আলমডাঙ্গার মুন্সিগঞ্জে ভুয়া গোয়েন্দা পুলিশ আটক

প্রতারণা করে ব্যবসায়ীর নিকট থেকে টাকা নিয়ে পালানো চেষ্টা

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: আলমডাঙ্গার মুন্সিগঞ্জ হাসপাতাল মোড়ে থেকে ভুয়া গোয়েন্দা পুলিশকে আটক করেছে মুন্সিগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশ। গতকাল শুক্রবার বেলা ৩টার দিকে পূর্বকমলাপুর ব্রিজ মোড় থকে তরিকুল নামে এক ব্যবসায়ীর নিকট থেকে গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয় দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিয়ে অটো রিকশা করে পালানোর সময় তাকে মুন্সিগঞ্জ থেকে আটক করে।

জানা গেছে, শুক্রবার দুপুরে পূর্বকমলাপুর ব্রিজ মোড়ে কিটনাশক ব্যবসায়ী তরিকুল ইসলামের দোকানে আসে একব্যক্তি। নিজেকে গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয় দেয় সে। কৌশলে ৪শ টাকা নিয়ে সটকে পড়ে সে। তরিকুল জানতে পারে সে গোয়েন্দা পুলিশের কেউ না। মোটরসাইকেল নিয়ে পিছু ধাওয়া করে মুন্সিগঞ্জ হাসপাতাল মোড় থেকে তাকে আটক করে মুন্সিগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়িতে সংবাদ দেয়। সংবাদ পেয়ে মুন্সিগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশের আইসি এসআই রকিবুল ইসলাম, এএসআই সাহাবুদ্দিন, এএসআই সোহেল সঙ্গীয় ফোর্সসহ আটক করে।

এ ব্যাপারে মুন্সিগঞ্জ হৈদারপুর গ্রামের আনারুল ইসলামের ছেলে মুন্সিগঞ্জ হাসপাতাল মোড়ের ভাজা ব্যবসায়ী ইকবাল অভিযোগ করে জানায়, আটককৃত ব্যক্তি কয়েকদিন আগে আমার দোকানে আসে। নিজেকে গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয় দেয়। চাকরি দেয়ার কথা বলে মেডিকেল ও অন্যান্য খচর বাবদ ২০ হাজার টাকা দাবি করে। টাকা নিয়ে চুয়াডাঙ্গায় আসতে বলে। টাকা নিয়ে চুয়াডাঙ্গায় গেলে টাকা চাই। ইকবালের বড় ভাই বিল্লাল মেডিকেল করতে সঙ্গে যেতে চাইলে বিভিন্ন তালবাহানা করে সুবিধা করতে না পেরে সটকে পরে।

পুলিশ জানাই, খুলনার পাইকগাছা থানার খড়াইকটি গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে ইকবালকে চাকরি দেবার কথা বলে ৪৭ শত টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

আটককৃত ভুয়া গোয়েন্দা পুলিশ প্রথমে পরিচয় দিতে গিয়ে বলে, সে খুলনা জেলার দিঘলিয়া থানার চান্দনীমহল গ্রামের মৃত আফছার মল্লিকের ছেলে নাজমুল হুদা (৪০)। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সে আলমডাঙ্গার বড়পুটিমারী গ্রামের মৃত আফছার মল্লিকের ছেলে চিকন আলী। সে দীর্ঘদিন খুলনাতে একটি কোম্পানিতে চাকরি করতো। প্রায় ১ বছর আগে চাকরি হারিয়ে বাড়িতে ফিরে কখনো গোয়েন্দা পুলিশ আবার কখনো পুলিশের লোক বলে পরিচয় দিতো।

এ ব্যাপারে আলমডাঙ্গা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ওসি সাইফুল ইসলাম বলেন, ভুয়া গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয় দানকারী একজনকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More