পুলিশি অভিযান অব্যাহত : ৮ জনকে আটক করে চলছে জিজ্ঞাসাবাদ

চুয়াডাঙ্গার গহেরপুরে সড়কে গণডাকাতির ঘটনায় ব্যবহৃত হাতকরাত উদ্ধার

গড়াইটুপি প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার গহেরপুর-সড়াবাড়িয়া সড়কে গণডাকাতির ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮জনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। গতকাল শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে চুয়াডাঙ্গার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা-জীবননগর সার্কেল) মো. মুন্না বিশ্বাস ও দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ এএইচএম লুৎফুল কবীর সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় সড়কের ধারে ঝোপ থেকে একটি হাত করাত উদ্ধার করে। আটককৃতদের করা হচ্ছে জিজ্ঞাসাবাদ। এছাড়াও ঝিনাইদহের ভুক্তভোগীরা দর্শনা থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। হঠাৎ ডাকাতির ঘটনায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

ঘটনা ও পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, গতপরশু বৃহস্পতিবার চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের গহেরপুর-সড়াবাড়ীয়া সড়কের শালিকচরা মাঠ নামকস্থানে রাত সাড়ে ৮টার দিকে ১৫-২০ জনের সংঘবদ্ধ মুখোশধারী ডাকাতদল ব্যাপক তান্ডব চালায়। ঘন্টাব্যাপী এ তান্ডবে গরুর ব্যবসায়ী, ঠিকাদার ও সাধারণ মানুষকে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে তাদের কাছ থেকে নগদ আনুমানিক ৩০ লাখ টাকা ও ১০-১২ ভরি স্বর্ণ ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনা পরে জানাজানি হলে এলাকাবাসী লাঠিসোটা নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়ার আগেই তারা পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর থেকে গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে সন্দেভাজন এলাকার বিভিন্ন গ্রাম থেকে ৮জনকে আটক করে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা হেফাজতে নেন। ঘটনার পর গতকাল শুক্রবার বেলা ১টার দিকে চুয়াডাঙ্গার সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা) সার্কেল মুন্না বিশ্বাস ও দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ এএইচএম লুৎফুল কবীরের নেতৃত্বে থানা ও ক্যাম্প পুলিশ যৌথভাবে ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে পাটক্ষেত থেকে একটি হাতকরাত উদ্ধার করে। সেটি ভাজ করা ও হাতল নতুন গামছা দিয়ে মোড়ানো ছিলো। এ বিষয়ে দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ এএইচএম লুৎফুল কবীর জানান, পুলিশ ডাকাতদল ধরতে ও লুটের টাকা উদ্ধার করতে পুলিশের তড়িৎ অভিযান চলছে। ইতোমধ্যে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৮জনকে আটক করা হয়েছে। বিশদ তদন্তের স্বার্থে আপাতত তাদের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে। আশা করি দ্রুত আমরা অপরাধের সাথে জড়িত দুষ্কৃতকারীদের সনাক্ত করতে ও লুটের মালামাল উদ্ধারে সক্ষম হবো।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার শিয়ালমারী পশুহাট থেকে আসা গহেরপুর-সড়াবাড়ীয়া সড়কের শালিকচরা নামকস্থানে গরু ব্যাপারী, ঠিকাদার ও সাধারণ মানুষকে রাস্তায় গাছ ফেলে যানবাহনে ব্যরিকেড দিয়ে দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে গণডাকাতি সংঘটিত করে। এতে নগদ আনুমানিক ৩০লাখ টাকা ও ১০-১২ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট করে পালিয়ে যায় সংঘবদ্ধ ওই ডাকাতদল।

তবে স্থানীয়রা জানান, প্রতি বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকে স্থানীয় তিতুদহ ক্যাম্প পুলিশ ঘটনাস্থলে টহল দেয়। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ঘটনার দিন পুলিশ বড়শলুয়া কলেজ মোড়ে টহল ডিউটিরত ছিলো। সেখান থেকে সড়াবাড়ীয়া ওই মাঠে পৌঁছানোর পূর্বেই ডাকাতি সংঘটিত হয়। তবে দীর্ঘদিন পরে এলাকায় সন্ধ্যারাতে এত বড় ধরনের একটি ডাকাতির ঘটনায় এলাকাবাসীর মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More