সরকারিভাবে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো শুরু

 

স্টাফ রিপোর্টার: সরকারিভাবে মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানো শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় ইউএস বাংলার একটি ফ্লাইটে ৩০ জন কুয়ালালামপুরের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন। প্ল্যান্টেশন সেক্টরে কাজের উদ্দেশ্যে এই কর্মীদের পাঠিয়েছে সরকারি প্রতিষ্ঠান বোয়েসেল।

জানা গেছে, ইতোমধ্যে ১ হাজার কর্মীর চাহিদা এলেও প্রাথমিকভাবে অল্প পরিমাণে তিনটি ফ্লাইট যাবে মালয়েশিয়ায়। আজ ও আগামীকাল দুটি ফ্লাইটে ৩০ জন করে মালয়েশিয়ায় যাবেন মোট ৬০ জন কর্মী। মালয়েশিয়ার পাম বাগান ও চা বাগানে কাজের জন্য কর্মীর চাহিদা আছে বলেও সংশ্লিষ্টদের সূত্রে জানা গেছে। গতকাল কর্মীদের আনুষ্ঠানিক বিদায় জানাতে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন বোয়েসেলের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও অতিরিক্ত সচিব ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, ‘স্পেশাল ওয়ান-অব রিক্রুটমেন্ট প্রজেক্ট’-এর আওতায় বাংলাদেশ থেকে বোয়েসেলের মাধ্যমে মালয়েশিয়ার বিভিন্ন সেক্টরে প্রায় ১০ হাজার কর্মী পাঠানোর জন্য মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়। ইতোমধ্যে ছয়টি কোম্পানি থেকে প্রায় ১ হাজার কর্মীর চাহিদা পাওয়া গেছে। জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) ডাটাবেজ থেকে দৈবচয়নের ভিত্তিতে এবং বিভিন্ন জেলায় জবফেয়ারের মাধ্যমে কর্মীর তালিকা সংগ্রহ করার মাধ্যমে ৭০০ কর্মীকে প্রস্তুত করা হয়েছে। ‘স্পেশাল ওয়ান-অব রিক্রুটমেন্ট প্রজেক্ট’ আওতায় বোয়েসেলের মাধ্যমে কর্মী পাঠানোর খরচ প্রায় ৪৬ হাজার টাকা। মালয়েশিয়ার অন্যতম বৃহৎ প্ল্যান্টেশন কোম্পানি ইউনাইটেড প্ল্যান্টেশন (ইউপি) থেকে ইতোমধ্যে ৫৫০ জন কর্মীর চাহিদা পাওয়া গেছে। মালয়েশিয়ায় যাওয়া সংক্রান্ত সব ব্যয় ইউপি কোম্পানিটি বহন করছে। অর্থাৎ সম্পূর্ণ বিনা খরচে বোয়েসেলের মাধ্যমে নির্বাচিত কর্মীরা মালয়েশিয়া গমন করছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More