হাটবাজার উন্মুক্ত স্থানে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি

স্টাফ রিপোর্টার: করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে বিভিন্ন হাটবাজার, দোকানপাট, উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি একেবারেই মানা হচ্ছে না। কেউ কেউ মানতে চাইলেও পাশের জনের অসচেতনতার কারণে মানা সম্ভব হচ্ছে না। বিধিনিষেধ মানতে মানুষকে বাধ্য করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকেও জোরালো তাৎপরতা নেই। ফলে সবকিছুতেই এক ধরনের শিথিলতা দেখা যাচ্ছে। এদিকে জেলা উপজেলা শহরগুলোর পাশাপাশি গ্রামেগঞ্জেও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। এতে করোনার সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে গত সোমবার থেকে মানুষের চলাচলের ওপর আরোপিত হয়েছে সাত দিনের কঠোর বিধিনিষেধ। গতকাল মঙ্গলবার ছিলো এর দ্বিতীয় দিন। এর আওতায় মানুষের চলাচল সীমিত করা হয়েছে। জরুরি প্রয়োজনে বের হলে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। বাস্তবে দেখা মিলছে উল্টো চিত্র।
সরকারের নির্দেশনায় খোলা স্থানে কাঁচাবাজার স্থাপনের নির্দেশ থাকলেও তা মানা হয়নি। কাঁচাবাজারসহ নিত্যপণ্যের বাজার অন্যান্য দিনের মতোই বসছে। এতে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। পাড়া-মহল্লা, এমনকি উন্মুক্ত স্থানেও স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই নেই। মাস্ক পরা তো দূরের কথা মানা হচ্ছে না কোনো ধরনের সামাজিক দূরত্ব। হোটেল-রেস্তোরাঁ খোলা রাখলেও বসে খেতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। কিন্তু এগুলোতে বসে খেতে দেখা গেছে।
স্বাস্থ্যবিধি মানতে মানুষকে বাধ্য করতে প্রশাসনের তেমন তৎপরতা দেখা যায়নি। কিছু স্থানে মোবাইল কোর্ট ও পুলিশের তদারকি থাকলেও তা ছিলো খুবই সীমিত সময়ের জন্য। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি না মানার জন্য প্রশাসন মানুষের অসচেতনতাকে দায়ী করেছে।
মঙ্গলবার বাজারে দেখা গেছে, ক্রেতা-বিক্রেতারা গাদাগাদি করে পণ্য কেনাবেচা করছেন। অনেকের মুখেই মাস্ক নেই। সামাজিক দূরত্বও পালন করা সম্ভব হচ্ছে না। চায়ের দোকানকে কেন্দ্র করে মানুষের জমজমাট আড্ডাও দেখা গেছে। অলিগলিতে কারণে-অকারণে ঘুরে বেড়াচ্ছে লোকজন। কাঁচাবাজার, মুদি দোকান, ফার্মেসিতেও মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। এমনকি টিসিবির ট্রাক থেকে ন্যায্য মূল্যের পণ্য কিনতেও একজনের সঙ্গে আরেকজন ঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনাভাইরাস রোধে মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করার প্রধান কার্যকর উপায়। সরকারও বলছে বিশেষ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে না যেতে। তারপরও অলিগলি ঘুরে বেড়াচ্ছে সাধারণ মানুষ। কেউ কেউ গলির দোকানে বসে চায়ের কাপে ঝড় তুলে আড্ডাও দিচ্ছেন। কাঁচা বাজারগুলোতে পুলিশ দেখলে একটু ফাঁকা হয়ে দাঁড়ায় মানুষ। কিন্তু পুলিশ সরে গেলেই সেই আগের অবস্থা।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More