রমজানে বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজন কঠোর নজরদারি

সম্পাদকীয়

চলতি বছরের মার্চের শেষ সপ্তাহে শুরু হবে এবারের পবিত্র রমজান মাস। রমজান মাসের তাৎপর্য সংযম ও বিলাসহীন জীবন হলেও আমাদের দেশে এ সময়টাতে নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির একটা সাধারণ প্রবণতা লক্ষণীয়। ফলে এ সময় নিত্যপণ্যের বাজারে একটা অস্থিরতা ও সংকটের দেখা দেয় এবং সেই সংকটের পেছনে বেশিরভাগ সময়েই দেখা যায় এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী ও অসাধু চক্রের সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য।

তবে এবারের রমজানকে কেন্দ্র করে এখন থেকেই জনমনে একটা শঙ্কা বেশ আগেভাগেই দানা বাঁধতে শুরু করেছে। রমজানের বাকি আর দুই মাস। এরই মধ্যে বাজারে বাড়তে শুরু করেছে নিত্যপণ্যের দাম। তবে এবার বাজার নিয়ন্ত্রণের ব্যাপারে সরকারের সক্রিয়তাও এখন পর্যন্ত ইতিবাচক বার্তাই দিচ্ছে। সিন্ডিকেটের তৈরি অস্থিরতার চাপ শেষমেশ পড়ে সরকারের নীতিনির্ধারকদের ওপরই। ফলে এ বছর পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমদানি পণ্যের পুঙ্খানুপুঙ্খ হিসাব রাখছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও ডলার সংকটে রয়েছে এলসি (ঋণপত্রের) জটিলতা। এ কারণে রোজার মাস নিয়ে তৈরি হয়েছে আগাম শঙ্কা। আর এ সুযোগে এখন থেকেই দাম বাড়ানো শুরু করেছে একটি অসাধু চক্র। বাজারে বাড়তে শুরু করেছে চাল, ডাল, পেঁয়াজ, রসুন, আটা, ময়দা, সয়াবিন তেল, পাম অয়েল, হলুদ, মরিচ, এলাচ ও দারুচিনির মতো গুরুত্বপূর্ণ সব নিত্যপণ্যের দাম।

এ বিষয়ে কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, দেশের অনেক ব্যবসায়ী সুযোগের অপেক্ষায় থাকেন। তাদের অপতৎপরতা ঠেকাতে সরকারের আগাম প্রস্তুতি থাকতে হবে, যাতে তারা বাজার অস্থির করে কোনো সুবিধা নিতে না পারে। সরকার কঠোর হলে এই চক্র সফল হতে পারবে না।

বিষেশ্লকরা বলছেন, বাজার কারসাজি চক্রের বিরুদ্ধে আগাম ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি রোজার মূল চেতনাকে ধারণ করে ইবাদত-বন্দেগি করলে নিত্যপণ্যের ওপর চাপ পড়বে না। এমনকি দেশের প্রধানমন্ত্রীও এ ব্যাপারে অসাধু ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

আমরা মনে করি, সবার আগে বাজারের ওপর সরকারের একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রণ জরুরি। তার জন্য দরকার কঠোর প্রশাসনিক নজরদারি ও কার্যকরী সরকারি উদ্যোগ। সরকারের কঠোর নজরদারিই পারে বাজারে স্থিতিশীলতা রক্ষা করতে, সমস্ত সিন্ডিকেটের জাল ছিন্ন করতে। বিশেষ করে নিম্ন ও নির্দিষ্ট আয়ের মানুষকে সাহায্যের জন্য সরকারকে এখনই জনবান্ধব সব নীতি গ্রহণ করা উচিত। এ ব্যাপারে সরকার যতখানি সফল হবে, ভোক্তাদের ঠিক ততোখানিই দুর্দশার লাঘব ঘটবে। পাশাপাশি চলমান সংকট ও রমজানের তাৎপর্যের কথা বিবেচনা করে ধর্মপ্রাণ মানুষদেরও একই সঙ্গে সচেতন ও দায়িত্ববান হতে হবে। তাদেরও উচিত দরকারি সমস্ত পণ্য আগেভাগেই কিনে বাড়িতে মজুত না করা।

আমাদের প্রত্যাশা, কেউ যেন কারসাজির মাধ্যমে নিত্যপণ্যের দাম বাড়িয়ে বাজার অস্থিতিশীল করে তুলতে না পারে তার জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি যারা এ অপকর্মে জড়িত হবে, তাদের আইনের আওতায় এনে বিচার ও কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। সেই সঙ্গে সরকারকে বিকল্প জোগানেরও ব্যবস্থা করতে হবে। তবেই বাজারে ভারসাম্য বজায় থাকবে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More