বাঁশ কাটা নিয়ে বৃদ্ধা মাকে নির্যাতন : কুলাঙ্গারের বিরুদ্ধে পুলিশে নালিশ

কুমারখালী প্রতিনিধি: যে মা কতকষ্টে মানুষ করে তার সন্তানকে, সেই মাকে কি মারা যায়? যদি কোন মা কোন কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে জমিজমা অন্য সন্তানকে সব দিয়ে দেন? তারপরও কি মাকে মারা যায়? যে সন্তান তার মাকে মারে তাকে কটাক্ষ করে বলা হয় কুলাঙ্গার। কুমারখালীর এক কুলাঙ্গার তার বৃদ্ধা মাকে মেরে আহত করেছে । ভাংচুর করেছে তার বড় ভাইয়ের বাড়ি।

ফজলু উপজেলার চাপরা ইউনিয়নের সাঁওতা গ্রামের মৃত বাহাদুর শেখের ছেলে।

নির্যাতনের শিকার সবেজান্নেছা জানান, ১ বছর আগে ছোট ছেলে ফজলু তাকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে তার জমানো ৫০ হাজার টাকা ও বয়স্ক ভাতার কার্ড কেড়ে নেয়। যে কারণে তিনি তার সব সম্পত্তি বড় ছেলের নামে রেজিস্ট্রি করে দেন। তারপর থেকেই ছোট ছেলে তাকে বিভিন্ন সময় নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আসছে। এরই জের ধরে বৃহস্পতিবার বিকালে ফজলু বাঁশ কাটতে গেলে বৃদ্ধা সবেজান্নেছা তাকে নিষেধ করেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে মাকে লাঞ্ছিত এবং বড় ভাই ঠেকাতে গেলে তার বাড়িঘর ভাংচুর করে। এ বিষয়ে ফজলু বলেন,বড় ভাই মাকে দিয়ে তার বিরুদ্ধে থানায় মিথ্যা অভিযোগ করিয়েছে।

কুমারখালী থানার ওসি মজিবুর রহমান জানান,অভিযোগ পেয়েছি তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More