লিটারে কমলো মাত্র ৫ টাকা!

স্টাফ রিপোর্টার: চলতি মাসের গোড়ার দিকে দেশে রেকর্ড পরিমাণ উচ্চহারে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করেছিল সরকার। তবে ২৪ দিনের মাথায় গতকাল রাতে সরকার সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম লিটারে ৫ টাকা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গতকাল রাত থেকেই তা কার্যকর হয়েছে। দেশে আগস্টের শুরুতে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পরপরই আন্তর্জাতিক বাজারে কিছুদিন ধরে জ্বালানির দাম ধীরে ধীরে কমছিল। জ্বালানি তেলের দাম আট মাসে সর্বনিম্ন হয়েছিল গত সপ্তাহের শুরুর দিকে। সরকারের নীতিনির্ধারকরাও বলে আসছিলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমলে বাংলাদেশেও কমানো হবে। সাধারণ মানুষেরও প্রশ্ন ছিল জ্বালানি তেলের দাম কত কমাবে সরকার। দেশে ইতিমধ্যে উচ্চহারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে জনজীবনে বিরূপ প্রভাব পড়েছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম আকাশচুম্বী হয়েছে। উচ্চহারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে বিশেষজ্ঞরাও সমালোচনা করেছেন। ব্যবসায়ীদের দাবি ছিল জ্বালানি তেলের কর প্রত্যাহারের। এ প্রেক্ষিতে গত রোববার রাতে ডিজেলের আগাম কর অব্যাহতি ও আমদানি শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করার ঘোষণা দেয় সরকার। গত রাতে নির্ধারিত নতুন দাম অনুযায়ী, ভোক্তা পর্যায়ে লিটারপ্রতি ডিজেল ১১৪ টাকা থেকে কমে ১০৯ টাকা, কেরোসিন ১১৪ টাকা থেকে ১০৯ টাকা, অকটেন ১৩৫ টাকা থেকে ১৩০ টাকা এবং পেট্রোলের দাম ১৩০ টাকা থেকে কমে ১২৫ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। গত ৫ই আগস্ট দিবাগত রাত ১০টায় জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দেশের বাজারে সব ধরনের জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত জানানো হয়। ওইদিনই রাত ১২টার পর থেকে নতুন দাম কার্যকর হয়। তখন রেকর্ড পরিমাণে উচ্চহারে মূল্যবৃদ্ধি করে ভোক্তা পর্যায়ে লিটার প্রতি ডিজেল ৮০ টাকা থেকে ৩৪ টাকা বেড়ে ১১৪ টাকা, কেরোসিন ৩৪ টাকা বেড়ে ১১৪ টাকা, অকটেন ৪৬ টাকা বেড়ে ১৩৫ টাকা এবং পেট্রোল ৪৪ টাকা বাড়িয়ে ১৩০ টাকা দরে বিক্রি শুরু হয়। ২০২১ সালের ৪ঠা নভেম্বর ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়িয়েছিল সরকার। তখন এ দুই ধরনের জ্বালানির দাম লিটারপ্রতি ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা করা হয়। তবে ওই সময় পেট্রোল ও অকটেনের দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছিল। এর ৮ মাস পর গত ৫ই আগস্ট দেশের বাজারে সব ধরনের জ্বালানির দাম বাড়ানো হয়। এদিকে গতকাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ জানিয়েছিলেন, দু-একদিনের মধ্যে জ্বালানি তেলের দাম সমন্বয় করা হবে। জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী বলেন, জ্বালানি তেল আমদানিতে করের ব্যাপারে আমাদের কিছু সুবিধা দেয়া হয়েছে। সেই সুবিধার কারণে আমরা হয়তো চিন্তা করছি যে, তেলের দাম হয়তো আমরা সমন্বয় করতে পারবো। সেটার হিসাবটা এখনো যাচাই-বাছাই চলছে। আমরা আশা করছি, এখানে হয়তো একটা পরিবর্তন আসবে। সরকার যেহেতু শুল্ক ছাড় দিয়েছে। তবে তেলের মার্কেট আবার বেড়ে গেছে। তিনি বলেন, তেলের বাজার এখন ১৫০ ডলারের (প্রতি ব্যারেল) উপরে চলে গেছে, যেটা আগে ১৩০ ডলার ছিল। এই অবস্থায় আমরা দাম কতটুকু সমন্বয় করতে পারবো, কারণ এখানে ভর্তুকির বড় একটা অংশ আবার যোগ হবে। যখন ডিজেল ১১৪ টাকা ছিল তখন ডিজেলে ৮ টাকার উপরে ভর্তুকি ছিল, এখন হয়তো সেই জায়গাটা আরও বাড়বে। তারপরও এটা (শুল্ক) কমাতে (তেলের দাম) কতটুকু সমন্বয় হবে- এখনো আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। হয়তো আজ-কালের মধ্যে একটা সিদ্ধান্তে যাবো। এতটুকুই বলতে পারি। সমন্বয়টা কবে নাগাদ হবে- এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমি তো আশা করি কাল-পরশুর মধ্যে কতটুকু যেতে পারি সেটার একটা ব্যবস্থা নেবো আর কি? মাঠ পর্যায়ে সমন্বয়ের সুফল পৌঁছাতে আরেকটু সময় লাগবে। সমন্বয় বলতে কী দাম কমবে, এটা বোঝানো হচ্ছে- এ বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমি তো কখনোই কম-বেশির কথা বলি না। আমি সমন্বয় করতে বলেছি। আমরা চাচ্ছি, ট্যাক্স যে ৫ শতাংশ কমলো, সেটার কতটুকু প্রভাব পড়বে। এটা আমদানির ক্ষেত্রে কমলো কিন্তু খুচরা পর্যায়ে কতটা প্রভাব ফেলবে সেটা তো আমাকে দেখতে হবে। নসরুল হামিদ আরও বলেন, আমরা তো চাই সমন্বয়টা যাতে বড় আকারে করতে পারি। গিয়ে দেখলাম ওরকমভাবে হলো না, তখনো তো হিসাবের একটা বিষয় আছে। এদিকে তেলের দামও প্রচ-ভাবে বেড়ে গেছে, এটা আমরা আশাই করিনি। আমরা মনে করেছিলাম ট্রেন্ডটা হয়তো নিচের দিকে নামবে। এখন ১৫০ ডলারের ঊর্ধ্বে চলে গেছে, এখনো ভয় পাচ্ছি আরও নাকি বেড়ে যায়। এগুলোর বিষয় আছে। অন্যদিকে, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের (বিপিসি) চেয়ারম্যান এ বি এম আজাদ গতকাল বিপিসি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, শুল্ক কমানোর কারণে তেলের দামের ওপর প্রভাব দেখতে দুই-তিনদিন সময় লাগতে পারে। তিনি বলেন, বিশ্ববাজার থেকে ডিজেল কিনতে ১৩২ ডলার দাম পড়ছে এখন। এখনো লিটারে সাড়ে ৯ থেকে ১০ টাকা লোকসান হচ্ছে বিপিসির। বিপিসির চেয়ারম্যান রাশিয়া থেকে জ্বালানি তেল আনার বিষয়ে বলেন, রাশিয়ার তেলের বিষয়টি প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। নমুনা পরীক্ষা করা হবে। এটি ক্ষুদ্র বিষয়, এ নিয়ে এখনি আমদানির বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না। সরকারকে ১২ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় দিলেন পেট্রোল পাম্প মালিকরা: এর আগে পেট্রোল পাম্প মালিকদের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে বিপিসি চেয়ারম্যান বলেন, পেট্রোল পাম্প মালিকদের দাবির বিষয় জ্বালানি বিভাগকে জানানো হবে। তাদের কর্মবিরতি প্রত্যাহারের আহ্বান জানানো হয়েছে। আর ভোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার বিষয়ে সম্মিলিতভাবে ব্যবস্থা নেবে বিপিসি ও মালিকেরা। এর আগে পেট্রোল পাম্প ওনার্স এসোসিয়েশন পাঁচ দফা দাবিতে ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয় সরকারকে। নতুন করে এ সময় বাড়ানো হয়েছে। পেট্রোল পাম্প মালিক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, ৩১শে আগস্টের পরিবর্তে আগামী ১২ই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সরকারকে সময় দেয়া হয়েছে।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More