চুয়াডাঙ্গায় তিন দিনব্যাপী উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধনকালে প্রেসক্লাবের সভাপতি সরদার আল আমিন

অন্যের মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজেদের ভাগ্যের চাকা ঘোরাচ্ছেন উদ্যোক্তারা

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গায় প্রথমবারের মতো শুরু হয়েছে উদ্যোক্তা মেলা। নিজ উদ্যোগে প্রস্ততকরা পন্য নিয়েই শুধু নয়, ভোক্তা সাধারণের চাহিদা মেটানোর মত পন্য সামগ্রী নিয়ে সাজানো হয়েছে এ মেলার ৩১টি স্টোল। এ মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন দিনেই ছিলো সরগম। আজ ও আগামীকাল চলবে এ মেলা।
নিজ উদ্যোগে গড়ে তোলা নিজের উৎপাদিত পণ্যের পরিচিতি তুলে ধরতে ওই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গার হোটেল সাহিদ প্যালেসের ২য়তলায় তিন দিনব্যাপী এই মেলার আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ মেলার উদ্বোধন করেন চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি দৈনিক মাথাভাঙ্গার সম্পাদক ও প্রকাশক সরদার আল আমিন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উদ্যোক্তা মেলার প্রধান আয়োজক মেরিনা জামান মমি। বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাজিব হাসান কচি, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক বিপুল আশরাফ ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম সনি। চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক ইসলাম রকিব, শরিফা সুহাসিনী ও আজিজুল হাকিম আশিকের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক দেশটিভির চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি খাইরুজ্জামান সেতু, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা ইউনিটের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আরটিভির চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি জহির রায়হান সোহাগ, বিজয় টিভির চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি পলাশ উদ্দিন, আনন্দ টিভির চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি সোহেল সজীব, বাংলাদেশ প্রতিদিনের চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি জামান আখতার, দৈনিক মাথাভাঙ্গা স্টাফ রিপোর্টার আলম আশরাফ প্রমুখ। উদ্যোক্তাদের এমন উদ্যোগ করোনা পরবর্তীতে দেশের অর্থনীতিকে চাঙা করবে বলে জানান মেলার উদ্বোধক চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি সরদার আল আমিন। তিনি বলেন, আমি উদ্যোক্তাদের সমাজের শ্রেষ্ঠ মানুষ হিসেবে দেখি। এবং শ্রেষ্ঠ মানুষ হিসেবে সম্মান করি। উদ্যোক্তারা অন্যের মুখাপেক্ষী না হয়ে নিজে কিছু করার তাগিদে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। ঘুমোতে পারেন না। কারণ তারা স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য অস্থির হয়ে পড়েন। যে উদ্যোক্তারা এই সমাজকে এগিয়ে নেয়ার জন্যে, নিজেকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্যে অন্যের মুখাপেক্ষী না হয়ে উদ্যোক্তা হয়ে অন্যের কর্মসংস্থান জোগাচ্ছেন ও নিজের ভাগ্যের চাকা ঘোরাচ্ছেন তাদের কুর্ণিশ না করে কি পারা যায়?
তিনি বলেন, উদ্যোক্তাদের তৈরি নতুন নতুন পণ্য ক্রেতাদের আকৃষ্ট করবে। করোনায় থেমে থাকা অর্থনীতিও চাঙা হবে। প্রতি বছর এই ধরণের মেলার আয়োজন করলে নতুন উদ্যোক্তা তৈরি হবে বলেও জানান তিনি। পরে প্রধান অতিথি চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি সরদার আল আমিনের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন মেলার আয়োজক মেরিনা জামান মমি। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে মেলার স্টলগুলো ঘুরে দেখেন অতিথিবৃন্দ। এই মেলায় অধিকাংশ নারী উদ্যোক্তার অংশগ্রহণে রয়েছে ৩২টি স্টল। প্রতিদিন সকাল ১০টায় শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে রাত ১০টা পর্যন্ত চলবে এ মেলা। মেলায় বুটিক বাটিক, হ্যান্ডি ক্রাফট, শাড়ি, তৈরি পোশাক, কেক, চকলেট, চুড়ি, প্রসাধনী, বই, আসবাবপত্র, খেলানাসহ বিভিন্ন পণ্য সামগ্রী বিক্রি হচ্ছে। বিক্রি হচ্ছে নারীদের গহনা, থ্রি-পিচ, বিভিন্ন বয়সীদের পোশাক, শিশুদের খেলনাসহ বিভিন্ন সামগ্রী সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া পিঠাসহ বিভিন্ন ধরণের খাবার ও নারী উদ্যোক্তাদের হাতের তৈরি পণ্য বিক্রি হচ্ছে। মেলার প্রথম দিনে সকাল থেকেই ভীড় জমাচ্ছেন নারী ও শিশুসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ। মেলায় সকল পণ্যের ওপর ১০ ভাগ ছাড় দেয়া হচ্ছে। পণ্য কিনলেই দেয়া হচ্ছে লাকি কুপন। শেষ দিন লটারির মাধ্যমে ওই লাকি কুপনের ড্র অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও সেতু হার্ডওয়ার আম্বার মেলামাইন বোর্ড দিয়ে তৈরি ফার্নিচার বিক্রি করছে। একই সাথে ফার্নিচার তৈরি অর্ডারও নিচ্ছে। স্টল থেকে ফার্নিচার ক্রয় ও তৈরির অর্ডার করলে প্রতিষ্ঠানটি দিচ্ছে সর্Ÿোচ্চ ২৫% ডিসকাউন্ট। সাথে উপহার স্বরূপ দিচ্ছে টি-শার্ট।
উদ্যোক্তা মেলার প্রধান আয়োজক মেরিনা জামান মমি জানান, করোনাকালে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা খুব খারাপ সময় পার করেছে। এই মেলার মাধ্যমে তারা আবার হারানো বাজার ধরতে পারবে। চুয়াডাঙ্গা জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে থাকা ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের একটা প্লাটফর্মে নিয়ে আসাই আমার মূল উদ্দেশ্য। তিনি জানান, এই মেলার মাধ্যমে উদ্যোক্তারা তাদের তৈরি পণ্যের পরিচিতি বাড়াতে পারবে। পণ্য বিক্রি করে স্বাবলম্বীও হতে পারবে তারা। মেলাটি সবার জন্য উন্মুক্ত। মেলায় প্রবেশ করতে কোনো অতিরিক্ত ফি লাগবে না। উদ্যোক্তা মেলায় ভালো সাড়া মিলছে বলে জানান উদ্যোক্তারা। মেলায় অংশ নেয়া উদ্যোক্তা টিনা আগারওয়াল জানান, আসলে চুয়াডাঙ্গায় এই প্রথম এমন মেলার আয়োজন করা হয়েছে। প্রথম দিনেই অনেক সাড়া মিলছে ক্রেতারাদের। বেশ বিক্রিও হচ্ছে পণ্য। শেষদিন পর্যন্ত অনেক বেচাবিক্রি বাড়বে বলেও জানান তিনি। মেলায় পণ্য কিনতে আসা আরিফা খাতুন জানান, উদ্যোক্তা মেলার কথা জানতে পেরে সকালেই চলে এসেছি। খুব ভালো মানের পণ্য বিক্রি হচ্ছে এখানে। আর সকল পণ্যের ওপর ১০ ভাগ ছাড় দেয়া হচ্ছে। এটা খুব ভালো উদ্যোগ।

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More