ইয়োলো জোনে জীবননগর কেডিকে ইউনিয়ন : দর্শনা পৌরসভার দুটি ওয়ার্ড রেড জোন

স্টাফ রিপোর্টার : সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় চুয়াডাঙ্গার দর্শনা পৌরসভার ৫নং ও ৭নং ওয়ার্ডকে রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে আজ মঙ্গলবার থেকে লকডাউন শুরু হচ্ছে। গতকাল সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধে করনীয় সম্পর্কীত জেলা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অপরদিকে জীবননগরের কেডিকে ইউনিয়নকে ইয়োলো জোন হিসেবে চিহ্নি করা হয়েছে।
চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আবু তারেক , সিভিল সার্জন ডা: এএসএম মারুফ হাসান, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্ম্দ ইয়াহ ইয়া খান, সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন শাহ মো: মারজান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ সাদিকুর রহমান, দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দিলারা রহমান, এনএসআই উপপরিচালক জামিল সিদ্দিক, পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপপরিচালক দীপক কুমার রায়, জেলা তথ্য অফিসার আমিনুল ইসলাম, ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা খাইরুল আলম, এবং সদর হাসপাতালের আরএমও ডা: শামীম কবিরসহ সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় দর্শনা পৌরসভার ৫ নং ও ৭নং ওয়ার্ডকে রেড জোন হিসেবে ঘোষনা করে লকডাউন কার্যকর করা হচ্ছে। সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এ নির্দেশ আগামীকাল (আজ মঙ্গলবার) থেকে শুরু হবে। এই দুটি ওয়ার্ডে মোট ১৯ জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। ওই এলাকায় কতজন দরিদ্র যারা অসহায় তাদের তালিকা করে ত্রাণ পৌঁছিয়ে দেয়া হবে। ত্রাণ সামগ্রী আছে।
তিনি আরো বলেন, লকডাউন মেনে চলতে প্রচার প্রচারণা চালাতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি রক্ষার্থে মাস্ক বিতরণ করা হবে। জনগণের মাঝে ৩০/৩৫ হাজার মাস্ক বিতরণ করা হবে। জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা , পুলিশ বাহিনী, সেনাবাহিনী ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে আছে। সকলকে নিয়ম মেনে চলতে হবে। লোকজন আসা-যাওয়া বন্ধ করতে হবে। উপজেলা ভিত্তিক করোনা শনাক্ত তালিকা তৈরী করতে হবে। দর্শনা পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডে (পরানপুর, রিফিউজি কলোনী, মোবারকপাড়া ও কলেজপাড়ার আংশিক) এবং ৭নং ওয়ার্ডের ইসলামবাজার, থানাপাড়া ও পুরাতনবাজার ) লকডাউনের আওতায় থাকবে। ওই এলাকায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাসায় নামাজ আদায় করতে হবে। সকলকে মসজিদে ও সর্বত্র মাস্ক ব্যবহার করতে ।
জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, জীবননগর উপজেলার কেডিকে ইউনিয়নকে উয়োলো জোন ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। করোন ভাইরাসে আক্রান্তের দিক থেকে কেডিকে ইউনিয়ন এগিয়ে থাকায় গতকাল সোমবার এ ঘোষণা দেওয়া হয়। এর ফলে কেডিকে ইউনিয়নবাসীকে ইয়োলো জোনের যে স্বাস্থ্য বিধি তা মেনে চলতে হবে।
জীবননগর হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে সরকার দেশকে ৩টি ভাগে ভাগ করেছে। এগুলো হচ্ছে রেড জোন, ইয়োলো জোন ও গ্রীণ জোন। জীবননগর উপজেলার কেডিকে ইউনিয়ন ইয়োলো জোনের মধ্যে পড়েছে। জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জুলিয়েট পারউইন জানান, সরকার ঘোষিত নির্দেশনা অনুযায়ী কেডিকে ইউনিয়নকে ইয়োলো জোন হিসেবে ঘোষণা দেওয়ায় এ ইউনিয়নবাসীকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য বিধি মেনে কৃষি কাজ করতে হবে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে কলকারখানা ও কৃষি পণ্য উৎপাদন কারখানায় ৫০ ভাগ কর্মী কাজ করবে বর্ধিত শিফটে ৩৩ ভাগ কর্মী কাজ করতে পারবে। ৩০ জনের বেশী জনসমাবেশ করা যাবে না। স্বাস্থ্য বিধি মেনে শুধুমাত্র প্রয়োজনে বাড়ির বাহির হতে পারবে এবং ভ্যান, রিক্সা ও সিএনজিতে একজন করে চলাচল করতে পারবে তবে ব্যাক্তিগত গাড়িতে চলাচল করা যাবে। সড়ক পথ, নদী পথ ও রেল পথে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলাচল করা যাবে। জোনের ভেতর ও বাইরে মালবাহী গাড়ি চলাচল করতে পারবে। জোনের অর্ন্তগত মুদি ও ওষুধের দোকান খোলা থাকবে রেষ্টুরেন্ট ও খাবরের দোকান কেবল মাত্র হোম ডেলিভারী দিতে পারবে এবং নিত্য প্রয়োজনে বাজারে যাওয়া যাবে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে সীমিত আকারে আর্থিক লেদদেন করা যাবে। হলুদ জোনের রোগীদের পর্যাপ্ত হারে পরীক্ষা করতে হবে শনাক্ত রোগীরা বাড়িতে অথবা আইসোলেশন সেন্টারে আইসোলেশনে থাকবে এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে মসজিদে নামাজ আদায় করা যাবে।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More