দুর্ঘটনা : মুজিবনগরের একই পরিবারের নিহত ৩ জনের পাশাপাশি সমাধি

মুজিবনগর প্রতিনিধি: রাজবাড়ী-গোয়ালন্দ সড়কে মাইক্রো ও রড বোঝাই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত একই পরিবারের ৩ জনের লাশ গত রোববার দিনগত রাত ১২টার দিকে মুজিবনগর উপজেলার বল্লভপুর গ্রামে এসে পৌঁছেছে। এসময় স্বজনদের আহাজারিতে এলাকার আকাশ ভারি হয়ে উঠে। ওই দিন রাত সাড়ে ১২টার দিকে বল্লভপুর খ্রিস্টানদের সমাধিস্থলে নিহত ৩ জনের লাশ পাশাপাশি সমাধিস্থ করা হয়। তবে দুর্ঘটনার দিন শ্যামল ম-লের মস্তক পাওয়া না যাওয়ায় মস্তববিহীন অবস্থায় তার দেহ সমাধিস্থ করা হয়। রোববার ট্রাক ও মাইক্রো বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় মাইক্রো ও ট্রাকটি পাশর্^বর্তী খাদে পড়ে যায়। ওই সময় তার দেহ থেকে মস্তক বিচ্ছিন্ন হয় ট্রাকের তলদেশে বেঁধে যায়। গতকাল ট্রাকটি গর্ত থেকে উপরে উঠানোর সময় শ্যামল ম-লের মস্তক উদ্ধার হয়। তার মস্তক মেহেরপুর এসে পৌঁছুলে তার সমাধির কফিন বাক্সের উপর রেখে দেয়া হয়েছে।
এদিকে ওই সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত ডেজিনা ম-ল (৫২) ও মাইক্রো চালক রাজন ম-লকে ঢাকা নেয়া হয়েছে। রাজনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় সভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পর্যাবেক্ষনে রাখা হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় এক কন্যা, এক পুত্র ও এক নাতিকে হারালেও ডেজিনা ম-ল এখনও তা জানেন না।
উল্লেখ্য, গতপরশু রোববার সকাল ১০টার দিকে রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুর ছোট ব্রিজের কাছে মাইক্রো ও রড বোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে মাইক্রোবাসের ৩ যাত্রী মুজিবনগর উপজেলার বল্লভপুর গ্রামের বিপুল বিশ^াসের স্ত্রী সুব্রত বিশ^াস (৩০), ছোট ছেলে নিশান (৫), শ্যালক শ্যামল ম-ল (২৬) ও ট্রাক চালক চুয়াডাঙ্গার জীবননগরের রিপন হোসেন (৩২) ঘটনাস্থলে মারা যায়।
এছাড়া আহত হন বিপুল বিশ^াস (৩৫), তার শ^াশুড়ি ডেজিনা ম-ল (৫০), মাইক্রো চালক রাজন ম-ল (২৭), ট্রাকের হেলপার আব্দুর রহিম (২৪)।
ওই দিন নিহতের সুরতহাল রিপোর্ট গ্রহণ ও রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ স্বজনদের হাতে দেয়া হলে নিহতের লাশ মেহেরপুরের মুজিবনগরে পৌঁছুতে রাত প্রায় ১২টা বেজে যায়। পরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে ওই রাতেই নিহতদের লাশ দাফন করা হয়।

মেহেরপুরের মুজিবনগর থেকে ঢাকায় যাওয়ার পথে রাজবাড়ীতে দুর্ঘটনা
স্টাফ রিপোর্টার: রাজবাড়ীতে ট্রাক-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের তিনজনসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। রোববার (১৪ জুন) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের খানখানাপুর ছোট ব্রিজ এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। আহতদের উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুর্ঘটনায় নিহতরা হলেন মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার বল্লভপুর গ্রামের বিপুল বিশ্বাসের স্ত্রী শুভ্রতা ম-ল (৩৩), ছেলে লিজান বিশ্বাস (৬) ও শ্যালক শ্যামল ম-ল (৩৫) এবং চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার আন্দুলবাড়িয়ার বাসিন্দা ট্রাকের হেলপার মো. রিপন (৪০)। আহতদের মধ্যে বিপুল বিশ্বাস এবং তার শাশুড়ি রোজিনা ম-লসহ তাদের পরিবারের আরও এক সদস্য রয়েছেন।
রাজবাড়ীর খানখানাপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মো. শহীদুল ইসলাম জানান, নিহত ৪ জনের মধ্যে ৩ জন একই পরিবারের সদস্য। প্রাইভেটকারে মোট ৬ জন মেহেরপুরের মুজিবনগর থেকে ঢাকার দিকে যাচ্ছিলেন। পথে খানখানাপুর ছোট ব্রিজ এলাকায় পৌঁছুলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাইভেটকারের ৩জন নিহত হন। পরে ট্রাকের মধ্যে আটকা পড়া অবস্থায় মারা যান হেলপার রিপন। ট্রাকে আটকে পড়া চালককে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যরা ট্রাক কেটে বের করে আনেন। এছাড়া আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে।
গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আসিফ মাহমুদ জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজন নিহত হয়েছেন এবং হাসপাতালে আহত অবস্থায় ৩ জনকে আনা হলেও তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, গতকাল রোববার সকালে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ী সদর উপজেলার খানখানাপুরে প্রাইভেটকার ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ট্রাক ড্রাইভার রিপন শেখের বাড়িতে শোকের মাতম চলছে। গতকাল রাতেও লাশ বাড়িতে আসেনি। আজ সকালে গোয়ালন্দ থানা থেকে মরদেহ বাড়িতে নিয়ে আসা হবে বলে শ্রমিক ইউনিয়ন থেকে জানানো হয়েছে।
জানা যায়, জীবননগর উপজেলার আন্দুলবাড়িয়া মাঠপাড়ার দরবশে আলী শেখের ছেলে রিপন শেখ একজন ট্রাক ড্রাইভার। তিনি ঢাকা থেকে ট্রাক নিয়ে ফিরছিলেন। অন্যদিকে মেহেরপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি প্রাইভেটকারের সাথে খানখানাপুরে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। সংঘর্ষে প্রাণ হারান ৪ জন। এর মধ্যে প্রাইভেটকারের ৩ যাত্রীসহ ট্রাকের ড্রাইভার রিপন শেখও রয়েছে। রিপন শেখের আকস্মিক মৃত্যুকে তার বাড়িতে শোকের মাতম বয়ে যাচ্ছে বলে জানা গেছে।
মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মাইক্রোবাসযোগে বিপুল বিশ্বাস বাড়ি থেকে ঢাকা যাচ্ছিলেন। ঘটনাস্থলে বিপরীতদিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। ট্রাকের চালকের আসনে আটকে রয়েছে হেলপার রিপন। দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া ট্রাকে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়। আহত বিপুলকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে এবং ও শাশুড়ি ও মাইক্রোবাস চালককে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে পরে মেডিকেল কর্তৃপক্ষ শাশুড়ি ভেটু ম-ল ও মাইক্রোবাস চালক রাজনকে ঢাকায় রেফার করেন এবং গতকাল সন্ধ্যা রাতে আহত বিপুল চিকিৎসা নিয়ে লাশের (স্বজনদের) সাথে বাড়িতে আসেন। রাতেই তিনজনের লাশ পাশাপশি বল্লভপুর চার্চা অপ বাংলাদেশ খৃষ্টান কবরস্থানে দাফন করা হয় বলে ইউপি সদস্য বিপুলের ভাই মি. সংকর বিশ্বাস জানান।
স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, মুজিবনগরের বাগোয়ান ইউনিয়েনের ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার শংকর বিশ্বাসের ছোট ভাই বিপুল বিশ্বাস ঠিকাদারী ব্যবসার সুবাদে স্ত্রী ও শিশুপুত্র নিয়ে ঢাকায় বসবাস করেন। পাঁচদিন আগে তিনি গ্রামের বাড়িতে এসেছিলেন। গতকাল রোববার সকালে স্ত্রী, পুুত্র, শাশুড়ি ও শ্যালককে সঙ্গে নিয়ে মাইক্রোবাসযোগে তিনি ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। রাজবাড়ীর খানখানাপুরে পৌঁছুলে ঘটে এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। ট্রাকের হেলপার চালকের আসনে বসে বেপরোয়া গতিতে চালানোয় এ দুর্ঘটনা বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এদিকে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৩জন নিহত হওয়ায় মুজিবনগর উপজেলার বল্লভপুর গ্রামে শোকের মাতক চলছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More