মেহেরপুরে আরও তিনজনের প্রাণ কাড়লো করোনা : শনাক্ত ৪৭

মেহেরপুর অফিস: করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মেহেরপুর জেলায় মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় মেহেরপুরে নতুন করে ৩ জন রোগী মারা গেছেন। এছাড়া আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭ জন। আক্রান্তের হার শতকরা প্রায় ২৪ ভাগ। বর্তমানে করোনা পজেটিভ হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫৬৭ জন। প্রতিদিন মেহেরপুরে মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছে নতুন নতুন মুখ। করোনা সংক্রমণে লম্বা হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। দিনে দিনে করোনা রোগীর সংখ্যা কম হলেও মৃত্যুর হার না কমায় মেহেরপুরে সচেতন মানুষের মাঝে বাড়ছে উদ্বেগ আর উৎকন্ঠা। করোনা সংক্রমণ কমাতে মেহেরপুরের লকডাউন কঠোরভাবে পালনে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।
গত ২৪ ঘন্টায় মেহেরপুর জেলায় নতুন আক্রান্ত ৪৭ জনের মধ্যে মেহেরপুর সদর উপজেলায় ১৮ জন, গাংনী উপজেলায় ১৯ জন ও মুজিবনগর উপজেলায় ১০ জন রয়েছেন। এছাড়া এ পর্যন্ত শুধু করোনা আক্রান্ত রোগী মারা গেছেন ১২৭ জন। গত সোমবার রাতে সিভিল সার্জন ডা. মো. নাসির উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস থেকে আরো জানা গেছে, কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে ১৯৪টি (পিসিয়ার ল্যাবে-০, এন্টিজেন-১৯৪ ও জিন এক্সপার্ট-০) নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৪৭ জন করোনা রোগী চিহ্নিত হয়েছেন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন মোট ৫৬৭ জন করোনা রোগীর মধ্যে সদর উপজেলার বাসিন্দা ১২৯ জন, গাংনী উপজেলার বাসিন্দা ৩১৩ জন ও মুজিবনগর উপজেলার বাসিন্দা ১২৫ জন রয়েছেন। এছাড়া ট্রান্সফার হয়েছেন ১২০ জন। এদের মধ্যে সদর উপজেলার ৭৭ জন, গাংনী উপজেলার ১৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ২৫ জন রয়েছেন। এছাড়া এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ হাজার ৭১৪ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলায় এক হাজার ৩৭৪ জন, গাংনী উপজেলায় ৯৯৯ জন ও মুজিবনগর উপজেলায় রয়েছেন ৩৪১ জন রয়েছেন। মারা যাওয়া ১২৭ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ৫৭ জন, গাংনী উপজেলায় ৪৩ জন ও মুজিবনগর উপজেলায় ২৭ জন রয়েছেন।
করোনা সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও পুলিশের সদস্যরা জনসচেতনতামূলক অভিযান চালিয়েছেন। এদিন দুপুরের দিকে মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মোহাম্মদ অনিক ইসলামের নেতৃত্বে এ অভিযান চালানো হয়। মেহেরপুর শহর থেকে শুরু করে সদর উপজেলার খন্দকার পাড়া, রায়পুর, কোলা, আশরাফপুর, আমদহ, বামনপাড়া গ্রামে এ জনসচেতনতামূলক প্রচারণা অভিযান চালানো হয়। লকডাউন এর সময় অযথা বাইরে না আসার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। অভিযানে অন্যদের মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর যশোর সেনানিবাস ২৭ ফিল্ড আর্টিলারি রেজিমেন্টের লেফটেন্যান্ট শাদমান ইকবাল, এসআই গোলাম মোস্তফা সহ সেনাবাহিনী এবং পুলিশের সদস্যরা এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে মেহেরপুরে করোনা প্রতিরোধে ৪র্থ চালানের সিনোফার্ম ভ্যাকসিন পৌঁছেছে। এদিন সকালের দিকে বিশেষ ব্যবস্থায় এ সকল ভ্যাকসিন মেহেরপুরে পৌঁছুনো হয়। সিভিল সার্জন ডা. মো. নাসির উদ্দিন ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন। তিনি জানান, ু৪র্থ চালানে মোট ১০ হাজার ৪শ’ ডোজ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, দ্বিতীয় ডোজ যাদের বাকি রয়েছে তাদের ছাড়াও অনলাইনের মাধ্যমে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অন্যান্যেরও ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে। মেহেরপুর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল, গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে সুরক্ষা অ্যাপসের মাধ্যমে আবেদন করা যাবে। ভ্যাকসিন গ্রহণের সময় সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুল হাসান, ইন্সেপেক্টর আব্দুল আউয়াল, ইপিআই সুপার আবদুস সালাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More