নৌকা প্রতীক প্রার্থীদের জয়লাভ : দুটি ইউপির স্বতন্ত্র ৪ প্রার্থীর ভোট বর্জন

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন : ৩টির ফলাফল বেসরকারিভাবে ঘোষণা হলেও একটির আংশিক স্থগিত

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। ৪টিতেই নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। তবে ৩টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণের পর গণনা শেষে চেয়ারম্যানসহ সংরক্ষিত নারী সদস্য ও সাধারণ সদস্যদের বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হলেও কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের একটি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করাই চেয়ারম্যানসহ ওই ওয়ার্ডের ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। তবে এ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী আলী আহম্মেদ হাসানুজ্জামান নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে এগিয়ে রয়েছেন। স্থগিত কেন্দ্রের মোট ভোটারের চেয়ে বেশি ভোটে এগিয়ে থাকায় তিনি নির্বাচিত হিসেবেই দেখছেন পর্যবেক্ষক মহল। অপরদিকে আলুকদিয়ার একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী ও কুতুবপুর ইউনিয়নের ৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী নানা অভিযোগ তুলে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন দুপুরে।

আবুল কালাম আজাদ

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আলুকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক প্রার্থী হাজি আবুল কালাম আজাদ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৮ হাজার ২শ’ ১৩ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক চেয়ারম্যান আক্তাউর রহমান মুকুল মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ৩শ’ ৯ ভোট। অপরপ্রার্থীদের মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ইসলাম উদ্দীন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৯শ’ ৫৭ ভোট। ভোট চলাকালে দুপুরেই অবশ্য তিনি নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আলিমুজ্জামান হাত পাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৬৫ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ চশমা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২শ’ ১২ ভোট। জাতীয় পার্টি মনোনীত জুলফিকার আলী কলি লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৭১ ভোট।
মোমিনপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্র্থী আব্দুল্লাহ আল মামুন নৌকা প্রতীক নিয়ে ৫ হাজার ৭শ ৪৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম ফারুক জোয়ার্দ্দার ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ৭৮ ভোট পেয়েছেন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনিত প্রার্থী একরামুল হক হাতপাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩৬৮ ভোট।
পদ্মবিলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হয় ইভিএম পদ্ধতিতে। এ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. আলম নৌকা প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ৫শ ১৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী সেলিম মল্লিক আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৯শ ২০ ভোট। বর্তমান চেয়ারম্যান আবু তাহের বিশ্বাস স্বতন্ত্র প্রাথী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৭শ ৫৭ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী আতিয়ার রহমান মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৪৭ ভোট ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী ওমর ফারুক হাত পাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৮৯ ভোট।
কুতুবপুর ইউডনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এর মধ্যে ভুলটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়। বাকি ১৫টি কেন্দ্রের ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান চেয়ারম্যান আলী আহম্মেদ হাসানুজ্জামান নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১১ হাজার ৩৫ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জুয়েল রানা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চশমা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ৯শ ১৪ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান শাখাওয়াৎ হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩ হাজার ২শ ৭১ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৫৯ ভোট। ইসলামী আন্দোলন মনোনীত প্রার্থী আজিজুল হক হাত পাখা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৯৬ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী আক্তার হোসেন রনি ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮ ভোট। চুয়াডাঙ্গা জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা তারেক আহমেমদ জানান, ১টি কের্ন্দের ভোট স্থগিত থাকায় কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে ভোটের ফলাফল নির্বাচন কমিশনের অনুমতি নিয়ে ঘোষণা করা হবে।
আলুকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত ১নং আসনে মোছা. আছিয়া বক প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ২শ ৫৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নাসিমা আক্তার হেনা হেলিকপ্টার প্রতীক নিয়ে পেয়েছে ১ হাজার ৪শ ৮২ ভোট। সংরক্ষিত ২ নং আসনে আনোয়ারা খাতুন মাইক প্রতীক নিয়ে ৪ হাজার ৭শ ৪৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পারুলা খাতুন বক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২২৯ ভোট। সংরক্ষিত ৩ নং আসনে জাহানারা পারভীন তালগাছ প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৯শ ৭৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রওশন আরা খাতুন মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ২শ ৮৭ ভোট। মেম্বার পদে ১নং ওয়ার্ডে আল বেলাল ফুটবল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৩শ ৮৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ২নং ওয়ার্ডে আবুল হাসেম ফুটবল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৪শ ৩৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৩ নং ওয়ার্ডে আব্দুর রাজ্জাক টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৭৩২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৪ নম্বর ওয়ার্ডে সাইফুজ্জামান টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ২৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৫নং ওয়ার্ডে আশরাফ আলী ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৫শ ১৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৬ নং ওয়ার্ডে আঃ জব্বার ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৮শ ৮৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৭নং ওয়ার্ডে কাউছার হোসেন বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীক নিয়ে ৮শ ১৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৮নং ওয়ার্ডে হাবলুর রহমান মোরগ প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৩শ ৫৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। ৯ নং ওয়ার্ডে মোশারেফ হোসেন ভ্যানগাড়ি প্রতীক নিয়ে ৭শ ১৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।
মোমিনপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত ১নং আসনে তথা ওয়ার্ডে আইরিন বেগম মাইক প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৩শ ২৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সালমা বেগম ময়না বক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮শ ৭৩ ভোট। ২নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে রত্মা আক্তার লতা হেলিকপ্টার প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৪শ ৭৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জামিরন বেগম বই প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৭৫ ভোট। সংরক্ষিত ৩নং ওয়ার্ডে সোহাগী খাতুন সুর্যমুখি ফুল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৪শ ৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম আরিছন নেছা মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮শ ৮৬ ভোট। সাধারণ সদস্য পদে ১ নং ওয়ার্ডে আব্দুর রাজ্জাক মোরগ প্রতীক নিয়ে ৪৪৩ ভোট, ২নং ওয়ার্ডে বাবুল হোসেন মোরগ প্রতীক নিয়ে ৪১২ ভোট, ৩নং ওয়ার্ডে জাহিদ হাসান মোরগ প্রতীক নিয়ে ৪১৭ ভোট, ৪নং ওয়ার্ডে শাহীনুর রহমান টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৫শ ৩৬ ভোট, ৫নং ওয়ার্ডে আলমগীর হোসেন ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৮৭১ ভোট, ৬নং ওয়ার্ডে আরিফ হোসেন টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৪৩৭ ভোট, ৭নং ওয়ার্ডে আমিনুল ইসলাম টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৫৫২ ভোট, ৮নং ওয়ার্ডে আসাদুল হক ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৪৬২ ভোট ও ৯নং ওয়ার্ডে আক্তারুজ্জামান উজ্জ্বল টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৬৯৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।
পদ্মবিলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে শরিফা খাতুন বক প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৩শ ৫৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বি রুবিনা খাতুন সূয্যমুখি ফুল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৮২ ভোট পেয়েছেন। ২ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে হাসিনা খাতুন মাইক প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ২শ ৪৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী চায়না খাতুন তালগাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৯শ ১১ ভোট। ৩ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে লাইলা আর্জুমান্ত বানু মাইক প্রতীক নিয়ে ৩ হাজার ১শ ২৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী খালেদা বেগম তালগাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮শ ২৪ ভোট। সাধারণ সদস্য তথা মেম্বার পদে ১ নং ওয়ার্ডে মফিজুল ইসলাম মোরগ প্রতীক নিয়ে ৬০৯ ভোট, ২নং ওয়ার্ডে রবিউল আলম টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৭১৬ ভোট, ৩নং ওয়ার্ডে শাহাজালাল বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীক নিয়ে ৬শ ৩৩ ভোট, ৪নং ওয়ার্ডে ওমর ফারুক সুমন তালা প্রতীক নিয়ে ৬১৫ ভোট, ৫নং ওয়ার্ডে আজিবার ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৯শ ৬২ ভোট, ৬নং ওয়ার্ডে ইমদাদুল হক মোরগ প্রতীক নিয়ে ৬৪৬ ভোট, ৭নং ওয়ার্ডে হুমায়ুন কবির বিশ^াস মোরগ প্রতীক নিয়ে ৮১৯ ভোট, ৮নং ওয়ার্ডে আব্দুর রাজ্জাক টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ৭শ ১ ভোট ও ৯নং ওয়ার্ডে ফেরদৌস হোসেন ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৪৩২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।
কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রাপ্ত তথ্য মতে সংরক্ষিত ১নং ওয়ার্ডে জেসমিন আক্তার মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫ হাজার ১শ ৪৮ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মিলি ইয়াসমিন তালগাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৭শ ৭৮ ভোট। ২নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মালেকা খাতুন মাইক প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২ হাজার ৪শ ৭৮ ভোট। নিকটতম প্রার্থী লাল বানু সূর্য্যমুখি প্রতীক নিয়ে ২ হাজার ২শ ৬১ ভোট পেয়েছেন। ৩নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের একটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়েছে। এ কেন্দ্র বাদে অপর গুলোতে কল্পনা খাতুন হেলিকপ্টার প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৮শ ৯ ভোট, রোমেছা খাতুন বক প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৪শ ৯২ ভোট, রিনা পারভীন মাইক প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ২শ ১৭ ভোট পেয়েছেন। ভুলটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মোট ভোটার ২ হাজার ১শ ৭৯ ভোট। ফলে এ কেন্দ্রের ভোটের পরই নিশ্চিত হওয়া যাবে সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডে কে নির্বাচিত হবেন। সাধারণ সদস্য তথা মেম্বার পদে ১ নং ওয়ার্ডে রিজাউল হক ফুটবল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৯৩ ভোট, ২নং ওয়ার্ডে জামাত আলী বৈদ্যুতিক পাখা প্রতীক নিয়ে ৭৩৩ ভোট, ৩নং ওয়ার্ডে বিল্লাল হোসেন তালা প্রতীক নিয়ে ৭শ ৬৭ ভোট, ৪নং ওয়ার্ডে নুর ইসলাম ম-ল টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ১শ ১৬ ভোট, ৫নং ওয়ার্ডে আফাঙ্গির হোসেন মোরগ প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ২শ ৬০ ভোট, ৬নং ওয়ার্ডে ইলাহী মোল্লা ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৬শ ২৩ ভোট, ৭নং ওয়ার্ডে ভোট স্থগিত, ৮নং ওয়ার্ডে আঃ হালিম তালা প্রতীক নিয়ে ১ হাজার ৭৪ ভোট ও ৯নং ওয়ার্ডে হাসানুজ্জামান ফুটবল প্রতীক নিয়ে ৪শ ৩৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত ঘোষিত হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন।
গতকাল রোববার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হয়। পদ্মবিলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হয় ইভিএম প্রদ্ধতিতে। বাকি ৩টিতে গোপন ব্যালটে ভোট গ্রহণ করা হয়। সকালে ও বিকেলে ভোটারদে ভিড় পরিলক্ষিত হয়। আলুকদিয়া ইউনিয়নের ঝোড়াঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের অদূরে ছুরিকাঘাতে দুজন আহত হয়েছেন। কুতুবপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর কেন্দ্রে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার পরিদর্শনে গেলে স্থানীয় জনগনের নানা প্রশ্নের মুখে পড়েন। উত্তেজনারও সৃষ্টি হয়। এ ইউনিয়ন পরিষদের ভুলটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে আইন শৃঙ্খল্ াপরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়। এ তথ্য জানিয়ে রিটার্নিং অফিসার কামরুল হাসান বলেন, সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর দুপুর ২টার দিকে ভোট স্থগিতের গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। এদিকে গতকাল দুপুরেই আলুকদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ইসলাম উদ্দীন সাংবাদিকদের নিকট ফোন করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। পরে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন। কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ৩ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী জুয়েল রানা, শাখাওয়াৎ হোসেন ও নজরুল ইসলাম বিকেলে ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়ে বলেন, নজিরবিহীন কারচুপি হয়েছে। জোর করে ভোট কেটে নেয়া হয়েছে। অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার না পেয়ে নির্বাচন বর্জন করে পুনঃ নির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More