মানবিক সংকটে নিরপেক্ষ থাকার অবকাশ নেই

সম্পাদকীয়

যুদ্ধ মানে প্রাণহানি, যুদ্ধ মানে শান্তিভঙ্গ। সেটা সকলের জানা থাকা সত্তে¡ও যুদ্ধ হয়। কোনো দেশের স্বার্থে আঘাত লাগলে, কূটনৈতিক সম্পর্কে অবনতি হলে, কোনো দেশ অপর দেশকে নিজ দেশের জন্য হুমকিস্বরূপ মনে করলে তা যুদ্ধের দিকে অগ্রসর হয়। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ তৃতীয় সপ্তাহে গড়িয়েছে, তার মধ্যে বিশ্ব প্রত্যশ্যা করেছে যুদ্ধের চরম মানবিক সংকট। যুদ্ধের অবশ্যম্ভাবী ফলাফল হিসেবে লণ্ডভণ্ড হয়েছে ইউক্রেনের শহর-নগর ও বিভিন্ন জনপদ। নিরীহ মানুষজন বাস্তুহারা হয়েছে, জানমালের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতিতে দিশেহারা সেখানের সাধারণ জনগণ। তার মধ্যে রাশিয়ার বেপরোয়া বোমাবর্ষণে রক্তাক্ত হয়েছে ইউক্রেনের একটি মা ও শিশু হাসপাতাল। ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া হাসপাতালটিতে অনেক শিশু হতাহত হয়েছে এবং আশঙ্কা করা হচ্ছে ধ্বংসস্ত‚পের নিচে চাপা পড়ে রয়েছে অনেক শিশু। ইউক্রেন আক্রমণের প্রারম্ভে রাশিয়া ঘোষণা করেছিলো শুধু সামরিক স্থাপনায় আঘাত করা হবে; কিন্তু হাসপাতাল, সাধারণ জনগণের ঘরবাড়িসহ যে সমস্ত জায়গা যুদ্ধক্ষেত্রের বাইরে অবস্থিত সে সমস্ত জায়গাতে কেন আক্রমণ করা হবে? পৃথিবীর ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখতে পাওয়া যায়, যুগের পর যুগ এ ধরণিতে অনেক শক্তিধরের আবির্ভাব ঘটেছিলো। পরাক্রমশালী সে সকল শক্তিধর চিরকাল টিকে থাকতে পারেনি। ঔদ্ধত্য আর বাড়াবাড়ির কারণে তারা সকলেই ধ্বংস হয়ে গেছে; কিন্তু বর্তমানে বিশ্বের অনেক ক্ষমতাবান, শক্তিশালী রাষ্ট্র যারা অন্য রাষ্ট্রের ওপর আক্রমণ, নিপীড়ন, ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছেন তারা এ সত্য মেনে নিতে চায় না। যুদ্ধের লীলাখেলায় তারা ভুলে যান মানবিক সংকটের কথা। সত্তরের দশকে ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় আক্রমণকারীরা সে দেশের যোদ্ধাদের নিশ্চিহ্ন করতে যে ভয়াবহ রাসায়নিক হামলা চালিয়েছিলো তার জের আজও দেশটি বয়ে বেড়াচ্ছে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম পর্যন্ত বিকলাঙ্গ শিশুর জন্ম হচ্ছে, ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন অনেকেই। যুদ্ধের এ ভয়াবহতা আমরা প্রত্যাশা করেছি ফিলিস্তিনের সাধারণ জনগণের ওপর ইসরাইলিদের ব্যাপক বোমাবর্ষণ আর ধ্বংসযজ্ঞেও। ফিলিস্তিনের লক্ষ লক্ষ মানুষ হতাহত হয়েছে, বাস্তুচ্যুত হয়েছে শান্তিকামী সাধারণ নাগরিক। বাংলায় একটি প্রবাদ রয়েছে রাজায় রাজায় যুদ্ধ, উলুখাগড়ার প্রাণান্ত। সত্যিকার অর্থেই পৃথিবীর পরাশক্তিদের মধ্যে রেষারেষি, ক্ষমতার লড়াই আর যুদ্ধের দামামায় বলি হচ্ছে সাধারণ মানুষ। তারা হয় নিজেদের জীবন দিতে বাধ্য হয়েছেন, না হয় দখলদারিত্বের মুখে নিজ আবাসভ‚মি ছেড়ে দেশান্তরী হয়েছেন। যুদ্ধের কারণে সাধারণ মানুষের আহাজারি, ক্ষুধা-দারিদ্র্য আর অভিবাসী সমস্যায় সৃষ্ট মানবিক সংকটে আমরা ব্যথিত না হতে পারি না।

ভারতবর্ষে রক্তক্ষয়ী কলিঙ্গ যুদ্ধে অজস্র মানুষের মৃত্যু আর যুদ্ধের ভয়াবহতা প্রত্যক্ষ করে সম্রাট অশোক যুদ্ধের নীতি পরিহার করে তার রাজনৈতিক ও নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে আমূল পরিবর্তন এনেছিলেন, মনোনিবেশ করেছিলেন ধর্মকর্মে যাতে করে মানুষ যুদ্ধের ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পায়। আজকের দুনিয়ায় শক্তিধর ও ক্ষমতাবান রাষ্ট্রগুলোর নীতিনির্ধারক যারা রয়েছেন তাদের বোধোদয় আসবে কি না তা আমরা বলতে পারি না; কিন্তু যুদ্ধের এ প্রলয়ংকরী, বিভীষিকাময় পরিস্থিতি সৃষ্ট মানবিক সংকটে নিরপেক্ষ থাকার অবকাশ নাই। কারণ কাল যে আপনার ওপর বোমা হামলা হবে না তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। আমরা সকল প্রকার যুদ্ধবিগ্রহ, হামলা, আগ্রাসন, দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে। যুদ্ধের ফলে সৃষ্ট মানবিক বিপর্যয়ে বিশ্বের সকল শান্তিকামী মানুষ ব্যথিত। তাই হামলা-আগ্রাসন পরিহার করে বিশ্ব যাতে মানুষের জন্য বাসযোগ্য স্থানে পরিণত হয় বিশ্বনেতৃবৃন্দকে সে পথে অগ্রসর হতে হবে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More