স্বাস্থ্যঝুঁকির মধ্যে মহেশপুর সীমান্তে বাড়ছে অবৈধ পারাপার

ঝিনাইদহে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়ে ৩৯০
মহেশপুর প্রতিনিধি: ঝিনাইদহ জেলায় করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। শনিবার পর্যন্ত এ জেলায় ৩৯০ জন আক্রান্তের মধ্যে মহেশপুরের ভারত সীমান্তে অবৈধ পারাপার আশঙ্কাজনকভাবে বেড়ে গেছে। গত ৩ দিনে এ সীমান্তে শিশুসহ ৩৩ জন নারী-পুরুষ বিজিবির হাতে আটক হয়েছে।
প্রাপ্ত সূত্রে প্রকাশ, ঝিনাইদহ জেলায় করোনা রোগীর সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় পুরো জেলা স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এরই মধ্যে মহেশপুর উপজেলায় ভারত সীমান্ত দিয়ে অবৈধ পারাপার বেড়ে যাওয়ার কারণে এলাকাবাসী আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। পার্শ্ববর্তী ভারত এখন বিশ্বের করোনা ঝুকির শীর্ষ রাষ্ট্রগুলির মধ্যে একটি। এ সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে যারা পারপার হচ্ছে তাদের মধ্যে অনেকেই অসুস্থ রয়েছেন। এলাকার সচেতন মহল মনে করছে এরা করোনা ভাইরাস বহন করতে পারে। গত ৯ জুলাই ভারত থেকে বাংলাদেশে আসার সময় শ্যামকুড় টহল বিওপি সেজিয়ার একাশিপাড়া নামক স্থান থেকে শিশুসহ ৯ জনকে আটক করে। এদের বাড়ি মানিকগঞ্জ, বাগেরহাট, ফকিরহাট, নড়াইল ও মাগুরা জেলায়। একই দিন রাতে বাঘাডাঙ্গা বিওপির টহল দল বাকোসপোতা মোড় থেকে শিশুসহ ১০ জনকে ভারত যাওয়ার সময় আটক করে। এদের বাড়ি গোপালগঞ্জ ও যশোর জেলায়। এর আগে গত ৮ জুলাই খোসালপুর সীমান্ত থেকে বাঘাডাঙ্গা বিওপি শিশুসহ ১৪ জনকে আটক করে। এ বিষয়ে মহেশপুর থানায় পৃথক পৃথক মামলা হয়েছে।
করোনার কারণে এপ্রিল মাসে অবৈধ পারাপার বন্ধ থাকলেও মে মাস থেকে বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলার বাঙ্গাডাঙ্গা গ্রামের ঝড়– ম-লের ছেলে সাইফুল ও বাকোসপোতা গ্রামের আব্দুর খালেকের ছেলে জাহাঙ্গীরের নেৃতৃত্বে ১০-১৫ জনের একটি সিন্ডিকেট অবৈধভাবে মানুষ পারপার করে আসছে বলে জানা গেছে।
৫৮ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্ণেল কামরুল আহসানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, গত ৩ দিনে ৩৩ জনকে অবৈধভাবে পারাপারের সময় আটক করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, গত কয়েকমাস আগে ভারতে এনআরসি কারণে যারা বাংলাদেশে চলে এসেছিলো তারা আবার ভারতে যাওয়ার চেষ্টা করছে। অন্যদিকে ভারত থেকে যারা আসছে তারা কেন আসছে তার সঠিক তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি। তিনি আরো জানান, পাচারকারী সাইফুল বিজিবির নজরদারিতে আছে। তার বাড়িতে অনেকবার হানা দিয়েও আটক করা সম্ভব হয়নি। মহেশপুর থানার ডিউটি অফিসার এসআই আবুজার গিফারী জানান, আটককৃতদের ঝিনাইদহ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More