ঝিনাইদহে সার্কিট হাউজের ভবনের উদ্বোধনকালে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

বিএনপি যা বলে তার সবই উন্নয়ন বিরোধী
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: বিএনপি যা বলে সবই উন্নয়ন বিরোধী বলে মন্তব্য করেছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেছেন, বিএনপির লড়াই স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তির সাথে। গতকাল সোমবার বিকেলে ঝিনাইদহ সার্কিট হাউজের তৃতীয় তলা ভবনের উদ্বোধন শেষে তিনি এ কথা বলেন। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার দেশের মানুষের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। আজকে এ দেশ যে জায়গায় এসেছে বিশ্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মডেল; বাংলাদেশকে এখন ইমার্জিং টাইগার বলছে বিভিন্ন দেশ। আমরা নিম্ন আয়ের দেশ থেকে বের হয়ে মধ্যমায়ের দেশে এসে পৌঁছেছি এবং আমরা ইতিমধ্যে জাতিসংঘের স্বীকৃতি পেয়েছি উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে। আজকে আমাদের মাথাপিছু আয় বেড়েছে কয়েকগুণ। আমাদের সেই ৫৩০ ডলার থেকে ২২৭৫ ডলার মাথাপিছু আয়। প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের মানুষের জীবনমান অনেক উন্নত হয়েছে। বাংলাদেশ এখন অনেক এগিয়ে যাচ্ছে। আপনারা নিশ্চয় দেখেছেন প্রায় ৯৯% মানুষের ঘরে বিদ্যুৎ। রাস্তাঘাটের অবকাঠামোতে ব্যাপক উন্নয়ন। স্কুল কলেজে বিল্ডিংগুলো ব্যাপকভাবে উন্নয়ন হয়েছে। আমার কিন্তু সবক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছি। বিএনপির সমালোচনা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, যারা ব্যর্থ, যারা অতীতে ব্যর্থ হয়েছে, যারা অতীতে খুনের রাজনীতি করেছে, যারা জাতির পিতাকে হত্যা করেছে, জাতির পিতার হত্যার বিচার যাতে না হয় সেজন্য ইনডেমনিটি বিল পাস করেছে, যারা সেই স্বঘোষিত খুনিদের মন্ত্রীর মর্যাদায়, রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে এবং মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তি রাজাকার আল-বদর, আল-শামস যারা আমাদের বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছে তাদেরকে মন্ত্রিত্বের পতাকা দিয়েছে তাদের লড়াই মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তির বিরুদ্ধে। আমরা পরবর্তীতে দেখেছি যে সেই স্বাধীনতা বিরোধীদের সঙ্গে নিয়েই কিন্তু বিএনপি জোট সরকার তৈরি করেছে। এখনও তারা সেই লড়াই করে যাচ্ছে। সাংবাদিকদের বিভন্ন প্রশ্নের উত্তরে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ আজ সমস্ত সূচকে এগিয়ে। করোনা মোকবেলায় বর্তমান সরকার সফলতার সাথে এগিয়ে যাচ্ছে। খুব দ্রুতই দেশের সকল নাগরিককে টিকার আওতায় আনা সম্ভব হবে। অনুষ্ঠানের ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মজিবর রহমান, পুলিশ সুপার মুনতাসিরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টু, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজাসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More