঘটনায় এ পর্যন্ত নাহিদ ও মুরসালিন নামে দুজন নিহত হয়েছেন। এদিকে গতকাল পর্যন্ত ঢাকা কলেজের উল্টোপাশের মার্কেটগুলো খোলেনি। এর আগে বুধবার রাতে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী, শিক্ষক, প্রশাসন ও নিউ মার্কেট দোকান মালিক সমিতির বৈঠকে মার্কেট খোলার সিদ্ধান্ত হয়। একই সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, সংঘর্ষে নিহত ব্যক্তিদের পরিবার ও আহতদের ক্ষতিপূরণ দেবেন ব্যবসায়ীরা। আর ভবিষ্যতে যে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা রোধে গঠন করা হবে মনিটরিং সেল। এছাড়া দীর্ঘ চার ঘণ্টা বৈঠকে দোষীদের চিহ্নিত করে শাস্তি প্রদান, সংঘর্ষে হতাহতদের জন্য ক্ষতিপূরণসহ ব্যবসায়ী ও কর্মচারীদের আচরণে শৃঙ্খলা আনতে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানানো হয়। নিউ মার্কেটের পাঞ্জাবির দোকানি রহমাত উল্লাহ জানান, তিনি দোকান খুলেছেন। তবে এখনো ভয় কাটেনি। এ কয়েক দিনে তার অনেক ক্ষতি হয়েছে। ঈদের আগে এমন পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় সবারই লোকসান হয়েছে। ফুটপাথের দোকানি ইবাদুল হোসেন জানান, ‘বুধবার রাতে নিউমার্কেট খোলার সিদ্ধান্ত হলেও ফুটপাথের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে আমরা সবাই ফুটপাথের দোকান খুলেছি।’ ঈদ সামনে রেখে কিছু দোকানে ক্রেতার ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। এছাড়া নিউ মার্কেট এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের দায়িত্ব পালন করতে দেখা গেছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত দুইদিন দোকান বন্ধ থাকায় তাদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। করোনার জন্য গত দুই বছর ঈদে তারা দোকান খুলতে পারেননি। এবারের ঈদে সে ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে তারা আশা করছেন। এক ব্যবসায়ী বলেন, ‘আমাদের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। দোকান খুলতে পেরে ভালো লাগছে। নিউ মার্কেটের ঝামেলার কারণে আশপাশের সব দোকানপাট বন্ধ ছিল।’ এক ক্রেতা বলেন, ‘জানতাম আজকে নিউ মার্কেট খুলবে-খুলবে না একটা ভাব। ভাবলাম মার্কেট যদি খোলা পাই তাহলে কিছু নেব। এখনো ভয় কাজ করতেছে। খোলা আছে দেখে তাড়াতাড়ি কেনাকাটা করে চলে যাব।’ নিউ মার্কেট এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় তিনটি মামলায় এক হাজার ৪২৪ জনকে আসামি করা হয়েছে। হত্যা, হত্যাচেষ্টা, জখম, ককটেল বিস্ফোরণ, সরকারি কাজে বাধা দেয়া, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও ভাঙচুরের অভিযোগে ব্যবসায়ী ও শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে এসব মামলা করা হয়েছে। বুধবার রাতে নিউমার্কেট থানায় এ মামলাগুলো করা হয়। ডিএমপির নিউ মার্কেট জোনের এসি শরীফ মোহাম্মদ ফারুকুজ্জামান এসব তথ্য জানান।

তবে গতকাল পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। সরকারি কাজে বাধা দেয়া, পুলিশের ওপর আক্রমণ, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে জখম ও ভাঙচুরের অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে। এ মামলায় ২৪ জন এজাহারনামীয় আসামিসহ অজ্ঞাতনামা ২০০ থেকে ৩০০ ব্যবসায়ী-কর্মচারী এবং ঢাকা কলেজের ৬০০ থেকে ৭০০ শিক্ষার্থীকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। এছাড়া বিস্ফোরক দ্রব্য আইন, সরকারি সম্পদসহ জানমালের ক্ষয়ক্ষতির লক্ষ্যে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো এবং এ কাজে সহায়তার অভিযোগ এনে অজ্ঞাতনামা ১৫০ থেকে ২০০ জনকে আসামি করে আরও একটি মামলা হয়েছে। নিউমার্কেট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইয়ামিন কবির ও নিউমার্কেট থানার এসআই মেহেদী হাসান বাদী হয়ে নিউমার্কেট থানায় মামলা দুটি দায়ের করেন। এছাড়া নিউ মার্কেট এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় নিহত হন কুরিয়ার সার্ভিস কর্মী নাহিদ হোসেন। এ ঘটনায় নাহিদের স্বজন সাইদ নিউমার্কেট থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। মামলায় পরস্পরের যোগসাজশে খুন করার অভিযোগ এনে ১৫০ থেকে ২০০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে। সূত্র জানায়, পুলিশের দায়েরকৃত একটি মামলায় যে ২৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তারা হলেন, অ্যাডভোকেট মকবুল, আমির হোসেন আলমগীর, মিজান, টিপু, হাজি জাহাঙ্গীর হোসেন পাটোয়ারী, হাসান জাহাঙ্গীর মিঠু, হারুন হাওলাদার, শাহ আলম শন্টু, শহিদুল ইসলাম শহিদ, জাপানি ফারুক, মিজান বেপারী, আসিফ, রহমত, সুমন, জসিম, বিল্লাল, হারুন, তোহা, মনির, বাচ্চু, জুলহাস, মিঠু, মিন্টু ও বাবুল। ওই মামলার এক নম্বর আসামি অ্যাডভোকেট মকবুল নিউমার্কেট থানা বিএনপির সাবেক সভাপতি। বর্তমানে তিনি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বিএনপির কার্যকরী সদস্য। নিউমার্কেটের যে দুটি খাবারের দোকান থেকে সংঘর্ষের সূত্রপাত হয় তা মকবুলের মালিকানাধীন বলে জানা গেছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More