চুয়াডাঙ্গায় দুটিসহ চতুর্থ ধাপে ৫৬ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত

আলমডাঙ্গায় নৌকার মাঝি গনু জীবননগরে রফিক

স্টাফ রিপোর্টার: চতুর্থ ধাপে চুয়াডাঙ্গার দুটিসহ দেশের ৫৬ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় পৌরসভা নির্বাচনে এসব প্রার্থী নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। গতকাল বুধবার দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সরকারি বাসভবন গণভবনে অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি নির্বাচন বোর্ডের দীর্ঘ বৈঠকে দলীয় প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। এতে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় পুনরায় হাসান

হাসান কাদির গণু

কাদির গনু ও জীবননগরে রফিকুল ইসলাম

রফিক

রফিককে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। বৈঠক শেষে রাতে আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়–য়া স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে দলীয় মেয়র প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়।
এছাড়াও মনোননয়ন পেয়েছেন ঠাকুরগাঁও জেলার ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় আঞ্জুমান আরা বেগম ও রাণীশংকৈলে মোস্তাফিজুর রহমান, লালমনিরহাট জেলার লালমনিরহাট পৌরসভায় মোফাজ্জল হোসেন ও পাটগ্রামে রাশেদুল ইসলাম সুইট, জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে শহীদুল আলম চৌধুরী, কালাইয়ে রাবেয়া সুলতানা, চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে সৈয়দ মনিরুল ইসলাম, রাজশাহীর নওহাটায় হাফিজুর রহমান হাফিজ, গোদাগাড়ীতে অয়েজ উদ্দিন বিশ্বাস, তানোরে ইমরুল হক ও তাহেরপুরে আবুল কালাম আজাদ, নাটোরের বড়াইগ্রামে মাজেদুল বারী নয়ন ও নাটোর পৌরসভায় উমা চৌধুরী, চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে রফিকুল ইসলাম ও আলমডাঙ্গায় হাসান কাদির গনু, যশোরের চৌগাছায় নূর উদ্দীন আল-মামুন ও বাঘারপাড়ায় কামরুজ্জামান, বাগেরহাট জেলার বাগেরহাট পৌরসভায় খাঁন হাবিবুর রহমান, সাতক্ষীরা জেলার সাতক্ষীরা পৌরসভায় শেখ নাসেরুল হক, পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় বিপুল চন্দ্র হাওলাদার, বরিশালের মুলাদীতে শফিকউজ্জামান ও বানারীপাড়ায় সুভাস চন্দ্র শীল, টাঙ্গাইলের গোপালপুরে রকিবুল হক ছানা ও কালিহাতীতে মোহাম্মদ নুরন্নবী, কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে আনোয়ার হোসেন, হোসেনপুরে আ. কাইয়ুম খোকন ও করিমগঞ্জে মুসলেহ উদ্দিন, মুন্সিগঞ্জের মিরকাদিমে আবদুস ছালাম। নরসিংদী জেলার নরসিংদী পৌরসভায় আশরাফ হোসেন সরকার ও মাধবদীতে মোশাররফ হোসেন, রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নজরুল ইসলাম ও রাজবাড়ী পৌরসভায় মহম্মদ আলী চৌধুরী, ফরিদপুরের নগরকান্দায় নিমাই চন্দ্র সরকার, মাদারীপুরের কালকিনিতে এসএম হানিফ, শরীয়তপুরের ডামুড্যায় কামাল উদ্দিন আহমদ, জামালপুরের মেলান্দহে শফিক জাহেদী রবিন, শেরপুর জেলার শেরপুর পৌরসভায় গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া ও শ্রীবরদীতে মোহাম্মদ আলী লাল মিয়া। ময়মনসিংহের ফুলপুরে শশধর সেন, নেত্রকোনা জেলার নেত্রকোনা পৌরসভায় নজরুল ইসলাম খান, সিলেটের কানাইঘাটে লুৎফুর রহমান, হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে মোহাম্মদ সাইফুল আলম, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় তাকজিল খলিফা, কুমিল্লার হোমনায় নজরুল ইসলাম ও দাউদকান্দিতে নাইম ইউসুফ, চাঁদপুরের কচুয়ায় নাজমুল আলম ও ফরিদগঞ্জে আবুল খায়ের পাটওয়ারী, ফেনীর পরশুরামে নিজাম উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, নোয়াখালীর চাটখিলে নিজাম উদ্দিন, সোনাইমুড়িতে নুরুল হক চৌধুরী, লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে এম মেজবাহ উদ্দিন, চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় মোহাম্মদ জোবায়ের, পটিয়ায় আইয়ুব বাবুল, চন্দনাইশে মাহবুবুল আলম, খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় শামছুল হক, রাঙ্গামাটি জেলার রাঙ্গামাটি পৌরসভায় আকবর হোসেন চৌধুরী এবং বান্দরবান জেলার বান্দরবান পৌরসভায় মোহাম্মদ ইসলাম বেবী।
আলমডাঙ্গা ব্যুরো জানিয়েছে, সকল জল্পনা-গুজবের অবসান ঘটিয়ে আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন (নৌকা প্রতীক) পেলেন তিন তিনবারের নির্বাচিত মেয়র হাসান কাদির গনু। তিনি আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আলমডাঙ্গা পৌরসভার বর্তমান মেয়র। সন্ধ্যার পর এ সংবাদ শোনার পর দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থক-শুভাকাক্সক্ষীরা তাকে অভিনন্দন জানাতে থাকে। অন্যদিকে, দলীয় মনোনয়ন প্রাপ্তির পর এক প্রতিক্রিয়ায় হাসান কাদির গনু বলেন, মানুষের আন্তরিক ভালোবাসা ও দোয়ায় বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী এবারও আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। সকলের ভালোবাসা আর দোয়া নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাবো। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ায় আমার প্রিয়তম আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীদের প্রতি এই শুভক্ষণে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। সশ্রদ্ধ অভিবাদন জানাচ্ছি চুয়াডাঙ্গা জেলার উন্নয়নের রূপকার সংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন।
জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে জীবননগর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেলেন সাবেক কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম রফিক। তিনি জীবননগর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ড থেকে পর পর ৩ বার নির্বাচিত কমিশনার ও কাউন্সিলর ছিলেন। তিনি পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এ দিকে রফিক নৌকা মাঝি নির্বাচিত হওয়ায় গভীর রাত পর্যন্ত শহরে আনন্দ-উল্লাস করে তার দলীয় কর্মী ও সমর্থকেরা। জীবননগর পৌর সভার ৭নং ওয়ার্ডের মৃত সিরাজুল ইসলামের বড় ছেলে রফিকুল ইসলাম রফিক। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। এবার মনোনয়ন চেয়ে ৬জন আবেদন করেন। এরা হলেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাসির উদ্দিন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক পৌর কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম রফিক, উপজেলা যুবলীগ নেতা শামীম ফেরদৌস, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম ও শরিফুল ইসলাম মিন্টু। এদের মধ্যে চূড়ান্ত দলীয় মনোনয়নের জন্য ৩ জনের নাম প্রস্তাব করে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে নির্বাচনী মনোনয়ন বোর্ডে পাঠানো হয়। গতকাল বুধবার রফিকুল ইসলামকে দলীয় মনোনয়ন দিয়ে নৌকার মাঝি হিসেবে চুড়ান্ত করা হয়। ২ ছেলে ও ১ মেয়ের জনক রফিকুল ইসলাম রফিক দলীয় মনোনয়ন লাভ করায় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশসহ পৌরবাসীর নিকট দোয়া কামনা করেছেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More