গাংনী হাসপাতালের খাবারের মান প্রশ্নবিদ্ধ ॥ বাবুর্চি যখন আরএমও

গাংনী প্রতিনিধি: মেহেরপুর গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভর্তিকৃত রোগীদের খাবারের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন তুলেছে রোগী ও স্বজনেরা। পোল্টি মুরগির মাংস, সিলভারকার্প জাতীয় মাছসহ নি¤œমানের খাবার দেয়ার অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে রোগীসহ সংশ্লিষ্ঠদের ক্ষোভ বাড়লেও দেখভালের দায়িত্বপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. সাদিয়া সুলতানা নিরব দর্শকের ভূমিকায় বলে অভিযোগ রয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ এ বিষয়ে যেখানে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হচ্ছে সেখানে আরএমও’র নীরবতা ঠিকাদারের সাথে জোগসাজসের সন্দেহের উদ্রেক বলে জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দ।

গতকাল সোমবার দুপরে হাসপাতালের পাকশালায় কথা হয় বাবুর্চি লাইলি খাতুনের সাথে। আবাসিক মেডিকেল অফিসারের ভূমিকার বিষয়ে তিনি বলেন, আরএমও স্বশরীরে পাকশালায় এসে খাবারের পরিমাপ ও মান দেখেন না। ঠিকাদারের লোকজন যখন পাকশালায় খাবার দিয়ে যায় তখন আরএমওকে মোবাইলে জানানো হয়। তবে আজ (গতকাল সোমবার) খাবার পরিমাপ করা হয়নি। আরএমও স্যারকেও জানানো হয়নি। যা দিয়েছে তাই রান্না করা হচ্ছে। ঠিকাদারের প্রতিনিধিরা যে বাজার করে দিয়ে যায় তা দেখে আমি আরএমওকে বললে তিনি লিখে নেন। নিয়মানুযায়ী প্রতিদিনের খাবার তৈরীর জন্য ঠিকাদারের লোকজন যা সরবরাহ করবে তার মাপ ও মান পরীক্ষা করার দায়িত্ব কর্তৃপক্ষের। অথচ বাবুর্চির মুখের কথায় চলছেন আরএমও। তাই ঠিকাদারের লোকজনের সাথে আতাত করে নি¤œমানের খাবার ও পরিমাপে কম নেয়া হচ্ছে বলে গুঞ্জন চলছে হাসপাতালপাড়ায়।

পাকশালা ও রোগীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, হাসপাতালের মাংস বলতে পোল্টি মুরগী আর সিলভারকার্প জাতীয় কম দামের খাবার নিত্যসঙ্গী। যা অনেক রোগী নিজ বাড়িতেও খান না। হাসপাতালে এসব খাবার খেতে বিপাকে পড়ছেন তারা।

প্রতিদিনের খাবার ওজন না করা এবং মানের বিষয়ে কর্তৃপক্ষের অনমনীয়তায় স্থানীয় মহলে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে এর আগে ঠিকাদারের সাথে কর্তৃপক্ষের আতাতে হাসপাতালে নি¤œমানের খাবার সরবরাহের অভিযোগ ছিলো। বর্তমান সময়ে সেই পরিস্থিতি বিরাজ করছে কি না তা খতিয়ে দেখা দরকার বলে মনে করেন গাংনীর আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের কয়েকজন নেতা ও সুধীজনেরা।

তারা জানান, বর্তমান সরকার সেবাখাতকে জনকল্যাণকরখাত নিশ্চিত করতে নানামুখি কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন। হাসপাতালে যারা ভর্তি থাকেন তাদের বেশিরভাগ গরীব রোগী। তাদের চিকিৎসার পাশাপাশি খাদ্য সরবরাহ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। খাবারের মান নিয়ে যেহেতু রোগীদের অভিযোগ রয়েছে তাই সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে কর্তৃপক্ষ যদি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করে তাহলে বিকল্প পথে ব্যবস্থা নেয়ার ইঙ্গিত কয়েকজন নেতার।

এদিকে হাসপাতালের খাবার ব্যবস্থাপনার নীতিমালা ও প্রতিদিনকার বরাদ্দপত্র চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ রিয়াজুল আলম বলেন, প্রধান সহকারী আসাদুল ইসলাম লিটনের সাথে যোগাযোগ করে সংগ্রহ করতে। তবে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে প্রধান সহকারীর কাছে ধরণা দিলেও তিনি অফিসের নানা নিয়মের কথা বলে কাগজপত্র দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এতে খাবার নিয়ে ঠিকাদারের সাথে আতাতের অভিযোগ আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

খাবারের অভিযোগের বিষয়টি জানতে চাইলে আরএমও ডা. সাদিয়া সুলতানা বলেন, তিনবেলা আমি খাবারের সামনে এসে দাঁড়িয়ে থাকি এটা সম্ভব না। তবে খাবার পরীক্ষা করা হয়।

খাবারের মান ও পরিমাপ এবং ঠিকাদারের সাথে আতাতের বিষয়টি নিয়ে মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গাংনী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ খালেক বলেন, ঠিকাদারের সাথে আতাত করে নি¤œমানের খাবার পরিবেশনের অভিযোগ নিয়ে বিগত দিনে অনেক কথা হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে আমরা স্বশরীরে উপস্থিত থেকে উন্নতমান ও নির্দিষ্ট পরিমাণ নিশ্চিত করার ব্যাপারটা যতটুকু পেরেছি ততটুকু করেছি। করোনাভাইরাসের কারণে হাসপাতালমুখি হতে পারিনি। আগের দেখভালোর বিষয়টিতে তাই ছেদ পড়েছে। ফলে তারা এ সুযোগটা নিয়েছে। যাতে তারা এটা করতে না পারে সে বিষয়ে আমরা দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করা কার্যক্রমের সাথে যারা জড়িত আমরা তাদের কাউকে ছাড় দেবো না।

হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ সাহিদুজ্জামান খোকন বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখে দায়ীদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ঠদের নির্দেশনা দেয়া হবে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More