চুয়াডাঙ্গার গ্রামাঞ্চলে নকশা ছাড়া গড়ে উঠছে পাকা ঘরবাড়িসহ মার্কেট

বিধিমালা মানা হচ্ছে না অধিকাংশ ক্ষেত্রে : দিন দিন কমে যাচ্ছে ফসলি জমি
নজরুল ইসলাম: ঘরবাড়ি মানুষের মৌলিক প্রয়োজন। গৃহ মানুষকে আশ্রয়, নিরাপত্তা ও সামাজিক মর্যাদা প্রদান করে। একান্তে বসবাসের সুযোগ দেয় এবং স্বাস্থ্য ও স্বাচ্ছন্দ্য প্রদান করা ছাড়াও কর্ম ও উপার্জনের ভিত্তি রচনা করে। অথচ অপরিকল্পিতভাবে গ্রামের আনাচে-কানাচে গড়ে উঠছে পাকা ঘরবাড়ি, এমনকি একশ্রেণির লোকজন গ্রামের সুবিশাল সবুজ মাঠ কমমূল্যে কিনে সেখানে অপরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলছে নানা স্থাপনা। ফলে দিন দিন ফসলি জমির পরিমাণ কমে যাচ্ছে। তাছাড়া অর্থনৈতিক সচ্ছলতার কারণে গ্রামের বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে সবাই তাদের বাড়ি পাকা করছে। এমনকি ২/৩ তলা বাড়িও এখন গ্রামে খুব সহজলভ্য বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এক্ষেত্রে নির্মাণ বিধিমালা মানা হচ্ছে না অধিকাংশ ক্ষেত্রে। শহরগুলোর মতো করে মফস্বলেও ব্যাঙের ছাতার মতো গড়ে উঠছে বেসরকারি গৃহনির্মাণ। কারণ গ্রামগুলোও আজ শহরের দোষে দুষ্ট হয়ে পড়ছে। এমন গৃহনির্মাণের রূপরেখা এবং সীমাবদ্ধতা নিয়ে এখনই সকলকে সচেতন হতে হবে। তা না হলে অপরিকল্পিত শহরের ন্যায় ভোগান্তিতে পড়তে হবে গ্রামীন জনপদকে।
সূত্রে জানাগেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলার ১১ লাখ ২৯ হাজার ১৫ জন মানুষের বিপরীতে আয়তন বেষ্টনি আছে ১ হাজার ১৭০ দশমিক ৮৭ বর্গ কিঃমিঃ জমি। ইউনিয়নের সংখ্যা ৩৮টি। ৫১৪টি গ্রামে মৌজা আছে ৩৭৬টি। জেলায় জমির পরিমাণ ১ লাখ ১৬ হাজার ১০৮ হেক্টর। এর মধ্যে আবাদি জমির পরিমাণ ৯৭ হাজার ৫৮২ হেক্টর। প্রতি বর্গ কি.মি. জনসংখ্যার ঘনত্ব ৯৬২ জন। সরকার গৃহায়নকে মানব বসতি, সংস্কৃতি ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে বিবেচনা করে। দেশের শতকরা ৭২ ভাগ লোক গ্রামাঞ্চলে বসবাস করে এবং মোট গৃহের শতকরা ৮১ ভাগ গ্রামে অবস্থিত। গ্রামীণ জনগণ সাধারণত নিজেদের উদ্যোগে ঘরবাড়ি নির্মাণ করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় মানুষ প্রতিনিয়ত অপরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠছে পাকা ঘরবাড়ি। নির্ধারিত কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র বা অনুমোদন নেয়ার কথা বলা থাকলেও গ্রামাঞ্চলে তা একেবারেই মানা হচ্ছে না। শুধু গ্রামেই নয়, উন্নয়নকাজে যেকোনো জায়গায় ভূমি ব্যবহার করতে হলে সরকারি কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র লাগে। এটি লঙ্ঘন করলে সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদ- এবং সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা অর্থদ-ের বিধান রয়েছে। সারা দেশে ভূমি ব্যবহারে শৃঙ্খলা আনার জন্যই একটি আইন করা হয়েছে। আইনটির মূল উদ্দেশ্য হলো যত্রতত্র ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট বা অন্য কোনো নির্মাণকাজ করা যাবে না। আর তা না হলে কৃষিজমির সুরক্ষা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। অবৈধ স্থাপনা রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ কথা বলা হলেও তা আজ উপেক্ষিত। সরকার কর্তৃক নগর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আওতাবহির্ভূত এলাকায় পাকা ইমারত স্থাপনা নকশা অনুমোদন এবং ভবনের গুণগত মান নিশ্চিত করতে ২০১৭ সালে “জাতীয় গৃহায়ন নীতিমালা” করে আদেশ জারি করে সরকার। সেটা অনতিবিলম্বে কার্যকরের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও বলা হয়েছে। এ আদেশ কার্যকর হলে শুধু পৌর এলাকার নয়, ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায়ও গৃহ নির্মাণ করতে হলে গৃহ নির্মাণ বিধিমালা অনুসারে প্রয়োজনীয় নকশা অনুমোদন করিয়ে নিয়ে বাড়ি তৈরী করতে হবে। এই আদেশ কার্যকর হলে উপজেলা এবং পৌরসভার স্থাপনা নির্মাণ অনুমোদন কমিটির ত্রৈমাসিক মিটিং-এ পেশ করতে হবে।
উন্নয়ন কর্তৃপক্ষসমূহের আওতা-বহির্ভূত উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের অধিক্ষেত্রাধীন এলাকায় ইমারত বা স্থাপনার নকশা অনুমাদেন এবং ভবনের গুণগতমান নিশ্চিতকরণে উপজেলা পর্যায়ে ১১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটিও আছে। কমিটির সভাপতি হলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সদস্যরা হলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি), উপজেলা প্রকেীশলী এলজিইডি, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর প্রতিনিধি, ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্সে প্রতিনিধি, ইনস্টিটিউট অব আর্কিটেক্টসের প্রতিনিধি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব গ্লানারসের প্রতিনিধি, ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্সে প্রতিনিধি এবং সহকারী প্রকৌশলী বা উপসহকারী প্রকৌশলী (সহকারী প্রকৌশলী না থাকলে) সদস্য সচিব। পরিকল্পিত গ্রাম এবং পরিকল্পিত নগরী গড়ে উঠলে তখন কৃষিজমি নষ্ট হবে না, জলাধার ভরাট করে কোন বিল্ডিং গড়ে উঠবে না। যদি নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে নকশা অনুমোদন করে বিল্ডিং করে তাহলে ফসলি জমি নষ্ট হবে না, অপরিকল্পিত গ্রাম এবং নগর গড়ে উঠবে না, বর্ষা মরসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হবে না, বসবাসের স্থান হবে সুপরিকল্পিত এবং স্বাস্থ্যসম্মত, জলাশয় বা জলাধার ভরাট হবে না, প্রাকৃতিক এবং কৃত্রিমতা নষ্ট হবে না। দোস্ত গ্রামের আফাজ, মাখালডাঙ্গা গ্রামের জব্বার, বেগমপুর গ্রামের আমানত, বোয়ালিয়া গ্রামের জাফর বলেন, আসলে এমন আইন আছে আমাদের জানা নেই। প্রয়োজনে ঘর তৈরীর পর নকশা অনুযায়ী অনুমোদন নেবো। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা জাতীয় গৃহায়ন নীতিমালা কমিটির সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস বলেন, যারা বাড়ি ওপর ঋণ নিয়ে থাকে তারাই শুধু অনুমোদন নেয়। এমন একটি আইন আছে গ্রামের অধিকাংশ মানুষ তা জানেই না। আইন সম্পর্ক মানুষকে সচেতন করতে হবে। গৃহায়ন নীতিমালা কমিটির সদস্য সচিব সদর উপজেলা প্রকৌশলী আরিফুদৌল্লা বলেন, আইন আছে আসলে ওভাবে গ্রাম পর্যায়ে প্রয়োগ নেই। বিগত চার বছরের মধ্যে উপজেলা পর্যায়ে ত্রৈমাসিক যে মিটিং করার নির্দেশনা আছে তা কি অনুষ্ঠিত হয় এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অনুষ্ঠিত হয়নি তবে আগামীতে করা হবে। পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউপি চেয়ারম্যান জাকারিয়া আলম বলেন, অপরিকল্পিতভাবে ঘরবাড়ি তৈরীর ফলে কৃষিজমি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অনুমতি ছাড়া অপরিকল্পিতভাবে গৃহনির্মাণ দুর্যোগ সহনীয় নয়। বেগমপুর ইউপি সচিব আসাবুল হক মাসুদ বলেন, আইন আছে সবাই না জানলেও কেউ কেউ জানে। এরই মধ্যে আমাদের কাছে একটি আবেদন পড়েছে। আমরা উপজেলায় অনুমোদনের জন্য পাঠিয়েছি। তিনি আরও বলেন ১ থেকে ৩ হাজার স্কায়ার ফিট পাকা নির্মানের জন্য ৩ হাজার টাকা ফি। এর বেশি হলে প্রতি স্কয়ার ফিট ১ হাজার টাকা করে নেয়ার বিধান আছে।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More