ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা নিহত : আহত ৫

ডাকবাংলা/গড়াইটুপি প্রতিনিধি: জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে ঝিনাইদহে ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচার মৃত্যু হয়েছে। শনিবার বিকেলে সদর উপজেলার মোহাম্মদপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মখলেছুর রহমান বিশ্বাস (৫২) ওই গ্রামের আকবর আলী বিশ্বাসের ছেলে। ঘটনায় নিহতের স্ত্রী আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
সূত্রে জানা গেছে, ঝিনাইদহ সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামে শরিকানা জমি নিয়ে বিরোধের জেরে ভাতিজার লাঠির আঘাতে চাচা মকলেছ বিশ্বাস (৫০) নিহত হয়েছেন। এই মারামারীতে উভয়পক্ষের ৫জন আহত হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে। পরে ঝিনাইদহ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। স্থানীয়রা জানান, গ্রামের বিশ্বাস গোষ্ঠীর ফজলু বিশ্বাসের ছেলে আলম হোসেন পরিবারের অসম্মতিতে বিয়ে করায় তার পিতা তার বাড়ি থেকে বের করে দেয়। পরে সে তার চাচার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। তাদের পারিবারিক কবরস্থান পরিত্যক্ত ৩ শতক জমি ছিল। বেশ কিছুদিন চাচার বাড়িতে থাকার পর তাদের পারিবারিক কবরস্থানের জমিতে আলম তার স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে কোনরকম টিনসেডের ঘর তৈরি করে থাকতেন। শরিকানা জমি ও কবরস্থানের ওপর নতুন করে বসতবাড়ি নির্মাণ শুরু করতে চাওয়ায় তার শরিকদের সাথে বিরোধ শুরু হয়। গত প্রায় ৭ মাস ধরে বিভিন্নভাবে উভয়পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি হুমকি ধামকি দেয়া চলে। কয়েকদিন ধরে তারা উভয়পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান করছিল। গতকাল শনিবার বিকেল সাগে ৪টার দিকে একই গ্রামের ফজলু বিশ্বাসের ছেলে আলম হোসেন, ছাইদুর রহমান, চাচা হামিদুর রহমানসহ তাদের লোকজন জুয়েল রানা, জাহাঙ্গীর, সজীব ও আলমের স্ত্রী ফাতেমা খাতুনসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে চাচা মকলেছ হোসেনের (৫০) ওপর হামলা চালায়। বাঁশের লাঠির আঘাতের কারণে মকলেছ মারাত্মক আহত হলে পরিবারের লোকজন তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাবার পথে হলিধানী নামক স্থানে গিয়ে মারা যান।
প্রতিবেশীরা জানিয়েছে, এ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই বিশ্বাস পরিবারের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এই বিরোধ নিয়ে ঝিনাইদহ সদর থানায় বহুবার বিচার সালিস হয়েছে। গতকাল শনিবার আসরের নামাজের পর ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত অ্যাড. আইয়ুব হোসেনের ভাই ভাতিজারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে এবং লাঠি ও ইট পাটকেলের আঘাতে মখলেছুর রহমান গুরুতর আহত হন। গতকাল শনিবার সন্ধ্যার দিকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মসুলিমা মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসকের ভাষ্যমতে অনেক আগেই তিনি মারা গেছেন। নিহতের স্বজন আনিছুর রহমান মৃত্যুর খবর নিশ্চত করেছেন। বঙ্কিরা ক্যাম্পের এএসআই নাসির উদ্দিন বলেন, জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে মামলা চলছে। আলম বাড়ি তৈরির জন্য বালু রেখেছে মকলেছের বাড়ির কাছে। গাড়ি নিয়ে আসতে গিয়ে কয়েকটি ইট গতপরশু ভেঙে যায়। এ নিয়ে গতকাল উভয়পক্ষের মধ্যে মারামারী হলে মকলেছ মারা যায়। এদিকে ঘটনার পরে অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে।
এ বিষয়ে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি শেখ সোহেল রানা বলেন, মূলত পারিবারিক জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে সংঘর্ষ মকলেছ বিশ্বাস নামের একজন মারা গেছে। আমরা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালমর্গে রয়েছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় কোন মামলা হয়নি।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More