ফলনও ভালো দামও চড়া : আলুচাষির মুখে চওড়া হাসি

চুয়াডাঙ্গায় আলুর আবাদ দিন দিন বাড়ছে : এবারও অতিক্রম করেছে লক্ষ্যমাত্রা
স্টাফ রিপোর্টার: এক সময় চুয়াডাঙ্গায় আলুর আবাদ ছিলো সৌখিন চাষির আদিক্ষেতা। প্রায় এক যুগ আগে জেলা সদরের গাবাড়িয়ার মাঠে একজন কৃষিবিদ বদলে দেন আলুর আবাদ নিয়ে পূর্বের ভ্রান্ত ধারণা। তারই ধারাবাহিকতায় কয়েক বছর ধরে পাল্টে গেছে দৃশ্যপট। প্রতিবছরই চুয়াডাঙ্গায় আলুর আবাদ বাড়ছে। এবারও গতবছরের তুলনায় এবার ১৩১ হেক্টর জমিতে বেশি আলুর আবাদ হয়ে মোট আবাদের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪৩৫ হেক্টর।
চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মো. আলী হাসান বললেন, জেলায় প্রতি বছরই বাড়ছে আলুর আবাদ। ফলনও তুলনামূলক বাড়ছে। এবার চুয়াডাঙ্গা জেলায় মোট ২ হাজার ৪৩৫ হেক্টর আলুর আবাদের মধ্যে সদর উপজেলায় ৫৮৫, আলমডাঙ্গা উপজেলায় ২৮০, জীবনগর উপজেলায় ১ হাজার ৯১ ও দামুড়হুদা উপজেলায় ৪৭৯ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। ইতোমধ্যে আলু উঠতেও শুরু করেছে। নতুন আলু স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বড় বড় শহরে রফতানিও হচ্ছে। এবার দেশে আলুর দাম ভালো। ফলে কৃষকেরা এখনও পর্যন্ত গতবারের তুলনায় অনেক বেশি লাভবান হবে বলে আশা করছেন। গাড়াবাড়িয়া, গাইদঘাটসহ আশপাশের আলু চাষিদেরও অভিন্ন অভিমত। চাষি হারিচ চৌধুরী, জামাল হোসেন, আবুল কালামসহ অনেকেই বলেছেন, এক বিঘা জমিতে আলুর আবাদ করতে বিনিয়োগ করতে হয় ২৫ থেকে ২৭ হাজার টাকা। স্বল্প মেয়াদি আবাদ। অল্প দিনেই বিনিয়োগের দ্বিগুণেরও বেশি লাভ হয়। এবার বাজার চড়া। ফলে গতবারের চেয়ে এবার লাভ বেশি হবে বলেই আমাদের আশা।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More