পুলিশ দুদক ও এনএসআই’র পরিচয় নকল হলেও আসলে তিনি মহাপ্রতারক!

থানার সামনে প্রতারণার সময় চুয়াডাঙ্গার তৌহিদ গ্রেফতার
স্টাফ রিপোর্টার: পুলিশ পরিচয়ে এক নারীর সাথে প্রতারণার সময় হাতেনাতে আটক হয়েছেন মহাপ্রতারক তৌহিদ। গতকাল শুক্রবার দুপুরের পর চুয়াডাঙ্গা সদর থানার সামনে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করার সময় তাকে আটক করে পুলিশ। পরে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের মুখে প্রতারণার বিষয়টি স্বীকার করেন তৌহিদ। নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে প্রমাণ করতেই এক নারীকে থানার সামনে দেখা করতে বলেন তিনি। এ ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে একটি এবং এক নারী তার বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করেন। পরে ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত তৌহিদ হোসেন (২৩) চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গাইদঘাট গ্রামের মিল্লান হোসেনের ছেলে।
চুয়াডাঙ্গা সদর থানা সূত্রে জানা গেছে, তৌহিদ হোসেন দীর্ঘদিন ধরেই নিজেকে পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে আসছিলেন। এই পরিচয় দিয়ে তিনি মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন নগদ অর্থ। প্রতারণার সময় তাকে যেনো কেউ সন্দেহ না করে এজন্য তিনি কখনও পুলিশের ইউনিফর্ম পরে, কখনও বন্দুক হাতে আবার কখনও ওয়াকিটকি হাতে নিয়ে ছবি তোলেন। সেই ছবি পোস্ট করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।
সাধারণ মানুষের কাছে তিনি পুলিশ পরিচয় দিতে স্বচ্ছন্দবোধ করেন। অনেকেই তাকে পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে জানেন। আবার পুলিশের কাছে তিনি পরিচিত দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কর্মচারী হিসেবে। আবার কেউবা জানেন জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) সদস্য হিসেবেও। এসব পরিচয় নকল হলেও আসলে তৌহিদ একজন মহাপ্রতারক। পুলিশ কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে তিনি বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। মানুষের সাথে প্রতারণা করতেই তার এই বহুরূপী সাজ বলে জানায় পুলিশ। শুধু ভূয়া পরিচয়-ই দিতেন না, তার দেয়া পরিচয় সত্য প্রমাণ করা বা বিশ্বাস করানোর জন্যও অনেক পরিশ্রম করতেন তৌহিদ। গতকাল শুক্রবার পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণা করতে বেছে নেন চুয়াডাঙ্গা সদর থানার সামনের এলাকা। তাতেই ঘটে বিপত্তি।
শুক্রবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার সামনে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করছিলেন তৌহিদ। তার গতিবিধি লক্ষ্য রাখে পুলিশ। পরে তার আচার আচরণে সন্দেহ ঘনিভূত হলে তৌহিদকে আটক করে নেয়া হয় থানায়। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে প্রতারণার বিষয়টি স্বীকার করেন তৌহিদ। জিজ্ঞাসাবাদে তৌহিদ হোসেন জানান, নিজেকে চুয়াডাঙ্গা থানার পুলিশ বলে এক নারীর কাছে পরিচয় দেন তিনি। তাকে বিশ্বাস করানোর জন্যই থানার সামনে ঘোরাফেরা করছিলেন। তৌহিদের বিরুদ্ধে এক নারী প্রতারণার অভিযোগে মামলা করেছেন। পুলিশ বাদী হয়ে করেছে আরেকটি মামলা।
চুয়াডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মহসীন বলেন, ‘তৌহিদ একজন প্রতারক। তিনি সাধারণ মানুষের কাছে পুলিশ হিসেবেই পরিচিত। অনেকের কাছে পরিচিত দুদক কিংবা এনএসআইয়ের কর্মচারী হিসেবেও। এগুলো প্রমাণে তিনি আবার সেসব বাহিনীর পোশাক পরে ছবি তুলে ফেসবুকেও শেয়ার করেন। এরকম বিভিন্ন বাহিনীর সদস্য সেজে মূলত টাকা হাতিয়ে নেয়ায় ছিলো তার কাজ। এরই মধ্যে আমরা বিভিন্ন মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পেয়েছি তার বিরুদ্ধে। শনিবার তাকে চুয়াডাঙ্গা আদালতে সোপর্দ করা হবে।’

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More