আলমডাঙ্গা ও জীবননগর পৌরসভা নির্বাচন

জীবননগর ব্যুরো: জীবননগর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সংরক্ষিত ৩টি মহিলা আসনে কাউন্সিলর পদে ৯ জন ও ৯টি সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে দাখিলকৃত ৪০ পদপ্রার্থীর সকলের মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ছিলো মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন। সকল প্রার্থীর কাগজপত্র বাছাইকালে কোনো ত্রুটি না পাওয়ায় রিটার্নিং অফিসার ইউএনও এসএম মুনিম লিংকন সকল প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন।

মনোয়নপত্র বাছাইকালে সহকারী রির্টানিং অফিসার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা কামরুল হাসান, সরকারি কর্মকর্তাগণ, তফশিলভূক্ত ব্যাংকের কর্মকর্তাগণ, এনজিও প্রতিনিধগণ ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন। আগামী ২৬ জানুয়ারি প্রার্থীতা প্রত্যাহার শেষ দিন। ২৭ জানুয়ারি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে এবং আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে বলে উপজেলা নির্বাচন অফিস নিশ্চিত করেছে।

আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাচাই সম্পন্ন

এক কাউন্সিলর প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল : চার মেয়র প্রার্থীসহ ৫৪ জন বৈধ ১/৩

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে ব্যাংকের ঋণ খেলাপীর থাকায় ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমের মনোনয়নপত্র পত্রটি বাতিল ঘোষণা করেছে রিটার্নিং কর্মকর্তা তারেক আহমেমদ। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১০টায় প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়। নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৩ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৭ জন প্রার্থীর আবেদন বৈধ বলে ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। আগামী ২৭ জানুয়ারি প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে এবং আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইকালে জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা তারেক আহমেমদ, আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা এমএজি মোস্তফা ফেরদৌস এবং প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

মেয়র পদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা হলেন, হাসান কাদির গনু (আওয়ামী লীগ), মীর মহিউদ্দিন (বিএনপি), মতিয়ার রহমান (স্বতন্ত্র) ও মো. সবেদ আলী (স্বতন্ত্র)। সংরক্ষিত কাউন্সিলর ১নং ওয়ার্ডে শ্রিপ্রা বিশ্বাস, কল্পনা খাতুন ও রুমা খাতুন। ২নং ওয়ার্ডে রাবেয়া খাতুন, রেখা খাতুন, সুফিয়া খাতুন, আয়েশা ছিদ্দিকা ও জহুরা খাতুন। ৩নং ওয়ার্ডে নুরজাহান খাতুন, রীতা খাতুন, রাসিদা খাতুন, আরজিনা খাতুন ও মনোয়ারা খাতুন। সাধারণ কাউন্সিলর ১নং ওয়ার্ডে শরীফুল ইসলাম, মিকাইল হোসেন, মাসুদ রানা তুহিন, জালাল উদ্দিন ও নাহিদ হাসান। ২নং ওয়ার্ডে কাজী আলী আজগার ও খন্দকার মজিবুল ইসলাম। ৩নং ওয়ার্ডে জহুরুল ইসলাম, দীনেশ কুমার বিশ্বাস ও নওশের আলী। ৪নং ওয়ার্ডে ইলিয়াস হোসেন, কাজী হাবিবুর রহমান, পরিমল কুমার ঘোষ, মো. আক্তারুজ্জামান, বিমল কুমার বিশ্বাস, আলম হোসেন, শাহীন রেজা, জয়নাল আবেদীন ও সদর উদ্দীন। ৫নং ওয়ার্ডে শহিদুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম, মশিউর রহমান ও আব্দুল গাফফার। ৬নং ওয়ার্ডে ডালিম হোসেন, লালন আলী, আবুল কাশেম ও রেজাউল হক। ৭নং ওয়ার্ডে আসাদুল হক, ফারুক হোসেন, বাপ্পি ও শামীম আশরাফ। ৮নং ওয়ার্ডে আশরাফুল হোসেন, জাহিদুল হোসেন ও দেলোয়ার মোল্লা। ৯নং ওয়ার্ডে মামুন অর রশিদ হাসান, সাইফুল মুন্সি ও সেলিম রেজা।

জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা তারেক আহমেমদ বলেন, ৬নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম একটি ব্যাংকের ঋণখেলাপী হওয়ায় তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। বৈধ ৫৪ প্রার্থীর মাঝে আগামী ২৭ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দ  দেয়া হবে এবং ইভিএম’র মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More