গুণীজনদের কর্মযজ্ঞ মেলে ধরলে দিশা পায় প্রজন্ম

চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদের প্রয়াত ৪ সদস্যের স্মরণে স্মরণ সভায় বক্তারা
স্টাফ রিপোর্টার: ‘সাহিত্য চর্চার মধ্যদিয়েই সমাজকে সুন্দরের পথ দেখান সাহিত্যিকরা। যারা সাহিত্য চর্চা করেন তাদের ভাবনা জগৎ সংসার নিয়ে। নিজের সংসার নিয়ে অধিকাংশকেই উদাসীন থাকতে দেখা যায়। জগৎ সংসার নিয়ে যারা মত্ত থাকেন তাদের নিজের সংসার স্বচ্ছ্বল-সমৃদ্ধ হবে কীভাবে? নিজের সংসারের দিকে নজর দিতে না পারার কারণে অনেকেই তাদেরকে অন্যভাবে দেখলেও ইতিহাস যে মূল্য দেয় তা সংসারের স্বচ্ছ্বলতা দিয়ে তুলনা করা যায় না।’
চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ’র প্রয়াত ৪ সদস্যের স্মরণে সাহিত্য পরিষদ আয়োজিত স্মরণ সভায় বক্তারা উপরোক্ত অভিমত ব্যক্ত করে পরিষদের উপদেষ্টা সরকারি কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মুন্সি আবু সাইফ উপরোক্ত অভিমত ব্যক্ত করে বলেন, অধিকাংশ সাহিত্যিককেই আমরা ক্ষণজন্মা হতে দেখেছি। চুয়াডাঙ্গার দ্রোহের কবি অমিতাভ মীর অপ্রাপ্ত বয়সে কর্কট রোগের সাথে যুদ্ধ করে চলে গেলেন বড্ড অসময়ে। সাহিত্যিক সাংবাদিক উপস্থাপক জেড আলমকেও চলে যেতে হলো আকস্মিক। স্বাভাবিক মৃত্যুর যে বয়স হয় তার অনেক আগে। রম্য সাহিত্য রচয়িতা ভি.জে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মুক্তার আলীকেও আমরা হারিয়েছে এ বছরে। সাহিত্য পরিষদের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে যে মানুষটা বিচক্ষণতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন, সাহিত্য চর্চায় মত্ত থেকেছেন তিনি সিরাজুল ইসলাম। তাকেও মৃত্যুর কাছে হার মানতে হয়েছে। এসব গুণী সাহিত্যিকদের আমরা স্মরণের মধ্যদিয়ে তাদের রেখে যাওয়া কর্মযজ্ঞ আমরা যথাযথভাবে মূল্যায়ন করতে পারলে প্রজন্ম অবশ্যই উপকৃত হবে।
গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ সভাপতি কবি নজমুল হেলালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা পরিচালনা করেন সাহিত্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক নজির আহমেদ। প্রয়াত সদস্য কবি অমিতাভ মীর, সাহিত্যিক সাংবাদিক জেড আলম, রম্য সাহিত্য রচয়িতা শিক্ষক মুক্তার আলী ও পরিষদের সাবেক অর্থ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের স্মরণে স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন দৈনিক মাথাভাঙ্গা সম্পাদক প্রকাশক সরদার আল আমিন, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হামিদুল হক মুন্সি, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শাজাহান আলী বিশ্বাস, অ্যাড. বজলুর রহমান, হাবিবি জহির রায়হান, কাজল মাহমুদ, আনছার আলী, শোয়েব আক্তার প্রমুখ। কবি অমিতাভ মীরের স্মরণে স্বরচিত লেখা পাঠ করেন সুমন ইকবাল, ইদ্রিস ম-ল, সুমন মালিক অমিতাভ মীরের কন্যা সুজানা ফারদিন অদীতি এবং সিরাজুল ইসলামের নাতি সিয়াম শাহেদ স্মৃতিচারণ করেন। স্মরণসভায় উপস্থিত ছিলেন আতিয়ার রহমান, গিয়াস উদ্দিন টিটোন, কবি গোলাম কবীর মুকুল, ছড়া সম্রাট আহাদ আলী মোল্লা, ইব্রাহিম খলিল, হাবিবা খানম, চন্দনা, রোজা প্রমুখ। সমাপনী বক্তব্যে কবি নজমুল হেলাল বরণীয় মানুষকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করার মধ্যদিয়ে ভবিষ্যত প্রজন্মকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে স্মরণসভার সমাপনী ঘোষণা করেন।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More