মেহেরপুরে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু : আক্রান্ত ৬৭

জেলায় বর্তমানে ৭১২ রোগী চিকিৎসাধীন : সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৪১৭ জন
মেহেরপুর অফিস: করোনা সংক্রমণে প্রতিদিন মেহেরপুরে মৃত্যুর মিছিলে যোগ হচ্ছে নতুন নতুন মুখ। লম্বা হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। দিনেদিনে করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গেল ২৪ ঘন্টায় মেহেরপুর জেলায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৫ জন রোগী মারা গেছেন। এদের মধ্যে ৪ জন মেহেরপুর সদর ও একজন গাংনী উপজেলার বাসিন্দা। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৬৭ জন। আক্রান্তের হার শতকরা ৩২ ভাগ। এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ৭৫ জন। আর আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৭১২ জন। এতে মেহেরপুরে সচেতন মানুষের মাঝে বাড়ছে উদ্বেগ উৎকন্ঠা। মেহেরপুরের লকডাউন কঠোরভাবে পালনে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। সাথে যোগ হয়েছে র‌্যাব, সেনা সদস্য ও বিজিবি। গতকাল মঙ্গলবার জেলা ও উপজেলা শহরে সফলভাবে লকডাউন পালিত হয়েছে। তবে গ্রামে সফলভাবে লকডাউন পালিত হচ্ছে না বলে অনেকে জানিয়েছেন।
গেলো ২৪ ঘন্টায় করোনার উপসর্গ নিয়ে মেহেরপুর জেলায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে ৫ জন রোগী মারা গেছেন। এরা হলেন মেহেরপুর শহরের মল্লিকপাড়ার আখের আলীর ছেলে আফসার আলী (৫০), হোটেল বাজার এলাকার এমএকে খাইরুল বাসারের স্ত্রী রেহেনা খাতুন (৬০), মেহেরপুর সদর উপজেলার যাদবপুর গ্রামের জাহাঙ্গীরের স্ত্রী নাসিমা খাতুন (৬২), রঘুনাথপুর গ্রামের মোসলেম আলীর ছেলে সানু মিয়া (৫৭) এবং গাংনী উপজেলার করমদী গ্রামের খয়মুদ্দিনের ছেলে কেরু মিয়া (৫০) মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে মারা গেছেন। এরা করোনার উপসর্গ নিয়ে কয়দিন আগে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন।
এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় মেহেরপুর জেলায় নতুন করে ৬৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে মেহেরপুর সদর উপজেলায় ৩৬ জন, গাংনী উপজেলায় ২৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলায় ৩ জন রয়েছেন। এনিয়ে বর্তমানে জেলায় মোট করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭১২ জন। গতকাল মঙ্গলবার রাতে সিভিল সার্জন ডা. মো. নাসির উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
মেহেরপুর সিভিল সার্জন অফিস থেকে আরো জানা যায়, কুষ্টিয়া ল্যাব থেকে ২০৯ টি নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া যায়। এর মধ্যে ৬৭ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন মোট ৭১২ জন করোনা রোগীর মধ্যে সদর উপজেলার বাসিন্দা ২৪৭ জন, গাংনী উপজেলার বাসিন্দা ৩৪৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলার বাসিন্দা ১১৭ জন। এছাড়া ট্রান্সফার্ড হয়েছেন ১১৮ জন। এদের মধ্যে সদর উপজেলার ৭৫ জন, গাংনী উপজেলার ১৮ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ২৫ জন রয়েছেন। এ ছাড়া এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন এক হাজার ৪১৭ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ৮০৪ জন, গাংনী উপজেলায় ৪৩২ জন ও মুজিবনগর উপজেলায় ১৮১ জন রয়েছেন। এছাড়া এ পর্যন্ত জেলায় মারা গেছেন ৭৫ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ৩২ জন, গাংনী উপজেলার ২৭ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ১৬ জন রয়েছেন।

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More