নির্বাচনে হতাহতের ঘটনা দুঃখজনক : ওবায়দুল কাদের

স্টাফ রিপোর্টার: সারা দেশে তৃণমূল পর্যায়ে নির্বাচন ঘিরে যে উৎসবমুখরতা তা ধরে রাখতে সবাইকে আরও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, নির্বাচনে হতাহতের ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক। পরবর্তী ধাপের নির্বাচনে যাতে এমন অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয় সেদিকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। নির্বাচনের অনুকূল পরিবেশ ধরে রাখার জন্য নির্বাচন কমিশন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। গতকাল রাজধানীর বাসভবনে ব্রিফিংকালে তিনি এসব কথা বলেন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশ ভোটারের উপস্থিতিতে স্বতঃস্ফূর্ত ও উৎসবমুখর পরিবেশে গতকাল (বৃহস্পতিবার) দ্বিতীয় দফার ইউপি নির্বাচনে বিভিন্ন স্থানে কিছু প্রাণহানি ঘটেছে, অনেকে আহত হয়েছেন। কোনো দায়িত্বশীল ব্যক্তি তিনি রাজনীতি কিংবা প্রশাসনের যে-ই হোন তার দায়িত্বহীন বক্তব্য সমীচীন নয় মন্তব্য করে সেতুমন্ত্রী বলেন, দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে লক্ষ্য করা যাচ্ছে- শুধু কোনো কোনো রাজনীতিবিদই নন, জনপ্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কেউ কেউ সভা-সমিতি-সেমিনারে তাদের দায়িত্বের সীমারেখা অতিক্রম করে বক্তব্য দিচ্ছেন, মন্তব্য করছেন যা মোটেই শোভন নয়। তিনি বলেন, রাজনীতিবিদ কিংবা সরকারি কর্মকর্তা সবারই একটি সুনির্দিষ্ট সীমারেখা আছে, আচরণবিধি আছে। সবার এ সীমারেখা মেনে চলা অতি আবশ্যক। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ বিষয়ে সবাইকে বক্তব্য দেয়া বা মন্তব্য করার ক্ষেত্রে নিজস্ব পরিমন্ডল বিবেচনা করা তথা সীমারেখা মেনে চলার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আমাদের কারও কারও অতি উৎসাহী ও বাড়তি কথা বা বক্তব্যে জনমনে ভুল মেসেজ যেতে পারে, যা দেশের জন্য মোটেই শুভ নয়। শেখ হাসিনা সরকারের অন্ধ সমালোচনা বিএনপির এখন প্রতিদিনের রাজনৈতিক দায়িত্ব হয়ে দাঁড়িয়েছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, জনগণ ও দেশের জন্য তারা কিছু করতে না পারলেও মিথ্যাচার আর অপপ্রচারের কাজটি সুনিপুণভাবে করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, চূড়ান্ত বিচারে এসব অপপ্রচার বিএনপির বিরুদ্ধেই যাবে এবং যাচ্ছে, যা তারা এখনো বুঝতে পারছে না। এসব সত্য বিএনপি যত তাড়াতাড়ি বুঝবে ততই তাদের মঙ্গল বলেও মনে করেন ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি মহাসচিব সেই পরনো ভাঙা রেকর্ড বাজাচ্ছেন আর বলছেন বিচারব্যবস্থা দলীয়করণ করা হয়েছে, নির্বাচনব্যবস্থা ধ্বংস করা হয়েছে। তাদের এসব পুরনো হাতিয়ার এখন ভোঁতা হয়ে গেছে। এসব বিএনপির ধারাবাহিক কল্পিত অভিযোগের চর্বিতচর্বণ মাত্র। দেশের বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবেই কাজ করছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী বলেন, বিচারের রায় বিএনপির পক্ষে গেলে বলে বিচার বিভাগ স্বাধীন আর বিপক্ষে গেলে বলে সরকারের হস্তক্ষেপের অভিযোগ তোলা তাদের পুরনো অভ্যাস। তিনি বলেন, বিএনপির নীতি হচ্ছে বিচার মানি কিন্তু তাল গাছ আমার। বিএনপি নির্বাচনে জয়ী হলে বলে আরও বেশি ভোটে জয়ী হতে পারত, আর হারলে বলে নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ নয়। বিএনপির কাছে নিরপেক্ষ কমিশন মানে হচ্ছে নির্বাচনে জয়লাভের গ্যারান্টি প্রদান।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More