আলমডাঙ্গার জাহাপুরে আজ থেকে শুরু হচ্ছে দুইদিনব্যাপী সাধুসঙ্গ

স্টাফ রিপোর্টার: একুশে পদকপ্রাপ্ত দেশের প্রথম বাউল সাধক কবি-সুরসাগর খোদা বকশ শাহের ৩১তম তিরোধান উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার নাগদহ ইউনিয়নের জাহাপুর গ্রামে খোদা বকশ শাহ নিকেতন প্রাঙ্গণে আজ বৃহস্পতিবার দুইদিনব্যাপী সাধুসঙ্গ শুরু হচ্ছে। ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১০টায় প্রভাতফেরী ও  সন্ধ্যায় সাধুদের উপস্থিতিতে অধিবাস শুরু হবে। পর্যায়ক্রমে জ্ঞান রতœাকর ফকির লালন সাঁইজি ও সাধককবি খোদা বকশ শাহের জীবনী নিয়ে আলোচনা। খোদা বকশ শাহ, দ্দুদু শাহ ও পাঞ্জুশাহসহ সাধকদের গান পরিবেশন। মধ্যরাত পর্যন্ত চলবে এই অধিবাস সেবা।

দ্বিতীয় ও শেষ দিনে আগামীকাল শুক্রবার সকালে গোষ্ঠলীলার মধ্যদিয়ে দিবসের কার্যাবলী শুরু হবে। এরপর বাল্যসেবা শেষে খোদা বকশ শাহ এবং লালন শাহ ও অন্যান্য বাউলের গান পরিবেশন। বিকেলে পূর্ণসেবা প্রদানের মধ্যদিয়ে দুইদিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালা শেষ হবে।

খোদা বকশ শাহের বড় ছেলে প্রখ্যাত বাউলশিল্পী আব্দুল লতিফ শাহ সকল ভক্ত ও অনুরাগীদেরকে দুইদিনের এই অনুষ্ঠানমালায় যোগদানের জন্য ভক্তদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।

খোদা বকশ শাহ ১৯২৮ সালের ১৩ এপ্রিল (১৩৩৪ বঙ্গাব্দের ৩০ চৈত্র) চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার জাহাপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৩৯৬ সালের ১ মাঘ (১৯৯০ সাল) ইহলোক ত্যাগ করেন। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ১৯৯১ সালে খোদা বকশ শাহকে মরণোত্তর একুশে পদক প্রদান করেন। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত শিক্ষক খোদা বকশ শাহ বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত লালন সঙ্গীত শিল্পী ছিলেন। জীবদ্দশায় তিনি নিজেও ৯৫০টি গান রচনা করেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More