মসজিদের টাকা তোলা নিয়ে দফায় দফায় দু’পক্ষের সংঘর্ষ, নারীসহ আহত ১২

আফজালুল হক, চুয়াডাঙ্গা:

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার মাছেরদাড়ি গ্রামে মসজিদের ঈমাম বেতনের টাকা তোলা নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নারীসহ ১২ জন আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে জরুরি বিভাগের নেয়া হয়। সেখানেও উভয়পক্ষের সংঘর্ষ বাধে। পরে হাসপাতালে নিয়োজিত পুলিশ সদস্যরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেই। পুলিশ এঘটনায় সাতজনকে আটক করেছে। সোমবার (১৪ মার্চ) সন্ধ্যার দিকে মাছেরদাড়ি জামে মসজিদে এঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন।

আহতরা হলেন, এক পক্ষের চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার মোমিনপুর গ্রামের মাছেরদাড়ি গ্রামের মৃত আবেদ আলীর ছেলে ইব্রাহিম (৫২), একই জাহাঙ্গীরের ছেলে তোতা মিয়া (৩৪), মিজানুর রহমানের ছেলে শাওন (২২), ছলেমান মিজির ছেলে ইছানুল হক (৫০), মিজানুর রহমানের ছেলে রাজু (৩০), মৃত আলী আজগরের ছেলে মাহাবুল (৪০), হোসেন আলীর ছেলে আনিক (১৭), মৃত আব্দুল বাতেনের ছেলে (ক্যাশিয়ার) আশকার আলী (৪০), তার স্ত্রী রিজিয়া পারভিন (৪৬), মৃত নুরু ব্যাপারির ছেলে তাইজেল আলী (৩৫) ও আলী কদরের ছেলে বাবুল আলী (৪০)।

অপর পক্ষের একই গ্রামের মৃত শের আলী দেওয়ানের ছেলে সালাউদ্দিন (৪০)।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আসাদুল হক দৈনিক মাথাভাঙ্গাকে বলেন, মসজিদের ঈমামের বেতনের টাকা তোলা নিয়ে মসজিদ কমিটির সভাপতি শহিদুল্লাহ ও ক্যাশিয়ার আশকার আলীর সাথে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে সোমবার বিকেলে উভয়পক্ষের লোকজন লাঠিসোঁটা নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে সাধারণ মুসুল্লিসহ একজন নারী গুরুতর আহত হয়।

এদিকে সংঘর্ষের পর আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর  সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। সেখানে উভয়পক্ষের লোকজন আবারো সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে সদর থানা ও হাসপাতালে নিয়োজিত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেই। এসময় জরুরি বিভাগের চিকিৎসা নিতে আসা রোগী, চিকিৎসক ও স্টাফদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়াও সদর হাসপাতাল চত্তর থেকে দুজনকে আটক করে নেয়ার সময় পুলিশের গাড়ি থেকে অভিযুক্তদের ছিনিয়ে নেয়ারও চেষ্টা করে স্বজনরা।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. ওয়াহেদ মাহমুদ রবিন দৈনিক মাথাভাঙ্গাকে বলেন, আহতদের অবস্থা শঙ্কামুক্ত। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সবাইকে ভর্তির জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন বলেন, মসজিদের টাকা তোলাকে কেন্দ্র করে সভাপতি ও ক্যাশিয়ার গ্রুপের ১১ জন আহতদের খবর জেনেছি। এঘটনায় সাতজনকে আটক করা হয়েছে। উর্ধ্বতন কর্মকতাদের নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউএম/এএইচ/২২১১

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More