স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে হেফাজত নেতাদের চার আবেদন

স্টাফ রিপোর্টার: হেফাজতে ইসলামের সাম্প্রতিক আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সারাদেশে যে গ্রেফতার অভিযান চলছে তা বন্ধ করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছেন সংগঠনটির নেতারা। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ধানমন্ডিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসভবনে হেফাজতের একটি প্রতিনিধি দল যায়। সেখানে হেফাজতের পক্ষ থেকে চারটি আবেদন জানানো হয়। এর মধ্যে রয়েছে গত মার্চ মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর বাতিলের দাবিতে আন্দোলনের কারণে যেসব আলেম ওলামাকে গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের দ্রুত মুক্তির ব্যবস্থা করা।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানানো হয়, পবিত্র রমজান মাসে অজানা আতঙ্কে দিন পার করছেন আলেম ওলামারা। তাদের গ্রেফতার আতঙ্ক ও হয়রানি থেকে মুক্তি দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আবেদন করা হয়। হেফাজত নেতারা বলেন, চট্টগ্রামের হাটহাজারী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গণগ্রেফতার চলছে। এতে অনেকে আতঙ্কে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ২০১৩ সালে হেফাজতের নেতাকর্মীদের নামে যেসব মামলা হয়েছিলো সেগুলো প্রত্যাহারের ব্যবস্থা নিতেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করা হয়। এছাড়া কওমি মাদরাসাগুলো দ্রুত খুলে দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্যোগ প্রত্যাশা করেন হেফাজত নেতারা।
হেফাজেতের বিলুপ্ত কমিটির মহাসচিব ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির সদস্যসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম জেহাদির নেতৃত্বে সংগঠনটির নেতারা মঙ্গলবার রাত ৯টা ২০ মিনিটের দিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় যান। বের হন রাত ১২টার দিকে। প্রতিনিধি দলে আরো ছিলেন হেফাজত নেতা ও বেফাকের মহাসচিব মাহফুজুল হক, অধ্যক্ষ মো. মিজানুর রহমান চৌধুরী, আতাউল্লাহ হাফিজি। কারাবন্দি হেফাজত নেতা মামুনুল হকের ভাই মাহফুজুল হক।
বৈঠকের পর নুরুল ইসলাম জেহাদি উপস্থিত সাংবাদিকেদের বলেন, গ্রেফতার নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং মাদরাসাগুলো খুলে দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন তারা।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধীতা করে হওয়া বিক্ষোভ ও সহিংসতার ঘটনার পর সরকার হেফাজতে ইসলামের বিষয়ে কঠোর অবস্থান নেয়। মাসখানেক ধরে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। এরপর একাধিকবার হেফাজত নেতারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে গ্রেফতার বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। এর আগে সর্বশেষ গত রোববার রাতেও হেফাজতের সাবেক দুই যুগ্ম মহাসচিব মাঈনুদ্দীন রুহী ও মুফতি ফয়জুল্লাহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তার সরকারি বাসায় সাক্ষাৎ করেছিলেন।
হেফাজতের দাবিগুলো হলো: ১. হেফাজতের গণআন্দোলনকে কেন্দ্র করে সারাদেশে গ্রেফতার হওয়া আলেম ও সাধারণ মানুষকে দ্রুত মুক্তির ব্যবস্থা করা। ২. দেশব্যাপী গ্রেফতার অভিযান এখনও অব্যাহত রয়েছে। ফলে পবিত্র রমজান মাসে ইবাদত বন্দেগি করতে না পেরে অজানা আতঙ্কে দিন পার করছে মানুষজন। গ্রেফতার আতঙ্ক ও হয়রানি থেকে তাদের মুক্তি দেয়া। ৩. ২০১৩ সালে হেফাজতের বিরুদ্ধে যে সব মামলা হয়েছিলো, পূর্বের আলোচনা অনুযায়ী মামলাগুলো প্রত্যাহারের ব্যবস্থা করা। ৪. দ্রুত কওমি মাদরাসা খুলে দেয়ার ব্যবস্থা নেয়া।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More