মৃদু শৈত্যপ্রবাহ গেলেও কমেনি শীত : উত্তরবঙ্গে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির পূর্বাভাস

জানুয়ারিতে দুটি শৈত্যপ্রবাহ কাপাতে পারে সারাদেশ

স্টাফ রিপোর্টার: শৈত্যপ্রবাহ প্রশমন হলেও শীত কমেনি চুয়াডাঙ্গায়। যদিও তাপমাপা যন্ত্রের পারদ চুয়াডাঙ্গাতেও কিছুটা উপরে উঠে সর্বোচ্চ ছিলো ২৬ দশমিক ২ ও সর্বনি¤œ ১০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা গতকালও তেতুলিয়ায় ৯ দশমিক শূন্য ও সর্বোচ্চ সীতাকু-ে ৩১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। অপরদিকে জানুয়ারিতেই দুটি শৈত্যপ্রবাহের পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। এদিকে চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ ও মেহেরপুরে দুস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।
আবহাওয়ার পূর্বাভাবে আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। তবে রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু-এক জায়গায় হালকা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির সম্ভবনা রয়েছে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে হালকা তেকে মাঝারী ধরনের কুয়াশা পড়তে পারে। সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি পেতে পারে। ৪৮ ঘণ্টায় আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। ৫ দিনের শেষের দিকে রাতের তাপমাত্রা আরও হ্রাস পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।
আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে, বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে দুটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। এর মধ্যে একটি ‘তীব্র শৈত্যপ্রবাহের’ রূপ নিতে পারে বলেও জানিয়েছেন অধিদফতরের পরিচালক সামছুদ্দিন আহমেদ। বড় এলাকা জুড়ে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমে ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে চলে এলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ ধরা হয়। আর থার্মোমিটারের পারদ ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে নেমে এলে তাকে মাঝারি এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে হলে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ ধরা হয়। গত ডিসেম্বরেও দেশে দুটি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে গেছে। গত ১৮ থেকে ২৩ ডিসেম্বর ও ২৬ থেকে ৩১ ডিসেম্বর রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ এবং চুয়াডাঙ্গা, যশোর ও কুষ্টিয়া অঞ্চলে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যায়। চলতি মৌসুমে মধ্য ডিসেম্বর থেকে দেশের উত্তরাঞ্চলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ছিলো। এ সময় দেশের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গাতেও পর পর কয়েকদিন রেকর্ড করা হয়। ১৯ ডিসেম্বর এ মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো রাজারহাটে, ৬ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাংলাদেশে শীতের দাপট থাকে মূলত জানুয়ারিতে। এ মাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ডিসেম্বরের চেয়েও নেমে যেতে পারে বলে আভাস দিয়েছেন সামছুদ্দিন আহমেদ। আবহাওয়া অধিদফতরের পরিচালক জানান, পুরো জানুয়ারিজুড়েই দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে এবং নদ-নদী অববাহিকায় মাঝারি অথবা ঘন কুয়াশা থাকতে পারে। কুয়াশার দাপট কখনো কখনো দুপুর পর্যন্ত থাকতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যান্য এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা থাকতে পারে। জানুয়ারি মাসে দেশে স্বাভাবিকের চেয়ে কম বৃষ্টিপাত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানিয়েছেন এই আবহাওয়াবিদ।
জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, জীবননগরে অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে শিকড় সমাজ কল্যাণ সংস্থার আয়োজনে জীবননগর পৌর সভার বিভিন্ন স্থানে ১শ’ জন অসহায় হতদরিদ্র শীতার্ত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক মাহফুজুর রহমান মনজু কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, যাদবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আব্দুস সামাদ, শিকড় সমাজ কল্যাণ সংস্থার চুয়াডাঙ্গা জেলা কমিটির সহসভাপতি চাষী রমজান, সাধারণ সম্পাদক মিঠুন মাহমুদ, সদস্য মফিজুল ইসলাম, জীবননগর উপজেলা শাখার সভাপতি তুহিনুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক লাবনী।
দামুড়হুদা অফিস জানিয়েছে, দামুড়হুদার তারিনীপুর-ডুগডুগি বাজারে কম্বল ও মাস্ক বিতরণ করেছেন হাউলী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান বিপ্লব। হাবিবুর রহমান বিপ্লব ব্যক্তিগত উদ্যোগে গতকাল সোমবার বেলা ১১টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলার হাউলী ইউনিয়নের তারিনীপুর গ্রামে অসহায় দুস্থ শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র কম্বল বিতরণ ও ডুগডুগী পশুহাটে দুপুর ১২টার দিকে মাস্ক বিতরণ করা। কম্বল ও মাস্ক বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আকবর আলী বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান সেলিম, হাউলী ইউনিয়ন যুবলীগের সহসভাপতি সাইদুর রহমান, হাউলী প্রমুখ।
মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, মেহেরপুর সদর উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে সদর উপজেলার তেরোঘরিয়া আশ্রয়ন প্রকল্পে আশ্রিত শীতার্ত পরিবারের মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় আশ্রয়ন প্রকল্পে আশ্রিত ১শ’ পরিবারের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ মাসুদুল আলম উপস্থিত থেকে আশ্রয়ন প্রকল্পে আশ্রিত শীতার্তদের হাতে শীত বস্ত্র তুলে দেন। এসময় সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইয়ানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More