করোনার ভয়াবহতা ঠেকাতে কঠোর পদক্ষেপ : কাল থেকে ৭ দিনের লকডাউনে দেশ : প্রজ্ঞাপন আজ

খোলা থাকবে জরুরি সেবা পণ্যবাহী পরিবহন গণমাধ্যম কাঁচাবাজার ও শিল্পকারখানা : বন্ধ থাকবে বাস ট্রেন লঞ্চ ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট : ব্যাংকের সিদ্ধান্ত আজ
স্টাফ রিপোর্টার: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় কাল থেকে সারা দেশ প্রথমবারের মতো শুরু হচ্ছে এক সপ্তাহের লকডাউন। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবনে শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘সোমবার থেকে এক সপ্তাহের জন্য সারা দেশে লকডাউন ঘোষণা করবে সরকার। শিল্প-কলকারখানা শর্ত সাপেক্ষে চালু থাকতে পারে। এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় বিস্তারিত জানাবে।’ এ ঘোষণার পর রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন জানিয়েছেন, লকডাউনে জরুরি পণ্য ও খাদ্যবাহী ট্রেন ছাড়া সব ধরনের যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকবে। আর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, লকডাউনের মধ্যে জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব ধরনের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা থাকবে শিল্প-কারখানা। শেয়ারবাজার খোলা থাকলেও সীমিত আকারে চলবে ব্যাংকিং সেবা। চলমান বইমেলাও লকডাউনে বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। তবে শনিবার রাত ১০টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সড়কে যান চলাচলের বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কোনো তথ্য জানাতে পারেননি সরকারের সংশ্লিষ্টরা।
এদিকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, করোনা পরিস্থিতি ও করণীয় নির্ধারণে সাপ্তাহিক ছুটির দিন শনিবার দুপুর থেকেই মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব, তিন বাহিনীসহ সরকারের বিভিন্ন বাহিনী ও সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের ভার্চুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে বিদ্যমান পরিস্থিতিতে সবার কাছ থেকে প্রয়োজনীয় মতামত চাওয়া হয়। সন্ধ্যা পর্যন্ত চলা ওই বৈঠকের মতামতের আলোকে এ সংক্রান্ত একটি সারসংক্ষেপ তৈরি করে অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠানো হবে। ওই সারসংক্ষেপে- লকডাউন নয়, এক সপ্তাহের ‘কঠোর নিষেধাজ্ঞা’ আরোপের প্রস্তাব যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী সায় দিলে আজ রোববার প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। বৈঠকে উপস্থিত একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, প্রায় সবকিছু গত বছরের মতোই হবে। তবে সাধারণ ছুটি হবে না। বৈঠকে অংশ নেয়া অপর একজন কর্মকর্তা জানান, প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে সায় পেলে সোমবার থেকে এক সপ্তাহের জন্য কঠোর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে। আপাতত এই সিদ্ধান্তই থাকতে পারে।
ওই বৈঠক সূত্র জানায়, শনিবারের বৈঠকে আগামী এক সপ্তাহের জন্য এক জেলা থেকে অন্য জেলায় জনসাধারণের চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ বা নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। সেখানে প্রতিটি জেলার প্রবেশ ও বহির্গমন পথে চেকপোস্টের ব্যবস্থা থাকবে। এ সময় জনগণকে অবশ্যই ঘরে থাকতে হবে। তবে অতিজরুরি প্রয়োজন ছাড়া রাত ৮টা থেকে সকাল ১০টা পর্যন্ত ঘরের বাইরে বের হওয়া যাবে না। প্রয়োজনীয় ক্রয়-বিক্রয়, কর্মস্থলে যাতায়াত, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন বা সৎকার ইত্যাদি কাজে বাইরে চলাচলের সময় মাস্ক পরিধানসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি অবশ্যই পালন করতে হবে। এই সময়ে কর্মস্থলের বাইরে যাওয়া যাবে না। আন্তঃজেলা পরিবহন সীমিত করতে হবে। এসব পরিবহনে ৫০ শতাংশ যাত্রী স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবহন করা যাবে। সব আন্তর্জাতিক যাত্রী পরিবহন সীমিত করতে হবে। বিশেষ করে বিদেশ ফেরত যাত্রীদের করোনা আক্রান্ত বিবেচনা করে কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে হবে। এই সময়ে সব ধরনের সভা-সমাবেশ, জনসমাগম, সামাজিক, অর্থনৈতিক, ধর্মীয় অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদগুলোতে সর্বসাধারণের নামাজ আদায় এবং অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের ক্ষেত্রে প্রার্থনা নিশ্চিত করতে হবে। মসজিদে ওয়াক্তিয়া নামাজের ক্ষেত্রে ৫জন এবং জুমার নামাজে ১২ জনের বেশি গ্রহণযোগ্য নয় বলেও প্রস্তাবে বলা হয়। নিত্যপ্রয়োজনীয় জরুরি পণ্য উন্মুক্ত স্থানে ক্রয়-বিক্রয় নিশ্চিত করতে হবে। বেসরকারি নিরাপত্তা সেবা এবং এই সেক্টরে কর্মরত নিরাপত্তা প্রহরীসহ নগদ অর্থ পরিবহনে নিয়োজিত যানবাহনের চলাচল এই নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে। চিকিৎসাসেবায় নিয়োজিত ডাক্তার, নার্স ও কর্মী এবং ওষুধসহ চিকিৎসা সরঞ্জামাদি বহনকারী যানবাহন, কর্মী, গণমাধ্যমকর্মীরা এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবেন। এছাড়া কৃষিপণ্য, খাদ্য-শিল্প পণ্য, রাষ্ট্রীয় প্রকল্পের মালামাল, কাঁচাবাজার, খাবার ইত্যাদি পরিবহন, ওষুধের দোকান, হাসপাতাল, জরুরি সেবা এবং এসবের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মীদের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না বলে প্রস্তাবে বলা হয়েছে। এছাড়া ব্যাংক সেক্টরের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক পৃথক নির্দেশনা দেবে। সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিসকে তিন ভাগের এক ভাগ জনবল নিয়ে কাজ করতে হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, গোয়েন্দা সংস্থা, বিদ্যুৎ, পানি, ত্রাণ বিতরণ, জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, টেলিফোন, ইন্টারনেট, ডাকসেবা, হাসপাতাল, কৃষিপণ্য, সার, বীজ, খাদ্য, শিল্পপণ্য, রাষ্ট্রীয় প্রকল্পের মালামাল, নার্স, ডাক্তার, ক্যাবল নেটওয়ার্ককর্মী, গণমাধ্যমকর্মীদের পরিবহন ও চলাচলে স্বাস্থ্যবিধি মানলে বাধা থাকবে না। রপ্তানিমুখী শিল্পসহ সব শিল্প-কলকারখানা শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বজায় রেখে চালু রাখার প্রস্তাব করা হয়েছে।
শনিবার সকালের সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় সরকার ইতোমধ্যে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। কিন্তু এখনো অনেকেই মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধির প্রতি অনীহা দেখাচ্ছে, যা ভয়াবহ পরিস্থিতি নিয়ে আসতে পারে। নিজেদের সুরক্ষায় সবাই সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করাই এখন মূল কাজ। যারা কথা দিয়ে কথা না রেখে দূরপাল্লায় দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করছেন। আপনারা দুর্যোগের মধ্যে জনগণের দুর্ভোগ বাড়াবেন না। করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার দ্রুত বেড়ে যাওয়ায় সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং মাস্ক পরা জরুরি কর্তব্য বলে মনে করে সেগুলো পালন করার আহ্বান জানান সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী।
এরপর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এক ভিডিও বার্তায় জানান, দ্রুত বেড়ে যাওয়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সোমবার থেকে সপ্তাহের জন্য লকডাউন দিতে যাচ্ছে সরকার। লকডাউনের মধ্যে জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব ধরনের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা থাকবে শিল্প-কারখানা। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের চলাফেরা যাতে কমাতে পারি সেজন্য আমরা আপাতত এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন দিচ্ছি। আমাদের জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান, ডিসি অফিস, ইউএনও অফিস, ফায়ার সার্ভিসের অফিস, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার অফিস, সংবাদপত্র অফিস- এই ধরনের অফিস খোলা থাকবে। লকডাউনের মধ্যে শিল্প-কারখানা খোলা থাকবে, সেখানে একাধিক শিফট করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাতে শ্রমিকরা কাজ করেন- সেটা নিশ্চিত করতে হবে। তা না হলে তো আবার গত বছরের মতো শ্রমিকদের বাড়ি যাওয়ার ঢল শুরু হয়ে যাবে। এছাড়া সরকারি ও বেসরকারি অফিস-আদালত বন্ধ থাকবে। সব ধরনের মার্কেট বন্ধ থাকবে।’
গণপরিবহন বন্ধ থাকবে কিনা- জানতে চাইলে ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘আমরা যখন এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করব সেখানে তা স্পষ্ট করে বলা হবে। এখনই এ বিষয়ে বলছি না।’ তবে সোমবার সকাল ৬টা থেকে যাত্রীবাহী নৌযান (লঞ্চ, স্পিডবোট) চলাচল বন্ধ থাকবে বলে নিশ্চিত করেছেন বিআইডব্লিউটি এর চেয়ারম্যান কমোডর গোলাম সাদেক।
প্রসঙ্গত, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথমবার করোনা শনাক্ত হওয়ার পর ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। শুরুতে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ‘ছুটি’ ঘোষণা হলেও পরে তার মেয়াদ বাড়ে কয়েক দফা। ওই সময় দেশে টানা ৬৬ দিন সাধারণ ছুটি ছিল। সে সময় সব অফিস-আদালত, কল-কারখানা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে সারা দেশে সব ধরনের যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। ছুটির মধ্যে সবকিছু বন্ধ থাকার সেই পরিস্থিতি ‘লকডাউন’ হিসেবে পরিচিতি পায়। কিন্তু তাতে নিম্নবিত্তের জীবন-জীবিকা আর দেশের উৎপাদন ব্যবস্থা অস্তিত্ব সংকটে পড়লে বিভিন্ন মহলের দাবিতে সরকার ৩১ মের পর থেকে ধাপে ধাপে বিধিনিষেধ শিথিল করতে থাকে। বছরের শেষে এসে সব স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকা ছাড়া আর সব কড়াকড়িই উঠে যায়। ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে রেখেই অর্থনৈতিক কর্মকা- সচল রাখার ভাবনা থেকে মাঝে পুরো দেশকে লাল, হলুদ ও সবুজ জোনে ভাগ করে পরিস্থিতি অনুযায়ী লকডাউনের বিধিনিষেধ আরোপের পরিকল্পনা হয়েছিল। পরীক্ষামূলকভাবে কয়েকটি এলাকায় সেই ব্যবস্থা চালানোও হয়েছিল। কিন্তু পরে আর তা এগোয়নি।
এদিকে চলতি বছরের শুরুতে দেশে সংক্রমণ হার অনেকটা কমে আসে। সারা দেশে শুরু হয় করোনাভাইরাসের গণটিকাদান। চলতি বছর ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে দেশে দৈনিক শনাক্তের হার নেমে এসেছিল তিন শতাংশেরও নিচে। কিন্তু ফেব্রুয়ারির শেষদিক থেকে আবার দ্রুতগতিতে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। যার ফলে প্রতিদিন রোগী বাড়তে থাকায় হিমশিম খেতে হচ্ছে ঢাকার হাসপাতালগুলোকে। এরই মধ্যে ৩০টি জেলাকে ‘উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে সরকার। এছাড়া ধারণ ক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহণ চলাচল শুরু হয়েছে। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার পাশাপাশি জরুরি সেবায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি অফিস/প্রতিষ্ঠান/শিল্প-কারখানা অর্ধেক জনবল দিয়ে চালাতে বলা হয়েছে। আর তিন পার্বত্য জেলা-চট্টগ্রাম, সিলেট, কক্সবাজার এবং কুয়াকাটার সব পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য বাদে পুরো ইউরোপ এবং আরও ১২টি দেশ থেকে যাত্রীদের বাংলাদেশে প্রবেশে জারি হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। এর পাশাপাশি সব ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠান, বিনোদন কেন্দ্র, বইমেলা ও অন্যান্য মেলা অবিলম্বে বন্ধ করার সুপারিশ করেছে কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। গত ক’দিনে সংক্রমণ শনাক্তে আগের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাচ্ছে। মৃত্যুও হচ্ছে অর্ধশতসংখ্যক। শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। মোট মৃত্যু হয়েছে নয় হাজার ২১৩ জনের। সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে আরও পাঁচ হাজার ৬৮৩ জনের মধ্যে। এ নিয়ে মোট শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ছয় লাখ ৩০ হাজার ২৭৭ জনে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More