করোনায় মেহেরপুরের আরও দুজনের মৃত্যু : আক্রান্ত ১৩

মেহেরপুর অফিস: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মেহেরপুরে আরও দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে একজন শিক্ষানবিশ আইনজীবী ও আরেকজন হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী। গতকাল শনিবার সকালে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। তারা হলেন গাংনী উপজেলার সাহেবনগর গ্রামের শিক্ষানবিশ আইনজীবী আবুল কালাম আজাদ (৩৮) ও মেহেরপুর পৌর ঈদগাপাড়ার হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী কলিম উদ্দিন (৫২)। ঢাকার একটি হাসপাতালের আইসিইউতে আবুল কালাম আজাদ ও কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কলিম উদ্দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। আবুল কালাম আজাদ সাহেবনগর গ্রামের মৃত আব্দুল হান্নানের একমাত্র ছেলে এবং কলিম উদ্দীন মেহেরপুর শহরের পৌর ঈদগাপাড়ার বাসিন্দা। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মেহেরপুরে করোনায় ১১ জনের মৃত্যু হলো। একই দিনে মেহেরপুরে নতুন করে আরও ১৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

জানা গেছে, আবুল কালাম আজাদ দীর্ঘদিন ধরে কুষ্টিয়ায় বসবাস করে আসছেন। তিনি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন এলএলএম কোর্সের ৫ম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন। এছাড়াও কুষ্টিয়া জেলা ও দায়রা জজ আদালতে শিক্ষানবিশ আইনজীবী হিসেবে কাজ করতেন। বেশ কিছুদিন আগে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। কুষ্টিয়ায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় পাঠানো হয়। সেখানকার একটি হাসপাতালের আইসিইউতে তিনি মারা যান। কলিম উদ্দিনের পরিবারের সদস্যরা জানান, সম্প্রতি করোনা শনাক্ত হওয়ার পর নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে ছিলেন কলিম উদ্দীন। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় দুদিন আগে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। শুক্রবার দুপুরে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। সেখানে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে মেহেরপুরে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ১৩ জন করোনা পজেটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় বর্তমানে মোট আক্রান্তের সংখ্য ১৫৩ জন। নতুন আক্রান্ত ১৩ জনের মধ্যে মেহেরপুর সদর উপজেলার ৪ জন, গাংনী উপজেলার ৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলার একজন বাসিন্দা। গতরাত রাত ৯ টার দিকে সিভিল সার্জন ডা. মো. নাসিরউদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। আক্রান্তরা হলেন, সদর উপজেলার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির আনোয়ার হোসেন ও মৌজান আক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী হাবিবা খাতুন ও আলমপুর গ্রামের আলী হোসেন। গাংনী উপজেলার রামনগর গ্রামের বিলকিস বানু, গাড়াডোব গ্রামের আবু হোসেন, গাংনী সিনেমা হলপাড়ার শাহাবুদ্দিন, গাংনী মহিলা ডিগ্রী কলেজ পাড়ার সাইফ হাসান খান, শ্যামা ও শাহানারা খাতুন, গাংনী সরকারি ডিগ্রি কলেজপাড়ার বাসিন্দা ইসমাইল হোসেন ও সিয়াম। এছাড়া মুজিবনগর উপজেলার দারিয়াপুর গ্রামের ইসলাম। মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে আরো জানা যায়, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ ল্যাবে পরীক্ষা শেষে গতরাতে ৩০ জনের ফলাফল মেহেরপুর পৌঁছে যার মধ্যে ১৩ জন করোনা পজেটিভ হয়। বাকিগুলোর ফলাফল করোনা নেগেটিভ হয়। এ নিয়ে মেহেরপুর জেলায় ২ হাজার ৮৪৭ জনের দেহের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। যার মধ্যে মোট ৩৩১ জনের দেহে করোনা পজেটিভ হয়। এর মধ্যে ১৭০ জন সুস্থ হয়েছেন এবং মারা গেছেন ৮ জন। বাকিরা লকডাউনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More