চুয়াডাঙ্গায় করোনায় প্রথম এক শিশুর মৃত্যু : আরও ১৪ রোগী শনাক্ত

এক সপ্তাহের মধ্যে সংক্রমণ অর্ধশতাধিক : মাস্কপরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পুনঃ পুনঃ তাগিদ
স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় আরও ১৪জন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। পর পর দুদিনে ১৪ জন করে ২৮জন নতুন রোগী যেমন শনাক্ত হলেন, তেমনই সপ্তাহখানের মধ্যে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে অর্ধশত। আক্রান্তদের মধ্যে গত কয়েকদিনে সুস্থতাও পাননি। বরঞ্চ মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৫৪জনে দাঁড়িয়েছে। যদিও চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগের হিসেবে জেলায় মোট মৃত্যু হয়েছে ৫২জনের। গতকাল চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের রেডজোনে আইসোলেশনে রাখা ২ বছর ৪ মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। শিশু সাদিকুল দামুড়হুদা দশমির সাদ্দাম হোসেনের ছেলে। শিশু সাদিকুল দীর্ঘদিন ধরে কিডনিজনিত জটির রোগে ভুগছিলো।
চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগের হাতে গতকাল শুক্রবার ৩১জনের নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসে। এর মধ্যে ১৪জন কোভিড-১৯ পজিটিভ হয়েছে। এ ১৪জনের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় ৫জন, আলমডাঙ্গা উপজেলায় ১জন, দামুড়হুদা উপজেলায় ৫জন ও জীবননগর উপজেলায় ৩জন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৭শ ৪২ জন। সুস্থ হয়েছেন মোট ১ হাজার ৬শ ২২ জন। জেলায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৭জন, চুয়াডাঙ্গার বাইরে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৫জন। সম্প্রতি যশোরে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের আন্দুলবাড়িয়া এলাকার একজনের মৃত্যু হয়। এ মৃত্যুর হিসেব চুয়াডাঙ্গা স্বাস্থ্য বিভাগের পরিসংখ্যানে নেই। গতকাল শুক্রবার ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে থাকা আড়াই বছরের শিশু সাদিকুলের মৃত্যু নিয়ে জেলায় মোট মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ৫৪।
চুয়াডাঙ্গা জেলায় গতকাল যে ১৪ জন শনাক্ত হয়েছেন তার মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদরের চক্ষুহাসপাতালপাড়ার ১জন, সরোজগঞ্জের একজন, শঙ্করচন্দ্রের ২জন, পীরপুরের আরও ১জন। আলমডাঙ্গা উপজেলার মাঝহাদের একজন, জীবননগর উপজেলার পিয়ারাতলার ১জন, মহানগর পাড়ার ১জন, জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১জন। দামুড়হুদা উপজেলার দর্শনা থানাপাড়ার ১জন, কেরুজ হাসপাতালের ২জন, দলকালক্ষ্মীপুরের ১জন ও জয়রামপুরের ১জন। গতরাতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গায় কোভিড-১৯ পজিটিভ সক্রিয় রোগী ছিলেন ৬৮ জন। এর মধ্যে হাসপাতালে ১৩ জন, বাড়িতে ৫৪ জন আইসোলেশনে ছিলেন। ক’দিন আগে একজনকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়। তিনি ঢাকাতেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন। চুয়াডাঙ্গায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সাদিকুল নামে দুই বছর চার মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১১ টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে (রেড জোন) ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশুটির মৃত্যু হয়। জেলায় এ নিয়ে মোট করোনা আক্রান্ত হয়ে ৫৪ জনের মৃত্যু হলো। নিহত শিশু সাদিকুল চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদা উপজেলার দশমীপাড়ার সাদ্দাম হোসেনের ছেলে। চুয়াডাঙ্গায় এই প্রথম করোনা আক্রান্ত হয়ে কোনো শিশুর মৃত্যু হলো। শিশুটির পিতা সাদ্দাম হোসেন বলেন, আমার ছেলে সাদিকুল গত আড়াই মাস যাবত কিডনিজনিত কারণে ঢাকা শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলো। অতিরিক্ত শ্বাসকষ্ট শুরু হলে ২৭ মার্চ তার শরীর থেকে সংগৃহীত নমুনায় ২৮ মার্চ করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে নেয়া হয়। গত ২৯ মার্চ ঢাকা শিশু হাসপাতাল থেকে সাদিকুলকে চুয়াডাঙ্গায় নিয়ে আসি। পরদিন ৩০ মার্চ চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের (রেড জোন) ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার সকালে আমার ছেলে মারা যায়। চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গত ৩০ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শিশুটিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে পরিবারের সদস্যরা। শুক্রবার ২ এপ্রিল হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে (রেড জোনে) ওয়ার্ডে তার মৃত্যু হয়। তিনি আরও বলেন, স্বাস্থ্যবিধি না মানার ফলে করোনাভাইরাস দ্রুত সংক্রমিত হচ্ছে। এই মহামারী থেকে সুরক্ষা পেতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অহ্বান জানান তিনি।
এদিকে করোনা ভাইরাস ভয়াবহ আকারে সংক্রমণের ফলে মাস্কপরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য মাঠে নেমেছে প্রশাসন। ব্যাপকহারে জরিমানা করা হলেও সকলকে মাস্কপরা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে দেখা যাচ্ছে না। ফলে চুয়াডাঙ্গা জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির প্রধান চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথযথভাবে মেনে চলার পুনঃ পুনঃ অনুরোধ জানিয়েছেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More