খেলার গুচ্ছ খবর :

চিন্তা-শঙ্কা নয় : রোমাঞ্চে বুঁদ টাইগার অধিনায়ক
মাথাভাঙ্গা মনিটর: পাঁচ বছর আগেও ইংরেজি নতুন বছরের প্রথম দিন নিউজিল্যান্ডে ছিল বাংলাদেশ। তবে সেবার নতুন বছরের প্রথম দিন মাঠে নামতে হয়নি টাইগারদের। ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষ ওয়ানডে খেলার পর ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি বিশ্রামে ছিল টিম বাংলাদেশ। পরে ৩ জানুয়ারি শুরু হয়েছিল টেস্ট সিরিজ। আর এবার নতুন বছরের প্রথম দিনই নতুন চ্যালেঞ্জ টাইগারদের। নববর্ষের প্রথম প্রহরে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চলতি সফরের প্রথম টেস্ট শুরু। সময়টা ভাল যাচ্ছে না একদমই। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভরাডুবি ঘটেছে। তারপর থেকে চারপাশে যেন শনির দশা। পাকিস্তানের সঙ্গে টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে পরাজয়ই ছিল সঙ্গী। খুব স্বাভাবিকভাবেই মানসিক দিক থেকে অনেকটাই ভগ্ন টিম বাংলাদেশ। নতুন বছরে টেস্টে মাঠে নামার আগে কী ভাবছেন মুমিনুল হক? টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক কি চিন্তিত? উদ্বিগ্ন নাকি শঙ্কিত? ভক্ত ও সমর্থকদের জন্য আছে স্বস্তির খবর, অধিনায়ক মুমিনুল হক চিন্তিত নন। বরং তিনি রোমাঞ্চিত, পেছন ফিরে তাকাতে রাজি নন। সামনে আগানোর চিন্তা এখন চোখে মুখে।
ম্যাচের আগেরদিন সংবাদ সম্মেলনে তার ভাষ্য, ‘সবকিছু মিলিয়ে নতুন বছরে আমি খুব রোমাঞ্চিত। আগে কী হয়েছে সেগুলো নিয়ে চিন্তা না করে নতুন বছরে কিভাবে আরও ভালো করে চিন্তা করা যায়- আমি সেটি ভাবছি। আমি আসলেই খুব রোমাঞ্চিত। শুরুটা ভালো হলে, আল্লাহর রহমতে ভালোভাবে ক্যারি করার সম্ভাবনাটা বেশি থাকে।’ ইতিহাস জানাচ্ছে নিউজিল্যান্ডে কখনও ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশ। তারপরও আপনি কতটা আত্মবিশ্বাসী? এ প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে মুমিনুল অনেক কথার ভিড়ে ইতিবাচক মানসিকতা ও চিন্তার কথা বলেন। মুমিনুলের আশাবাদী উচ্চারণ, ‘যে কয়দিন অনুশীলন করেছি, ভালো অবস্থায় আছি। পুরোনো রেকর্ড অতীত হয়ে গেছে। তা ঘাটাঘাটি করে, চিন্তাভাবনা করে কোনো লাভ হবে না। আমার মনে হয় সামনে যে জিনিসটা আছে তা নিয়ে চিন্তা করাটাই ভালো। সবসময় ইতিবাচক চিন্তা করাই ভালো। আমরা জানি আমাদের জন্য অনেক বেশি চ্যালেঞ্জ থাকবে। কিন্তু আগে থেকেই যদি ব্যাকফুটে চলে যাই কিংবা নেতিবাচক চিন্তা থাকে তাহলে ভালো ফল আসবে না। যতোই চ্যালেঞ্জ থাকুক আপনাকে সেটা নিতে হবে।’
প্রশ্ন উঠলো নতুন বছরে নতুন শুরুর কথা ভাবছেন, নতুন শুরুর পথে হাটতে চাচ্ছেন। কিন্তু উন্নতিটা কোথায় হয়েছে? জবাব দিতে গিয়ে মুমিনুল বোঝানোর চেষ্টা করেন, প্র্যাকটিসে সবাইকে দেখেই তার মনে হয়েছে এ দল নিয়েও নতুন পথে হাঁটা সম্ভব। তার ভাষ্য, ‘এখন আমরা অনুশীলনে সবাই সবাইকে যেভাবে দেখছি, দল অনুযায়ী খেলতে পারি, ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং তিন বিভাগেই যদি ভালো করতে পারি… তাহলে এর জন্য রোমাঞ্চ কাজ করছে।’

বিপিএলে খেলার জন্য প্লেয়ারদের অনুমতি দেবে পাকিস্তান
স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) আসন্ন অষ্টম আসরে অংশ নেয়ার জন্য ক্রিকেটারদের ছাড়পত্র দেবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। যেসব ক্রিকেটার পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএলে) খেলার সুযোগ পাবেন না তাদের চাইলেই বিপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজিরা দলে নিতে পারবেন।
২১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে বিপিএল। আর ২৭ জানুয়ারি শুরু হবে পিএসএল। একই সময়ে পাকিস্তান ও বাংলাদেশের দুটি টি-টোয়েন্টি ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগেরফ্র’চি নির্ধারিত হওয়ার কারণে বিশ্বের তারকা ক্রিকেটাররা আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও বিপিএলে খেলতে পারছেন না।
তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাদের যেসব তারকা ক্রিকেটার পিএসএলে সুযোগ পাবেন না তারা বিপিএলে খেলার ছাড়পত্র পাবেন।
বিপিএলের নিলাম অনুষ্ঠিত হয় ২৭ ডিসেম্বর। অবশ্য তার আগেই পিএসএলের নিলাম হয়ে যায়। আগামী ৭ জানুয়ারি পর্যন্ত পিএসএলের দলগুলো ২০ সদস্যের স্কোয়াড পূর্ণ করতে যে কোনো দেশের অবিক্রিত ক্রিকেটারদের নিতে পারবে। সেই হিসেবে ৭ জানুয়ারির পর জানা যাবে পাকিস্তানের কোন কোন ক্রিকেটার অবিক্রিত আছেন, তখন বিপিএলের ছয়টি ফ্র্যাঞ্চাইজি চাইলেই পাকিস্তানের ওই ক্রিকেটারদের নিজেদের দলে নিতে পারবে।
এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পাকিস্তানের একজন তারকা ক্রিকেটার বলেন, যেসব খেলোয়াড় অবিক্রিত থাকবে তারা চাইলে ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য বিপিএলে অংশ নিতে পারবে, কারণ তাদের কাছে ইতোমধ্যে বিপিএলের অফার রয়েছে।
উল্লেখ্য, গত মাসের শুরুতে অনুষ্ঠিত পিএসএলের নিলামে অবিক্রিত থাকেন পাকিস্তানের তারকা ওপেনার আহমেদ শেহজাদ, উসমান শিনওয়ারি, জাহিদ মেহমুদ, মোহাম্মদ ইরফান, সোহেল খান ও জুনায়েদ খানের মতো তারকা খেলোয়াড়।

বিপিএল নিয়ে ভাবছে না কিউই সফরে থাকা বাংলাদেশ দল
স্টাফ রিপোর্টার: প্লেয়ার্স ড্রাফট শেষ। দল গোছানো, দেশি ও বিদেশি ক্রিকেটার দলে ভেড়ানোর কাজও সম্পন্ন। দেশে বিপিএল নিয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে। ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টে হিসেব করলে আর আছে মাত্র ২০ দিন, সূচিও একপ্রকার চূড়ান্ত। আর ঠিক এমন সময় নতুন বছরের প্রথম দিন শুরু হচ্ছে নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে বাংলাদেশের টেস্ট। ক্রিকেটাররা কি টেস্ট সিরিজ নিয়ে শতভাগ মনোযোগী? দেশে বিপিএল ডামাডোল। কম বেশি অর্থের হাতছানি। এরকম অবস্থায় মনোযোগ থাকা কঠিন। নিউজিল্যান্ডে থাকা বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের কী অবস্থা? তারা কি শতভাগ টেস্ট সিরিজ নিয়েই ভাবছেন? নাকি অবচেতন মনে বিপিএল ভাবনাও কাজ করছে ভেতরে।
এ প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে অধিনায়ক মুমিনুল হক জানান, তারা পেশাদার ক্রিকেটার। এখন তাদের ধ্যান-জ্ঞান সবই টেস্ট ক্রিকেট। বিপিএল নিয়ে ভাবনার সময় নেই এখন।
মুমিনুলের ভাষ্য, ‘পেশাদার দল হিসেবে কখনও আপনি এভাবে চিন্তা করতে পারবেন না। এখানে টেস্ট হচ্ছে আর আপনি বিপিএল নিয়ে চিন্তা ভাবনা করবেন, তা হতেই পারে না। আমরা বিপিএল নিয়ে বিন্দুমাত্র চিন্তা করছি না। কিভাবে আমরা টেস্টে ভালো করতে পারি, কিভাবে টেস্ট জিততে পারি সেটা নিয়েই চিন্তা করছি।’

আক্ষেপ ঘুচালো অস্ট্রেলিয়া
মাথাভাঙ্গা মনিটর: এই বছরটা ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার জন্য চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে। ওয়ানডেতে রেকর্ড পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা টেস্টেও সফল। কিন্তু এতদিন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ের আক্ষেপ ছিল তাদের। এবার তাদের সেই অতৃপ্তিটা মিটেছে। দুবাইয়ে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ট্রফি জিতে নেয় অ্যারন ফিঞ্চের নেতৃত্বাধীন দলটি। বিশ্বকাপটা অস্ট্রেলিয়ার জন্য স্মরণীয় হলেও আক্ষেপ থেকে যাবে পাকিস্তানিদের জন্য। গ্রুপপর্বে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতে হারানো দলটি এরপর নিউজিল্যান্ড ও আফগানিস্তাকে হারিয়ে টানা পাঁচ জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিতে উঠে। সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেয়। পাকিস্তানের চেয়ে বেশি আক্ষেপ ভারতের। বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন দলটি চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের পর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হেরে সেমিফাইনালের আগেই বিদায় নেয়। নিউজিল্যান্ড টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ফাইনালে না পারলেও শিরোপা জিতেছে আইসিসি আয়োজিত প্রথম টেস্ট বিশ্বচ্যাম্পিয়নশিপের। ইংল্যান্ডের সাউদাম্পটনে ফাইনালে কিউইদের কাছে পাত্তাই পায়নি ভারত। টেস্টে সবচেয়ে বেশি ১৬৩০ রান ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জো রুটের, ওয়ানডেতে আয়ারল্যান্ডের পল স্টার্লিংয়ের ৭০৫ আর টি-টোয়েন্টিতে ১৩২৬ রান পাকিস্তানের মোহাম্মদ রিজওয়ানের। টেস্টে সবচেয়ে বেশি ৫২ উইকেট ভারতের রবিচন্দ্রন অশ্বিনের, ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার দুশমন্থ চামিরার। আর টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলংকার হাসারাঙ্গা ডি সিলভা ও দক্ষিণ আফ্রিকার তাবরাইজ শামসির সমান ৩৬টি। ভারতের বিপক্ষে মুম্বাই টেস্টে নিউজিল্যান্ডের স্পিনার এজাজ প্যাটেলের ইনিংসে ১০ উইকেট শিকার করে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেন।

ডাকাতের হামলায় আহত ম্যানসিটি তারকা ক্যানসেলো
বাড়িতে ডাকাতি করতে এসেছিল এক দল ডাকাত। পরিবারকে রক্ষা করতে গিয়ে মারাত্মক চোট পেলেন ম্যানচেস্টার সিটির তারকা ফুটবলার জোয়াও ক্যানসেলো। নিজেই ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে এ কথা জানিয়েছেন পর্তুগিজ ফুটবলার। পরে ক্লাবের তরফেও এক বিবৃতিতে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করা হয়েছে।
ঘটনাটি কোথায় হয়েছে তা ক্যানসেলো না জানাতে চাইলেও ক্লাবের তরফে জানা গিয়েছে, নিজের বাড়িতেই এই ঘটনা ঘটেছে। ২ বছরের মেয়ে অ্যালিসিয়া এবং বান্ধবী ড্যানিয়েলা মাচাদোকে নিয়ে ম্যানচেস্টারেই থাকেন ক্যানসেলো। তিনি বলেছেন, ‘দুর্ভাগ্যবশত, আজ চারজন ডাকাত আমাকে আক্রমণ করেছে। আমার পরিবারকেও আঘাত করতে চেয়েছিল। বাধা দিতে গেলে এমনই হয়। ওরা সমস্ত গয়না নিয়ে পালিয়েছে। আমার মুখের অবস্থা এখন এ রকমই।’
ক্যানসেলো আরো বলেন, ‘আমি জানি না মানুষ কি করে এত হিংস্র হয়। সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আমার কাছে হল আমার পরিবার, এবং সৌভাগ্যবশত তারা সবাই ঠিক আছে। আর আমি জীবনে এত বাধা পেরোনোর পর, এটি আরও একটি ঘটনা যা আমায় অতিক্রম করতে হবে। প্রতিবারের মতই আমায় শক্তিশালী থাকতে হবে।’
ক্যানসেলোর পোস্ট করা ছবিতে দেখা গিয়েছে, তার ডান চোখে গভীর ক্ষত তৈরি হয়েছে। ম্যানসিটি জানিয়েছে, ফুটবলারের পাশেই রয়েছে তারা। ঘটনার তদন্ত করার ব্যাপারে পুলিশকেও সহযোগিতা করা হচ্ছে। অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে বিষয়টি দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে ম্যানসিটি।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More