অসাম্প্রদায়িক চেতনায় গড়তে চাই বাংলাদেশ

চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুরে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন : ঢাকার অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

মাথাভাঙ্গা ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একটা অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশকে গড়তে চাই। উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে চাই। সোনার বাংলাদেশ গড়তে চাই। যে দেশে কোনো অন্যায় থাকবে না, অবিচার থাকবে না, মানুষ সুন্দরভাবে বাঁচবে; সেটাই আমি চাই। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠপুত্র এবং ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট পরিবারের অন্যদের সঙ্গে শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে ‘শেখ রাসেল দিবস-২০২১’ এর উদ্বোধনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।
গতকাল সকালে গণভবন থেকে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত মূল অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ সন্তান শেখ রাসেলকে নিয়ে সংকলিত ‘শেখ রাসেল : শৈশবে ঝরে যাওয়া ফুল’ ও ‘শেখ রাসেল : দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ‘শেখ রাসেল : শৈশবে ঝরে যাওয়া ফুল’ বইটির প্রধান উপদেষ্টা যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল। বইটি সম্পাদনা করেছেন কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত। বইটির উপদেষ্টা সম্পাদক বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ। ‘শেখ রাসেল : দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ বইটির সম্পাদনা করেছেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের যৌথ আয়োজনে সভাপতিত্ব করেন প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। বিশেষ অতিথি ছিলেন শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান মো. রকিবুর রহমান, সংগঠনের উপদেষ্টা ড. চৌধুরী নাফিজ সরাফাত, তরফদার মো. রুহুল আমিন ও মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা প্রমুখ। অনুষ্ঠানে শিশু বক্তা আফসানা জাফর সৃজিতা বক্তৃতা করে। অনুষ্ঠানে শিক্ষা, ক্রীড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, শিল্পকলা-সাহিত্য-সংস্কৃতি এবং বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু-এ ৫টি ক্যাটাগরিতে প্রতিটি ১ ভরি করে ১০টি ‘শেখ রাসেল স্বর্ণ পদক’, ১০টি ল্যাপটপ ও সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। এছাড়া শেখ রাসেল অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের ১০টি ল্যাপটপ এবং লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের (এলইডিপি) আওতায় প্রশিক্ষণার্থীর মধ্য থেকে সর্বোচ্চ উপার্জনকারীদের মাঝে ৪ হাজার ল্যাপটপ প্রদান করা হয়। এদিকে শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী ও শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে ‘শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস’ এই প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরের বিভিন্ন স্থানে প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আলোচনাসভা, পুরস্কার বিতরণ, দোয়া ও কেককাটা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
শেখ রাসেলের ওপর আলোচনা করতে গিয়ে আপ্লুত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, এই দেশে যেন ’৭৫-এর মতো হত্যা, ক্যু ও ষড়যন্ত্রের পুনরাবৃত্তি না ঘটে এবং আর কোনো শিশুকে যেন রাসেলের ভাগ্যবরণ করতে না হয়, সে ব্যাপারে দেশবাসীকে সতর্ক থাকতে হবে। তিনি বলেন, এই বাংলাদেশে আর কোনো দিন যাতে হত্যা, ক্যু এবং ষড়যন্ত্র না হয়। ঘাতকের বুলেটে আর কোনো শিশুকে যাতে এভাবে জীবন দিতে না হয় এবং দেশের অগ্রগতি যাতে থেমে না যায় সে ব্যাপারে দেশবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। শিশুদের জীবন যাতে সুন্দর হয়। কারণ, একজন শিশুকে হত্যা করা মানেই লাখো কোটি শিশুর জীবনকে শঙ্কায় ফেলে দেয়া। আজকের শিশু আগামীদিনের ভবিষ্যত উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমি বাংলাদেশের মানুষের কাছে একটাই আহ্বান জানাবো, এই শিশুদের নিরাপত্তা দেয়া, ভালোবাসা দেয়া, সুন্দরভাবে গড়ে তোলা, তাদের জীবনকে সার্থক এবং অর্থবহ করা-এই কর্তব্য পালনই যেন সবার আদর্শ হয়।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা ফুল পূর্ণাঙ্গভাবে ফোটার আগেই অকালে ঝরে যাবে, এটা কারও কাম্য নয়। আমরা এরকম চাই না বরং চাই বাংলাদেশ একটি শান্তিপূর্ণ দেশ হবে। প্রত্যেকটি শিশুর জীবন এই দেশে অর্থবহ এবং সুন্দর হবে। কেউ অকালে ঝরে যাবে না। ছোট ভাই রাসেলের স্মৃতিচারণা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রাসেল ছোটবেলা থেকে বাচ্চাদের নিয়ে প্যারেড করতো। সে বড় ভাই শেখ জামালের মতো সেনা অফিসার হতে চাইত। বেঁচে থাকলে আজকে হয়তো সেনাবাহিনীর বড় অফিসার হতো। ’৭৫-এর হত্যাকা-ের চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, সেদিন রাসেল মায়ের কাছে যাবো বলে কান্না করছিলো। তাকেও হত্যা করা হলো। আমার একটাই প্রশ্ন, এ শিশুটির কী অপরাধ ছিলো?
চুয়াডাঙ্গায় নানা আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সর্বকনিষ্ঠপুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে গতকাল সোমবার সকাল ৭টায় জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পূষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পূষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এদিকে, জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার ও পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম। পূষ্পস্তবক অর্পণ করে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাসের নেতৃত্বে সদর উপজেলা পরিষদ, জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দারের নেতৃত্ব পূষ্পস্তবক অর্পণ করে জেলা যুবলীগ, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকনের নেতৃত্বে চুয়াডাঙ্গা পৌর পরিষদ, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চুয়াডাঙ্গা জেলা ইউনিট, স্বাস্থ্যবিভাগ, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখা, জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ, চুয়াডাঙ্গা সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজ, পৌর ডিগ্রি কলেজ, সড়ক বিভাগ, গণপূর্ত বিভাগ, এলজিইডি, আনসার ও ভিডিপি, টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস চুয়াডাঙ্গা, বিএডিসিসহ রাজনৈতিক, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন ও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দফতরের কর্মকর্তাবৃন্দ। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে শেখ রাসেলের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করা হয়।
এবারই প্রথম ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত জাতীয় দিবস হিসেবে শেখ রাসেলের জন্মদিন উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা এবং ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে জেলা প্রশাসন। পরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সেমিনার, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা-আইসিটি) আরাফাত রহমান, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম ভুইয়াঁ, সাবেক অধ্যক্ষ সিদ্দিকুর রহমান, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শরিয়তউল্লাহ, ইন্সপেক্টর আব্দুল্লা আল মামুন, ইসলামী ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক রবিউল ইসলাম, জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আফসানা ফেরদৌস প্রমুখ। এছাড়া মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের আয়োজনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ৩টি বই নিয়ে বই পড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনাসভা শেষে দিনব্যাপী বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে অতিথিবৃন্দ পুরস্কার তুলে দেন। এ দিবসটি উপলক্ষে জেলাব্যাপী ডিজিটাল কনটেন্ট ও আইসিটি বিষয়ক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা বিবেচনায় শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাবকে পুরস্কৃত করা হয়। এ প্রতিযোগিতায় চুয়াডাঙ্গা ফাজিল মাদরাসা প্রথম স্থান অধিকার করে। এছাড়া আলমডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজ দ্বিতীয় ও জীবননগর শাপলাকলি স্কুল তৃতীয় স্থান অধিকার করে।
এদিকে বিকেলে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, কেককাটা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন। চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সাজিয়া আফরীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আরাফাত রহমান, সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা সার্কেল) মুন্না বিশ্বাস, জেলা শিক্ষা অফিসার আতিয়ার রহমান ও শিশু একাডেমির জেলা কর্মকর্তা আফসানা ফেরদৌসীসহ সরকারি কর্মকর্তা ও শিশুরা উপস্থিত ছিলেন। বিকেল ৪টার দিকে ডিসি সাহিত্য মঞ্চে শিশুদের দৌড় প্রতিযোগিতা, মোরগ লড়াই ও বেলুন ফাটানো খেলা অনুষ্ঠিত হয়। তারপর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে শেখ রাসেল দিবসে শিশুদের নিয়ে জেলা প্রশাসক কেক কাটেন।
চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের আয়োজনে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচি পালন করেছে। গতকাল সোমবার জেলা পরিষদে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, কেককাটা ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় অতিথি ও সদস্যদের মাঝে শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করা হয়। জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) সাজিয়া আফরীনের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা সঞ্চালনা করেন জেলা পরিষদের ১নং ওয়ার্ডের সদস্য শহিদুল ইসলাম শাহান। আলোচনাসভায় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ সামসুল আবেদীন প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। সভায় সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এসএম ইস্রাফিল, চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আজাদ মালিতা, সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুন্সী আবু সাইফ ও চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি সরদার আল আমিন বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। এছাড়া, জেলা পরিষদের সদস্য শফিকুল আলম নান্নু শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। জেলা পরিষদ জামে মসজিদের ইমাম বায়েজিদ হোসেন শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া পরিচালনা করেন। এ সময় জেলা পরিষদ সদস মাফলুকাতুর রহমান সাজু, জহুরুল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান মোল্লা, খলিলুর রহমান, রকিবুল হাসান, সিরাজুল ইসলাম, মুসাবুল ইসলাম লিটন, শফিকুল আলম নান্নু, মিজানুর রহমান, নুরুন্নাহার কাকলি, হাছিনা খাতুন, কাজল রেখা, তানিয়া বেগম ও মিতা খাতুন, সহকরী প্রকৌশলী মৌসুমী আক্তার, উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. রোকনুজ্জামান, প্রশাসনিক কর্মকর্তা রমজান আলী, প্রধান সহকারী ইসরাইল হোসেন, হিসাবরক্ষক আসলাম উদ্দিন, উচ্চমান সহকারী বেদানা খাতুন ও সিএ জালাল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন।
চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের পক্ষ থেকে শহীদ শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গতকাল সকাল ৭টায় জেলা যুবলীগের আহবায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দারের নেতৃত্বে জেলা যুবলীগ কার্যালয় থেকে এক আনন্দ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা প্রশাসক চত্বরে শেখ রাসেল এর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা হাসানুল ইসলাম ডালিম, জুয়েল জোয়ার্দ্দার, বিপুল জোয়ার্দ্দার, টিটু, রামিম হাসান সৈকত, আমিনুল ইসলাম, খানজাহান আলী, আলীহিম, সন্জু, আলমগীর রুবেল, সুশান্ত, সোহাগ, আলিফ, সুমন, নুরু, মামুন, আসাদ, বনি, রনি, মিন্টু, সজীব, কাজল, সাকিব, অমী, বাচ্চু, ইকবাল, জিসান ও নাঈম। যুবলীগের সাথে সাথে চুয়াডাঙ্গার শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্র পূষ্পমাল্য অর্পণ করেন। সন্ধ্যায় স্থানীয় কার্যালয়ে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক নঈম হাসান জোয়ার্দ্দার। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা যুবলীগের সদস্য সাজেদুল ইসলাম লাভলু, হাফিজুর রহমান হাপু, আলমগীর আজম খোকা, যুবলীগ নেতা আল ইমরান শুভ, মাসুদুর রহমান মাসুম প্রমুখ।
চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সকাল ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন এবং সন্ধ্যা ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে কেক কাটা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার অতিরিক্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাইমেন হাসান জোয়ার্দ্দার অনিক। সহসভাপতি মো. শাহাবুল হোসেন, সাবেক ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক ফিরোজ জোয়ার্দ্দার, সাবেক সহসম্পাদক বাপ্পী, সাবেক প্রচার সম্পাদক আব্দুর রহমান, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তানিম হাসান তারেক, পৌর ছাত্রলীগ সভাপতি জাবিদুল ইসলাম জাবিদ, সাবেক স্কুল ও ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক রাজু আহম্মেদ, চুয়াডাঙ্গা জেলা বঙ্গবন্ধু ছাত্রপরিষদের সভাপতি মেহেদী হাসান হিমেল মল্লিক, সাবেক আহবায়ক সাইফুল ইসলাম রানা, ছাত্রলীগ নেতা সোয়েব রিগান, তানভির আহম্মেদ সোহেল, ইমদাদুল হক আকাশ, সোয়েব স্বাধীন, রেদওয়ান আহম্মেদ রানা, সদর উপজেলা বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদে সভাপতি জাহিদ হাসান টোকন প্রমুখ।
অপরদিকে, চুয়াডাঙ্গা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আয়োজনে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে কেককাটা হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে কেদারগঞ্জ পার্টি অফিসে কেককাটার মধ্যদিয়ে ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক মতিয়ার রহমান মতি, সদস্য বিপ্লব হোসেন, আব্দুর রাজ্জাক, ইমরান আহমেদ বিপ্লব, আবু তাহের, সদর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহবায়ক জুয়েল রানা, যুগ্ম আহবায়ক মাফিজুর রহমান মাফি ও ইমরান আহমেদ, সদস্য আকাশ, সেলিম, ১নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ওয়াশিম, সাধারণ সম্পাদক মামুন, ২নং ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক মিলন, ৩নং ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক টোকন, ৪নং ওয়ার্ড সভাপতি পিন্টু প্রমুখ।
এদিকে, চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার উদ্যোগে সকাল ১০টায় শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে শেখ রাসেলের জীবনের ওপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিকসহ সকল কাউন্সিলরবৃন্দ ও পৌরসভার সকল স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ। বাদ আছর পৌরসভা জামে মসজিদে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন পৌরসভা জামে মসজিদের পেশ ইমাম মো. হুসাইন আহম্মেদ।
অপরদিকে, শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মবার্ষিকীতে চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাংবাদিক কামরুজ্জামান চাঁদ করেন এক ভিন্ন ধর্মী আয়োজন। গতকাল সোমাবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গা হাসপাতাল রোডস্থ রিজিয়া খাতুন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিভিন্ন শ্রেণির শিশু কিশোরদের নিয়ে করেন খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পরে শিশু-কিশোরদের নিয়ে কেক কাটা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি দৈনিক মাথাভাঙ্গা সম্পাদক ও প্রকাশক সরদার আল আমিন, রিজিয়া খাতুন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শাহজাহান আলী, সহকারী শিক্ষক জুয়েল, হৃদয়, রাকিব, সাকিব, পিয়াস প্রমুখ।
দিবসটি উপলক্ষে আলমডাঙ্গার গোকুলখালী ডা. আফছার উদ্দিন কলেজে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১টায় অন্যদিকে, কলেজের হলরুমে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ মাহবুল ইসলাম সেলিম। প্রধান অতিথি ছিলেন কলেজের সভাপতি মোশারফ হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন অ্যাড. তসলিম উদ্দিন ফিরোজ, ব্যবসায়ী ফরিদ হোসেন প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন প্রভাষক আবু সালেহ।
আলমডাঙ্গা ব্যুরো জানিয়েছে, আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দিনটি উপলক্ষে সকাল ৮টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় সংগীতের তালে তালে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ, আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র হাসান কাদির গনুর সভাপতিত্বে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাস্টারের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. সালমুন আহমেদ ডন, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সাইফুর রহমান পিন্টু, জামজামি ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার মোল্লা, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি আশরাফুল হক, ছাত্রলীগ নেতা সোহেল, উপজেলা মহিলা নেত্রী সাহিদা সিরাজ, জেলা যুব মহিলা লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরা পারভীন, পৌর নেত্রী পপি, জাহানারা, প্রভা, রুপা, চন্দ্রা, স্বর্ণা প্রমুখ।
দামুড়হুদা অফিস জানিয়েছে, দামুড়হুদায় দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ চত্বরে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলি মুনছুর বাবু, উপজেলা নির্বাহী তাছলিমা আক্তার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি), দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি ফেরদৌস ওয়াহিদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল কবির ইউসুফ, সিনিয়র সভাপতি উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হযরত আলী, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ উপজেলা সাবেক কমান্ডার আছির উদ্দীন, ইউনিয়ন কমান্ডার তমছের আলী, দামুড়হুদা প্রেসক্লারে সভাপতি এম নুরুন্নবী প্রমুখ। যুব মহিলা লীগের উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যন শাহিদা খাতুনসহ বিভিন্ন সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দামুড়হুদা ওদুদ শাহ ডিগ্রি কলেজে দিবসটি উপলক্ষে কলেজ চত্বরে সেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পরে কলেজের সভাকক্ষে কলেজের প্রিন্সিপাল কামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। অতিথি ছিলেন কলেজ পরিচালনা কমিটির সদস্য দামুড়হুদা প্রেসক্লাবের সভাপতি এম নুরুন্নবী, শরিফ উদ্দীন ও দামুড়হুদা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি হাবিবুর রহমান। আলোচনা সভা শেষে দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। একইভাবে দামুড়হুদা ডিএস দাখিল মাদরাসাসহ বিভিন্ন স্থানে যথাযথ মর্যাদায় দিবসটি পালিত হয়েছে।
দর্শনা অফিস জানিয়েছে, দর্শনা সরকারি কলেজে ও পৌর আ.লীগের কার্যালয়সহ রামনগর মৌচাক সমাজ উন্নয়ন সংস্থায় পৃথকভাবে কেক কেটে জন্মদিন পালন করা হয়। গতকাল সোমবার বেলা ১১টার দিকে দর্শনা সরকারি কলেজ প্রাঙ্গণে ছাত্রলীগের আয়োজনে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পন ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর শহীদুল ইসলাম, উপাধ্যক্ষ মফিজুর রহমান, শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ইকরামুল হক, প্রভাষক জাহাঙ্গীর আলম, মিরাজুল ইসলাম, তারিকুল ইসলাম, মেহেদী হাসান জুয়েল, পিংকুপাল, কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি নাহিদ পারভেজ, সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জেল হোসেন তপু প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন প্রভাষক সিরাজুল ইসলাম। সন্ধ্যায় দর্শনা পৌর আ.লীগের কার্যালয়ে দর্শনা পৌর ও কলেজ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে কেককাটাসহ আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলি মুনছুর বাবু। অন্যান্যের মধ্যে আলোচনা করেন উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি সোলায়মান কবির, সহসম্পাদক আব্দুল মান্নান খান, দর্শনা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আসলাম আলী তোতা, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম ববি প্রমুখ। এদিকে দর্শনা রামনগর মৌচাক সামাজিক উন্নয়ন সংস্থায় বিকেলে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে
কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দামুড়হুদার কার্পাসডাঙ্গা কাস্টমমোড়ে ছাত্রলীগ নেতা ফরিদুজ্জামান রানার সভাপতিত্বে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে কেককেটে দিবসটি পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সহিদুল সর্দ্দার, ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ রেজাউল করিম মিন্টু, উপজেলা শ্রমিকলীগ নেতা জামাত আলী, রাসেল ইসলাম, তাজমুল বিশ্বাস, সোহেল, লিমন, নাইম, মামুন, ইমরান হোসেন, মহির উদ্দিন, জাহাঙ্গীর আলম, সাদিক, রজব, সাগর আলী, সাদিক, সাব্বির, রাজিব, শিহাব, প্রমুখ।
জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, জীবননগরে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহীদ শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিত্বে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন শেষে উপজেলা পরিষদের হলরুমে একটি আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। জীবননগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন জীবননগর উপজেলা চেয়ারম্যান হাজি হাফিজুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম ঈশা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়েসা সুলতানা লাকি, জীবননগর থানার ওসি আব্দুল খালেক, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শারমিন আক্তার প্রমুখ। আলোচনাসভা শেষে অতিথিরা শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ী শিক্ষার্থীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। এ সময় উপজেলা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে তালের চারা বিতরণ করা হয়।
এদিকে, জীবননগর পৌরসভায় এ উপলক্ষে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম। গতকাল সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে জীবননগর পৌর পরিষদের আয়োজনে পৌরসভার কনফারেন্স রুমে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন প্যানেল মেয়র-২ সোয়েব আহমেদ অঞ্জন, কাউন্সিলর শেখ জয়নাল আবেদীন, আবুল কাসেম, ওয়াসিম রাজা, জামাল হোসেন খোকন, মতিয়ার রহমান, খোকন মিয়া, আপিল মাহমুদ, সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর রিজিয়া বেগম, মাহফুজা পারভিন বিউটি ও পরিছন বেগম। আলোচনা শেষে কেক কাটার মাধ্যমে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালিত হয়। দোয়ার অনুষ্ঠানের পরিচালনা করেন পৌর ইমাম হাফেজ মাও. ইসমাইল হোসেন। এর আগে সকাল ৯টায় পরিষদ চত্বরে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
অপরদিকে, দিবসটি উপলক্ষে জীবননগর উপজেলায় তালের চারা রোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে। উপজেলা কৃষি বিভাগের তত্ত্বাবধানে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কোমলমতি শিশুদের দিয়ে এ চারা রোপণ করা হয়। গতকাল সোমবার সকালে নতুন তেঁতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চারা রোপণের মাধ্যমে এ কর্মসূচিব উদ্বোধন করা হয়। উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়েশা সুলতানা লাকি ও উপজেলা কৃষি অফিসার শারমিন আক্তার শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে এ তালের চারা রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আরিফ হোসেন, তেঁতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মমতাজ বেগম, সহকারী শিক্ষিকা মঞ্জুয়ারা খাতুন, জেসমিন নাহার, তসলিমা খাতুন, শিক্ষক মফিজুর রহমান ও মমতাজ উদ্দিন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। জীবননগর সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, জীবননগর মডেল পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শাপলাকলি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও নতুন তেঁতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে এ চারা রোপন করা হয়।
হাসাদাহ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, জীবননগর উপজেলার রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দোয়া ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় রায়পুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অফিসে এ আয়োজন করা হয়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাহাতাব উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান, নির্বাহী সদস্য সাজ্জাদ বিশ^াস, ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রমজান আলী, ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলমঙ্গীর হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মমিন খান, সাইফুল ইসলাম, মোজাম্মেল, সেন্টু, আলমগীর হোসেন ও শাহাজামাল প্রমুখ। অনুষ্ঠনটি পরিচালনা করেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মশিয়ার রহমান।
মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে গতকাল সোমবার দুপুরের দিকে মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মুনসুর আলম খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় জুমের মাধ্যমে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। সহকারী কমিশনার মিথিলা দাসের সঞ্চালনায় আলোচনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মো. রাফিউল আলম, মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক স্বপনকুমার খান, সিভিল সার্জন ডা. জওয়াহেরুল আনাম সিদ্দিকী, মেহেরপুর জেলার বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদের সভাপতি প্রফেসর হাসানুজ্জামান মালেক, মেহেরপুর সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর রফিকুল ইসলাম, জেলা শিক্ষা অফিসার মাহফুজুল হোসেন উজ্জ্বল প্রমুখ। পরে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে আয়োজিত শিশুদের মধ্যে বিভিন্ন প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এর আগে এদিন সকালে মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে বিশেষভাবে তৈরি মঞ্চে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। জেলা প্রশাসক ড. মোহাম্মদ মুনসুর আলম খান প্রথমে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। পর্যায়ক্রমে পুলিশ বিভাগের পক্ষে পুলিশ সুপার মো. রাফিউল আলম পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। পরে পর্যায়ক্রমে মেহেরপুর স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষে সিভিল সার্জন ডা. জওয়াহেরুল আনাম সিদ্দিকী, সরকারি মহিলা কলেজের পক্ষে অধ্যক্ষ প্রফেসর রফিকুল ইসলাম, সরকারি কলেজের পক্ষে সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আল আমিন, মেহেরপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমীর পক্ষে পল্লব ভট্টাচার্য, আনসার ও ভিডিপির পক্ষে জেলা কমান্ডেন্ট রাকিবুল ইসলাম, এলজিইডির পক্ষে আব্দুর রহমান, সদর উপজেলা পরিষদের পক্ষে উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম, মেহেরপুর জেলা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের পক্ষে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক স্বপনকুমার খান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এর পক্ষে, সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুজ্জামন, মেহেরপুর জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কাজী কাদের মোহাম্মদ ফজলে রাব্বী সমাজসেবা অধিদপ্তরের পক্ষে, মেহেরপুর জেলা মৎস্য অফিসের পক্ষে মৎস্য অফিসার সাইফুদ্দিন ইয়াহিয়াসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। দিবসটি পালন উপলক্ষে এদিন সকালে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনের বাসভবনে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ এবং কেক কাটা হয়। মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল হালিম, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম শাহীন উপস্থিত থেকে কেক কাটেন। এর আগে সেখানে পুষ্প্যমাল্য অর্পণ করা হয়। মেহেরপুর জেলা যুবলীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক সরফরাজ হোসেন মৃদুল, শহর সমাজসেবা সমন্বয় পরিষদের সভাপতি আমিনুল ইসলাম খোকন, সদর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন আনু, শহর যুবলীগের সভাপতি শেখ কামাল, সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম,মেহেরপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মতিউর রহমান মতি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে মেহেরপুর পৌরসভার উদ্যোগে আলোচনা সভা, পুস্পমাল্য অর্পণ এবং দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এদিন সকালের দিকে মেহেরপুর পৌরসভা প্রাঙ্গণে শেখ রাসেলের জন্মদিন শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মেহেরপুর পৌরসভার মেয়র ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান রিটনের সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান রিটন, কাউন্সিলর আল মামুন প্রমুখ। পরে সেখানে শেখ রাসেলের জন্য দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এর আগে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। পৌরসভার মেয়র ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন ও প্যানেল মেয়র শাহিনুর রহমান রিটন উপস্থিত থেকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে কাউন্সিলর নুরুল আশরাফ রাজিব, আলপনা খাতুন, শিউলি আক্তার প্রমূখ সেখানে উপস্থিত ছিলেন। একই দিন দুপুরে মেহেরপুর জেলা যুবলীগের উদ্যোগে পথ শিশুদের মধ্যে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হয়েছে। জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন উপস্থিত থেকে খাবার বিতরণ করেন। এ সময় সেখানে বক্তব্য রাখেন যুগ্ম আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান, সদর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, জেলা যুবলীগের সদস্য সাজেদুর রহমান সাজু, মাহবুব ডালিম, ইয়ানুস আলমেহেরপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্মআহ্বায়ক মতিউর রহমান মতির উদ্যোগে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও কেক কাটার আয়োজন করা হয়। এদিন রাতে মেহেরপুর সদর উপজেলা শ্যামপুর ইউনিয়নের গোপালপুর মতিনের অফিস কার্যালয় এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। মতিউর রহমান মতির সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা মেহেদী হাসান মিলন, শ্যামপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তার হোসেন। পরে সেখানে দোয়া অনুষ্ঠিত হ। এদিকে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে সেখানে কেক কাটা হয়। এ সময় অন্যদের মধ্যে গোপালপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাকসহ শ্যামপুর ইউনিট স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেনএকই দিন মেহেরপুরে ছহিউদ্দিন ডিগ্রি কলেজের উদ্যোগে শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। কলেজের শিক্ষক মিলনায়তনে আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মেহেরপুরে ছহিউদ্দিন ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ একরামুল আযীমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপাধ্যক্ষ মহাসিন আলী, সহকারী অধ্যাপক মাসুদ রেজা, ড. আলিবদ্দিন, আজাদ আলী, ফররুখ আহমেদ, ছাত্রলীগ নেতা রাতুল প্রমুখ। এসময় কলেজের শিক্ষক-কর্মচারী ও কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা শেষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠান শুরুতে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে কলেজ ও ছাত্রলীগের পক্ষ খেকে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। একইদিন দুপুরের দিকে মেহেরপুর আহমদ আলী টেকনিক্যাল ও বিএম কলেজ মিলনায়তনে শেখ রাসেল দিবস উদযাপন উপলক্ষে এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। মুক্তিযোদ্ধা আহমদ আলী টেকনিক্যাল ও বিএম কলেজের অধ্যক্ষ শাহিউদ্দিন মিল্টনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা কেএম ফজলুল করিম। এর আগে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।
এদিকে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মবার্ষিকীতে মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজের দেয়ালিকায় পুষ্পমাল্য অর্পণ করছেন প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ মহা. আখতারুজ্জামান, সহকারী প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আহমেদ, সহকারী শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম, রাকিবুজ্জামানসহ শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দ। দিবসটি পালন উপলক্ষে মেহেরপুর জিনিয়াস ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের উদ্যোগে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এদিন সকালে জিনিয়াস ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ রিতা পারভীনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপাধ্যক্ষ শামসুর রহমান টুটুল, সহকারী শিক্ষক হাবিবুর রহমান, জহুরা খাতুন,আব্দুর রহমান প্রমুখ। পরে সেখানে শেখ রাসেলের জন্য দোয়া করা হয়। এর আগে শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।
বারাদী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মেহেরপুরের বারাদী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মবার্ষি পালিত হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধার পর বারাদী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জন্মদিনের কেক কাটা হয়। পরে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোমিনুল ইসলাম মোমিন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আল মামুন, সাধারণ সম্পাদক রবিন, যুবলীগ সভাপতি এসআই রিংকু মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক আলহামদু প্রমুখ। সঞ্চালনায় সিদ্দিকুর রহমান সিদ্দিক ও দোয়া পরিচালনা করেন আসকার আলী।
মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী দিবস পালন করেছে মুজিবনগর উপজেলা প্রশাসন। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে সাতটায় মুজিবনগর উপজেলা পরিষদমাঠে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ করেন মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজন সরকার, উপজেলা চেয়ারম্যন জিয়াউদ্দীন বিশ্বাস, উপজেলা স্বাস্থ্য পরবিার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মুজিবুর রহমান, মুজিবনগর থানা ইনচার্জ ওসি আব্দুল হাশেম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ রফিকুল ইসলাম মোল্লা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফরোজা খাতুন, শিক্ষা অফিসার মামনুর রশিদসহ উপজেলা কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। পরে উপজেলা হল রুমে আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়।
অনুরুপ বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের আয়াজনে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে কেক কেটে আলেচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে হল রুমে কেক কেটে আলেচনা সভা করা হয়। বাগোয়ান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আয়ূব হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন ইউপি সদস্য সোহরাব হোসেন, কাজী কমর উদ্দীন, আনোয়ারুল ইসলাম, মি. সংকর বিশ্বাস, মি. দিলীপ মল্লিক। অনুষ্ঠান সঞ্চলনায় ছিলেন ইউপি সচিব সালমা খাতুন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More