খাবারে ক্ষতিকর কেমিক্যাল : বেকারি সিলগালা

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা শহরে গ্রীন ফুড প্রোডাক্ট বেকারিতে ক্ষতিকর কেমিক্যাল দিয়ে তৈরি হচ্ছিল অস্বাস্থ্যকর বিভিন্ন খাবার। এছাড়াও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাবার তৈরী, লাইসেন্সের নীতিমালার বাইরে অতিরিক্ত পণ্য তৈরীসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের ভিত্তিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মুখোমুখি হতে হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। বেশ কিছু অনিয়মের সত্যতা পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানের মালিক বাবু হাসান জোয়ার্দ্দারকে ৩০ হাজার জরিমানাসহ প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিএম তারিক উজ জামান। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে ওই চুয়াডাঙ্গা শহরের বাদুরতলা এলাকা তথা ওয়াপদা রোডের গ্রীন ফুড প্রোডাক্ট প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনাকালীন এমন চিত্র উঠে আসে।
প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সের শর্তাবলিতে তিনটা পণ্য (খাদ্য) উৎপাদনের অনুমতি থাকলেও ২০ থেকে ২৫ রকমের খাদ্যদ্রব্য তৈরী করছে তারা। এছাড়াও গ্রীন ফুড নামে অন্য একটি প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। শহরের বুকে প্রশাসনের চোখ ফাকি দিয়ে কিভাবে এই প্রতিষ্ঠানটি চলছিলো তা নানা প্রশ্নবিদ্ধ করেছে এলাকাবাসীর মনে।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক বিএম তারিক উজ জামান বলেন, বিভিন্ন অভিযোগের ভিত্তিতে এই বেকারিতে অভিযান চালানো হয়। সেখানে অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাবার তৈরী, ক্ষতিকর কেমিক্যাল ব্যবহার, লাইসেন্সের শর্তাবলীর অতিরিক্ত পণ্য উৎপাদনসহ বিভিন্ন অনিয়মের চিত্র দেখতে পাওয়া। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানের মালিককে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সাথে প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করে দেয়া হয়। এছাড়াও উদ্ধারকৃত কেমিক্যালটি কি ধরনের ক্ষতিকারক তা নির্ণয় করতে সংশ্লিষ্ট ল্যাবে পাঠানো হবে। রিপোর্ট পেলে সেই মোতাবেক ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের সহযোগিতায় ছিলেন পেশকার আব্দুল লতিফ ও নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন এএসআই মিজানুর রহমান তালুকদারের নেতৃত্বে সদর থানা পুলিশের একটি টিম।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More