চট্টগ্রামে অর্ধকোটি টাকার ইয়াবাসহ চুয়াডাঙ্গার স্বপন গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার: অর্ধকোটি টাকার ইয়াবাসহ চুয়াডাঙ্গার তানভীর রহমান ওরফে স্বপনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গতপরশু শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী থানার দক্ষিণ শিকলবাহা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তার মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টারের ভেতরে বিশেষ কৌশলে রাখা ১০ হাজার ৮৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে র‌্যাব। একইসাথে ইয়াবা পরিবহনে ব্যবহৃত একটি মোটরসাইকেলও জব্দ করা হয়। গ্রেফতারকৃত তানভীর রহমান ওরফে স্বপন (৩৭) চুয়াডাঙ্গা শহরের পোস্টঅফিস পাড়ার খন্দকার রহমানের ছেলে বলে জানিয়েছে র‌্যাব। গ্রেফতারকৃত তানভীর রহমানকে উদ্ধারকৃত ইয়াবাসহ চট্টগ্রাম মহানগরীর কর্ণফুলী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
র‌্যাব জানায়, গোপন সংবাদের মাধ্যমে র‌্যাব-৭ জানতে পারে যে, মাদকব্যবসায়ীরা মোটরসাইকেল যোগে বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য নিয়ে কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রামের দিকে যাচ্ছে। ওই সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার বিকেলে র‌্যাব-৭ হাটহাজারী ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল চট্টগ্রাম মহানগরীর কর্ণফুলী থানাধীন দক্ষিণ শিকলবাহা সাকিনস্থ ওয়াই জংশন রিভার ভিউ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে অবস্থান নেয়। কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাকা রাস্তার ওপর একটি বিশেষ চেকপোস্ট স্থাপন করে গাড়ি তল্লাশি শুরু করে।
এসময় র‌্যাবের চেকপোস্টের দিকে যাওয়া একটি মোটরসাইকেলের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হলে র‌্যাব সদস্যরা মোটরসাইকেল থামানোর সংকেত দেয়। মোটরসাইকেলটি চেকপোস্টের সামনে থামানোর পর চালক খন্দকার তানভীর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তার কথাবার্তায় অসংলগ্ন হওয়ায় ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে র‌্যাব। পরে তল্লাশি করে মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টারের ভেতর বিশেষ কৌশলে রাখা ১০ হাজার ৮৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার করা হয় মাদক ব্যবসায়ী তানভীর রহমানকে। একইসাথে ইয়াবা পরিবহনে ব্যবহৃত (চুয়াডাঙ্গা-ল-১১-৯২১৫) মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ৫৪ লাখ বিশ হাজার টাকা এবং জব্দকৃত মোটরসাইকেলের আনুমানিক মূল্য প্রায় তিন লাখ টাকা বলে জানিয়েছে র‌্যাব।
তবে বিশেষ একটি সূত্র জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃত তানভীর রহমানের বাড়ি ঝিনাইদহ জেলায়। দীর্ঘদিন ধরে চুয়াডাঙ্গায় বসবাস করছেন। চুয়াডাঙ্গায় তিনি স্বপন নামেই পরিচিত।
র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) নুরুল আবছার বলেন, ‘গ্রেফতার তানভীর দীর্ঘদিন যাবৎ কক্সবাজার জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা হতে মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে পরবর্তীতে চট্টগ্রামসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলে বিক্রি করে আসছিলো। চেকপোস্টে তার মোটরসাইকেলের গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হওয়ায় থামিয়ে চেক করা হয়। এসময় ওই মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টারের ভেতর বিশেষ কায়দায় লুকানো অবস্থায় থাকা ১০ হাজার ৮৪০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়।’

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More