বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশে জমি নিয়ে যে কোনো জটিলতা নিরসনে অবিস্মরণীয় পদক্ষেপ নিয়েছেন -এমপি আলী আজগার টগর

’ভূমি অফিসে না এসে ডিজিটাল ভূমি সেবা গ্রহণ’ শীর্ষক ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

স্টাফ রিপোর্টার: ভূমি সংক্রান্ত সেবা পেতে সরকার যে সেবামূলক প্রশংসনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে তা তৃণমূল পর্যায়ে সকলকে জানানোর আহ্বান জানিয়ে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজি আলী আজগার টগর বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশে জমি নিয়ে যেকোনো জটিলতা নিরসনে অবিস্মরণীয় পদক্ষেপ নিয়েছেন। ঘরে বসেই মানুষ জমি সংক্রান্ত যে কোনো সেবা নিতে পারছেন। এ লক্ষ্যে শুরু হয়েছে সপ্তাহ ব্যাপী ডিজিটাল ভূমি সেবা।

                    ভূমি অফিসে না এসে ডিজিটাল ভূমি সেবা গ্রহণ স্লোগানকে সামনে নিয়ে গতকাল রোববার সকাল ১০টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে জেলা প্রশাসক মঞ্চের সামনে ডিজিটাল ভূমিসেবা সপ্তাহের অনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন হাজি আলী আজগার টগর এমপি। বেলুন উড়িয়ে সপ্তাহের শুভ সূচনার পর উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগর টগর স্টোলগুলো ঘুরে দেখেন। কয়েকজন সেবাগ্রহণকারীর হাতে সেবামূলক সনদও তুলে দেন। উদ্বোধন আনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম (বিপিএম সেবা), জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চুয়াডাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান।

                    সহকারী কমিশনার হাবিবুর রহমানের উপস্থাপিত সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) শারমীন আক্তার। তিনি ভূমি সপ্তাহের গুরুত্ব তুলে ধরে ভূমি সংক্রান্ত সেবা নিশ্চিত করতে সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয়ের নানা পদক্ষেপের বর্ণনা গুরুত্বসহকারে তুলে ধরেন। বলেন, ভূমি আপনাদের মূল্যবান সম্পদ। যথাযথ রক্ষণা-বেক্ষণ ও ভবিষ্যত জটিতলা এড়ানোর স্বার্থে আপনার কর্তব্য মালিকানা অর্জনের সাথে সাথেই মিউটেশনের মাধ্যমে নিজের অংশের স্বত্বলিপি খতিয়ান সুনির্দিষ্ট করা। এজন্য ভূমি প্রশাসন আপনাকে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রধান করতে অঙ্গীকারাবদ্ধ। সরকার নির্ধারিত ফি এবং প্রয়োজনীয় সকল কাগজপত্র জমা দিয়ে আপনি আপনার উপজেলা ভূমি অফিস থেকে নামজারি সংক্রান্ত যাবতীয় সেবা গ্রহণ করতে পারেন। এসব কার্যক্রম সহজতর করতে সরকার সর্বস্তরে স্বচ্ছ্বতার সাথে দায়িত্বপালনে সরকারি সকল কর্মকর্তা কর্মচারিকে নিদের্শনা দিয়েছে। প্রয়োজনে ঘরে বসেই ডিজিটাল মাধ্যমে সকল প্রকার সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

                    উদ্বোধন আলোচনাসভায় বিশেষ অতিথি ছাড়াও বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব সভাপতি সরদার আল আমিন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হাজি আলী আজগার টগর এমপি বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ নির্বাচনী ইশতেহারেই উল্লেখ করেছিলো ভূমি সংক্রান্ত জটিলতা নিরসনে বাস্তবমূখি পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলে দেশবাসীকে ঘরে বসেই সরকারি যাবতীয় সেবা নিশ্চিত করবে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী উন্নয়নমূলক সকল কার্যক্রমের পাশাপাশি ভূমি সংক্রান্ত সকল প্রকার জটিলতা নিরসনে কথা রেখেছেন। ভূমি সপ্তাহ পালনের মাধ্যমে যেমন ভূমি সংক্রান্ত সেবা মানুষের ঘরে পৌছে দেয়া সম্ভব হচ্ছে তেমনই স্লোগন দিয়ে বলা যাচ্ছে ‘চালু হলো ই নামজারি, টাউট দালালদের মাথায় বাড়ি রাখবা নিষ্কন্ট জমি বাড়ি, করবো সবাই ই-নামজারি।’

ডিজিটাল ভূমিসেবা সপ্তাহের আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি হাজি আলী আজগার টগর দেশবিরোধী কোনো অপপ্রচারে কান না দিয়ে সকলকে দেশের প্রতি আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আমাদের দেশ কখনোই শ্রীলঙ্কার মতো হবে না। কেনো না, দু দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ভিন্ন। নেতৃত্বেও আকাশ পাতাল তফাৎ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দূরদর্শী বলেই কৃষি উৎপাদন নিশ্চিত করতে ভর্তুকি মূল্যে সার দিচ্ছে। সারের পর্যাপ্ত সররাহ নিশ্চিত করেছেন। কোন এক সময় সার নিয়ে মানুষ হুড়োহুড়ি করতো। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ পরিচালিত হওয়ার সময়ে কৃষকদের সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে। কৃষিপণ্য উৎপাদন স্বাভাবিক রয়েছে। মূল্যবৃদ্ধির দরুণ যে অস্থিরতার কথা বলা হচ্ছে তা আসলে বিশ^ অর্থনৈতিক মন্দারই প্রভাব। বিশে^র উন্নত দেশে আমাদের দেশের তুলনায় অনেক বেশি বিরূপ প্রভাব পড়েছে। কোনো কোনো দেশে তিনবেলা খাওয়া ছেড়ে দু বেলা খাওয়া খেয়েই বাঁচতে হচ্ছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রীর আগাম এবং সতর্ক পদক্ষেপের কারণে অতোটা বাজে প্রভাব পড়তে পারেনি। পড়বে না। তবে আমাদের সকলকে নিজ নিজ ক্ষেত্রে দায়িত্বশীল হতে হবে। সর্বক্ষেত্রে অপচয় হ্রাস করতে হবে। কেনো না, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ বিশ^কে আরও কতটা বিপর্যস্ত করবে তা এখনই বলা যাবে না।

                    সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম খান সকলকে ডিজিটাল ভূমি সেবা গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে বলেন, সঠিক সময়ে ভূমি উন্নয়ন কর প্রদান নাগরিক দায়িত্ব। ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের দাখিলা মালিকানা বা জমির স্বত্ব প্রমাণের অন্যতম গ্রহণযোগ্য একটি দলিল। এ সেবা এখন ঘরে বসেই নেয়ার সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে সরকার। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম বলেন, ভূমি সংক্রান্ত জটিলতা দূর হলে সমাজে হানাহানি বহুলাংশে হ্রাস পাবে। গ্রাম বাংলায় যতো বিরোধ বিশৃঙ্খলা তার অধিকাংশই জমি নিয়ে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিয়াজুল ইসলাম টোটন বলেন, সরকারি সেবামূলক কার্যক্রমের প্রচার প্রচারণা জেলা উপজেলা পর্যায় থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে নিতে হবে। এতে মানুষ সরকারি সেবামূলক পদক্ষেপের কথা জানতে পারবে। সেবা গ্রহণে জনগণ এগিয়ে আসবে। সফল হবে সরকারের উদ্যোগ।

                    আলোচনাসভা শেষে চুয়াডাঙ্গা জেলার শ্রেষ্ঠ ভূমি উপ-সহকারী হিসেবে জীবননগর পৌর ভূমি অফিসের আশরাফুল আলমকে, জেলার শ্রেষ্ঠ ভূমি সহকারী কর্মকর্তা হিসেবে সদর উপজেলার মোমিনপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের রেবেকা সুলতানাকে, জেলার শ্রেষ্ঠ সার্ভেয়ার হিসেবে আলমডাঙ্গা উপজেলার সার্ভেয়ার মো. সাফায়েতুল ইসলামকে, জেলার শ্রেষ্ঠ কানুনগো হিসেবে আলমডাঙ্গা উপজেলার একেএম আমিনুল ইসলামকে, জেলার শ্রেষ্ঠ সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে আলমডাঙ্গা সহকারী কমিশনার ভূমি রেজওয়ান নাহিদকে সম্মাননা সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এ সম্মাননা সনদ ও ক্রেস্ট তুলে দেন। এ সময় সভার সভাপতি জেলা প্রশাসক বলেন, চুয়াডাঙ্গা জেলার সকল সহকারী কমিশনার ভূমিসহ সংশ্লিষ্ট সকলেই ভালো কাজ করছেন। শ্রেষ্ঠত্বের সনদ যাদেরকে দেয়া হলো এদের সাথে অন্যদের কাজের মানও প্রায় সমান। এরপরও সকলকে উৎসাহিত করার জন্য চূলচেরা বিশ্লেষণ। আগামীতে সকলকে আরও আন্তরিকভাবে সরকারি সেবামূলক কাজ করার অনুরোধ রইলো।

                    ভূমি সেবা পেতে এবং অভিযোগ করতে প্রয়োজনে ১৬১২২ নম্বরে অথবা ষধহফ.মড়া.নফ এবং পৃথিবীর যে কোন প্রান্ত থেকে +৮৮ ০৯৬৯২-৩৯৬৯২২ নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে। যোগাযোগ করে ভূমি উন্নয়ন কর. ই নামজারি, খতিয়ান পর্চা, জমির ম্যাপ, অনলাইন শুনানি, ভূমি সেবা অ্যাপ, জলমহালের আবেদন, উত্তরাধিকার অ্যাপ, ভূমি সংক্রান্ত অভিযোগ জানাতে, ভূমি বিষয়ক পরামর্শ পেতে পারেন।

আলমডাঙ্গা ব্যুরো জানিয়েছে, আলমডাঙ্গা উপজেলায় ভূমি সেবা সপ্তাহ-২০২২ পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে রোববার বিকেল ৪টায় উপজেলা ভূমি দফতরের আয়োজনে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১৯ মে ভূমি সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করা হয়েছে। আজ ২৩ মে ভূমি সেবা সপ্তাহ-সমাপনী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে। আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রনি আলম নূরের  সভাপতিত্বে  প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আইয়ুব হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাড. সালমুন আহমেদ ডন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী মারজাহান নিতু, আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)  রেজওয়ানা নাহিদের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন কানোনগো একেএম আমিনুল ইসলাম, প্রধান সহকারী সোহেল রানা, নাজির ইসমত তোহা, মিউটেশন সার্টিফিকেট সহকারী তানভীর আজিজ, পেশকার আনিসুর রহমান, ক্রেডিট চেকিং সোহেল রানা, সার্টিফিকেট সহকারী শাহাদত হোসেন, কম্পিউটার অপারেটর সজিবুর রহমান, প্রসেস সার্ভার কাজী রোকন উদিন, স্টাফ ফারুক, ফাহিম প্রমুখ। আলোচনাসভায় ভূমি সেবা সপ্তাহ-২০২২ উপলক্ষে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমির বিভিন্ন সেবা বিষয়ে ব্রিফ করা হয়। যেমন ভূমি উন্নয়ন কর, খতিয়ান পর্চা, অনলাইন শুনানী, জল মহালের আবেদন, ভূমি সংক্রান্ত অভিযোগ জানতে, ই-নামজারি, জমির ম্যাপ, ভূমি বিষয়ক পরামর্শ অনলাইনে পাওয়া যাবে। আলোচনাসভা শেষে অনলাইনে নামজারির আবেদনকারীদের মাঝে নামজারির ডিসিআর প্রদান করা হয়।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More