ফরিদপুরে ট্রাক চাপায় জীবননগরের সাংবাদিক কাজলের ভাগনে শুভ নিহত

জীবননগর থেকে মোটরসাইকলেযোগে ঢাকায় যাওয়া পথে দুর্ঘটনা
জীবননগর ব্যুরো: পিতা-মাতার স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে চলেছিলেন তৌফিক আহমেদ শুভ (২৬)। নববধূকে নিয়ে তার স্বপ্ন ছিলো পৃথিবী সমান। কিন্তু তার সেই স্বপ্ন কেড়ে নিলো ঘাতক ট্রাক। কেড়ে নিলো সম্ভাবনাময় একজন যুবকের প্রাণ। অকালে মৃত্যু ঘটলো একটি স্বপ্নের। নববধূ চোখ ঝাপসা হয়ে গেছে। একমাত্র পুত্র সন্তানকে হারিয়ে শোকে পাথর হয়ে গেছেন তার পিতা-মাতা। স্ত্রীকে ঢাকাগামী পরিবহনে তুলে দিয়ে মোটরসাইকেলযোগে ঢাকায় যাওয়ার পথে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফরিদপুরের বোয়ালিয়ায় বেপরোয়া গতির ট্রাকের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন শুভ। গতকাল রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। শুভ জীবননগর উপজেলার সেনেরহুদা গ্রামে প্রভাষক মাহতাব উদ্দিনের একমাত্র ছেলে ও দৈনিক মাথাভাঙ্গার জীবননগর সহকারী ব্যুরো প্রধান সাংবাদিক সালাউদ্দীন কাজলের ভাগ্নে। এ ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, জেলার বদরগঞ্জ কামিল মাদরাসার অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক জীবননগর উপজেলার সেনেরহুদা গ্রামের মাহতাব উদ্দিনের একমাত্র ছেলে ও সাংবাদিক সালাউদ্দীন কাজলের ভাগ্নে তৌফিক আহমেদ শুভ একজন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার। ঢাকার গুলশানে অবস্থিত সাইন্সবুরি আরগো এশিয়া নামের বিদেশী একটি গার্মেন্টেসে তিনি সহকারী মারচেনডাইন পদে কর্মরত। গত ৮ মাস পূর্বে তিনি পাশর্^বর্তী ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর উপজেলার সাবদালপুরে বিয়ে করেন। শুভ ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে মোটরসাইকেলযোগে যাতায়াত করতে পছন্দ করতেন। গতকাল সকালে স্ত্রী ও ভাগ্নিকে ঢাকা গাড়িতে তুলে দিয়ে শুভ নিজের সুজুকি জিগজার মোরসাইকেলযোগে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। দুপুরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলার বোয়ালিয়া নামক স্থানে পৌঁছুলে আকস্মিকভাবে তার সামনে একটি ভ্যান চলে আসে। তিনি ভ্যানটিকে ওভারটেক করতে গিয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন এবং রাস্তার ওপর ছিটকে পড়েন। এ সময় সামনের দিক থেকে দ্রুতগতিতে ছুটে আসা ঘাতক ট্রাকটি তাকে পিষ্ট করে।
নিহতের মামা সাংবাদিক সালাউদ্দিন কাজল বলেন, আমার ছোট বোনের ছেলে তৌফিক আহমেদ শুভ রোববার সকালে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেয়। দুপুরের দিকে আমরা খোঁজ পাই সে দুর্ঘটনা কবলিত হয়েছে। পরে জানতে পারি ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করার কিছুক্ষণ পর সে মারা যায়। মধুখালী উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশনের স্টেশন অফিসার টিটব সিকদার বলেন, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বোয়ালিয়া নামক স্থানে একটি অজ্ঞাত ট্রাক এক মোটরসাইকেল আরোহীকে চাপা দিয়ে পালিয়ে গেছে খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে আহত ওই যুবককে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। পরে তিনি মারা যান।
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. ইকবাল হাসান জানান, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ওই যুবককে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। ভর্তির কিছুক্ষণ পরই তিনি মারা যায়। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানান তিনি।
ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোরশেদ আলম বলেন, ওই যুবকের মরদেহ ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছিলো। পরে পরিবারের সদস্যদের নিকট তার মরদেহ হস্তান্তর করা হয়।
এদিকে রাত সাড়ে ৯টার দিকে নিহত শুভর মরদেহ বাড়িতে পৌঁছুলে পিতা-মাতাসহ পরিবারের সদস্যদের কান্নায় পরিবেশ শোকাতুর হয়ে পড়ে। রাত ১১টায় সেনেরহুদা ঈদগাহ ময়দানে নামাজে জানাজা শেষে তাকে দাফন করা হয়। তার এ অকাল মৃত্যুতে জীবননগর উপজেলা চেয়ারম্যান হাজি হাফিজুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম মুনিম লিংকন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ অমল, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম ঈশা, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, ওসি সাইফুল ইসলাম ও জীবননগর প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দ গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন। তারা শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশসহ মহান আল্লাহর দরবারে মরহুমের জন্য জান্নাত কামনা করেছেন।
এছাড়া পৃথক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন মধুখালীর কামালদিয়া ইউনিয়নের টাকদিয়া গ্রামের আবুল শেখের স্ত্রী ভানু বেগম (৫০) ও রায়পুর ইউনিয়নের দীঘলিয়া গ্রামের আবুল কালাম আজাদের মেয়ে তানিয়া (২০)। বিকেলে রাস্তা পার হতে গিয়ে ভানু বেগমকে হানিফ পরিবহনের একটি বাস ধাক্কা দেয়। ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিনি। এছাড়া তানিয়া তার দুলাভাইয়ের সাথে মোটরসাইকেলযোগে মধুখালী থেকে বাড়ি ফেরার সময় সরকারি আইনউদ্দিন কলেজের সামনে মোটরসাইকেল থেকে পড়ে আহত হন। পরে তার মৃত্যু হয়।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More