এবারের ঈদ ও আমাদের ছেলেবেলার ঈদ আনন্দ

 

ª অধ্যক্ষ হামিদুল হক মুন্সী ª

 

ঈদ উৎসব। মুসলমান বাঙ্গালিদের একটি অন্যতম ধর্মীয় উৎসব। আমাদের অঞ্চলে এটি একটি সার্বজনীন সামাজিক উৎসবও। ধর্মীয় সম্পৃতির মহত্মের দৃষ্টান্তের অঞ্চল হিসেবে আমাদের অঞ্চলের মানুষের কাছে পূজা ও ঈদ উৎসবটি পহেলা বৈশাখের উৎসবের মতই সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের কাছে সমভাবে গুরুত্বপূর্ণ। একধরণের উস্কানী প্রদানকারী নিচু মনের মানুষের অপপ্রচারের পরও অসাম্প্রদায়িক মনের মানুষের উদার মনোভাবের কারণে, সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি গভীর থেকে গভীরতর হয়েছে এবং দৃঢ় হচ্ছে আরও। রাজনীতির নোংরা চাল হিসেবে ধর্মকে বিকৃতভাবে ব্যবহারের অপচেষ্টা বারবার প্রত্যাখাত হওয়ার পরও কতিপয় নিচুমনের মানুষের ষড়যন্ত্র বাঙ্গালি হিন্দু মুসলমানদের মনুষত্বের কাছে হার মেনেছে, “মানুষই মহৎ” এ কথাটি প্রমানিত হয়েছে। সেকারণে ঈদ ধর্মীয় বিচারে শুধু মুসলমানের উৎসব না হয়ে হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টান, সকল বাঙ্গালির একটি সার্বজনীন আনন্দ উৎসব হিসেবে আমার কাছে প্রতীয়মান হয়েছে। যদিও ১৯৭৪ সালেই এই দিনে ঈদের নামাজে নামাজরত অবস্থায় আমার মামা আওয়ামীলীগ নেতা আবুল কালাম সামছুজ্জোহা দুস্কৃতিকারীদের গুলিতে নিহত হওয়ার কারণে দিনটিতে আমাদের চোখে শোকের কালোছায়া লেগে থাকে।

যখন ছোট ছিলাম বাবার হাত ধরে বা চাচার কোলে চেপে ঈদের দিন নামাজ পড়তে মাঠে যেতাম। তখন দু’চারজন হিন্দু বন্ধুও আমাদের সঙ্গী হতো। তারাও আমাদের সাথে পোষাক পরে লাইন দিয়ে ঈদের জামাতে যেত; নামাজের কাতারেও দাড়িয়ে পড়তো। বিকাশ নামের আমাদের এক প্রতিবেশীর পাশে দাড়িয়ে নামাজ পড়ার স্মৃতি এখনও আমাকে আনন্দ দেয়, পুলকিত করে। আবার তাদের পূজা উৎসবে যেয়ে রং মেখে নাচের আসরে কিংবা বিসর্জন উৎসবে আমাদেরও ছিল অবাধ বিচরণ। হিন্দু বন্ধুদের বাড়িতে সারাদিন কাটিয়ে প্রতীমা বিসর্জনের শেষে ক্লান্ত হওয়ার পর বাড়ি ফেরার স্মৃতি এখনও উজ্জ্বল হয়ে আছে। ছোট বেলার খেলার সাথি মাবুদ (মারা গেছে), আসাবুল, লতিফ, ডরা এদের পাশাপাশি পবিত্র, সঞ্জয়, আশীষ প্রভৃতিদের সাথে একত্রে পূজা ও ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নেয়ার বিরল দৃষ্টান্ত আমাকে এখনও মানুষের মহিমাকে শ্রদ্ধা করতে অনুপ্রাণীত করে।

ঈদ ছিল আমাদের বাল্যকালের অতি আনন্দের একটি উৎসব। ঈদের বহু আগ থেকেই ঈদ ঈদ আনন্দের সুখ আমাদেরকে তাড়িয়ে বেড়াতো। বাবা-মার কাছে পেশ করার মত একটি চাহিদাপত্র মনে মনে তৈরি করা সহ বন্ধুদের সাথে কিভাবে দিনটি আনন্দের সাথে কাটাব তারও একটি রূপরেখা তৈরি করা ছিল সুখ কল্পনার অংশ। মামার বাড়ি যাওয়ার বিশেষ আকর্ষণ ছাড়াও পাড়ার ছেলে-মেয়েদের সাথে হৈ হৈ করে পাড়ার মুiæবীদ্দের সালাম করে সালামী কালেকশন ছিল প্রচলিত আনন্দের একটি আইটেম। বিকেলে ফুটবল মাঠে ম্যারেড-আনম্যারেড ফুটবল প্রতিযোগিতা, সন্ধ্যায় বাজি ফোটানো, জোৎস্না রাতে লুকোচুরি খেলা, প্রভৃতি ছিল বেশ জনপ্রিয় এবং আনন্দদায়ক। সেসময়ে খাবারে তেল এবং রং- এর ব্যবহার ছিল না বললেই চলে; যা সামান্য ছিল তা পাটায় বাটা মসল্লার কেরামতি, মা-খালাদের হাত যশ।

আমাদের বাল্য জীবনে ঈদের নামাজ হতো সাধারণত এক এক এলাকায় এক এক দিন। নিজে চাঁদ না দেখে ঈদের নামাজ পড়ার রেওয়াজ ছিল না। সরকারি ভাবে চাঁদ দেখা কমিটি না থাকায় এলাকায় হুজুরদের কথামতো ঈদের নামাজ পড়তে হতো। এক এক এলাকার হুজুরের মনগড়া নছিয়তের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ভিন্ন ভিন্ন এলাকায় ভিন্ন ভিন্ন দিনে ঈদের নামাজ পড়তে হতো। চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা থানার নতিপোতা ইউনিয়ন সদরের ভগিরথপুর গ্রামে ছিল আমাদের বাড়ি। আমাদের অপর একটি বাড়ি ছিল আলমডাঙ্গা থানার গাংনি ইউনিয়নের মোচাইনগর গ্রামে। একবার ভগিরথপুর গ্রামে ঈদ করে ভগ্নিপতির সাথে মোটর বাইকে মোচাইনগরে এসে দেখি তারা ইফতারের প্রস্তুতি নিচ্ছে। অর্থাৎ আমাদের থেকে একদিন রোজা তারা বেশি করেছে; পরের দিন তাদের ঈদ। আমরা পরপর দু’দিন দু’জায়গায় ঈদের নামাজ পড়েছিলাম।

এখনকার মতো আমাদের সময়ে গার্মেন্টসের পোষাকের চল ছিল খুবই কম। বেশিরভাগ পোষাক তৈরি করতো দর্জিরা; যাদেরকে খলিফা বলা হতো। এক রঙের পোষাক ছিল প্রায় সকলেরই। এখনকার মতো ভিন্ন ভিন্ন রঙের তালি মারা ডিজাইন করা রংবেরং এর পোষাক ছিল না বললেই চলে।

 

 

ঈদের দিন খন্ড খন্ড গ্রুপে বিভক্ত হয়ে শিশু-কিশোরদের দলে দলে বাড়ি বাড়ি যেয়ে ভিন্ন ভিন্ন স্বাদের খাবার ও বখশিস গ্রহণ ছিল ঈদ-আনন্দের ভিন্ন মাত্রা। রঙ্গিন জামা জুতার পাশাপাশি ঈদের দিন রঙ্গিন রঙ্গিন ফিতা এবং গলায় হরেক রকমের পুথির মালা ব্যবহার ছিল চোখে পড়ার মতো। কাপড়ের তৈরি একজোড়া বাঘমার্কা জুতার কথা এখনও আমার মনে আছে, যা বাবা আমাকে কিনে দিয়েছিলেন। সাধারণ পরিবারে আখের গুড়ের পায়েশ এবং হাতে বানানো সেমাই ছিল মিষ্টির আইটেম। একটু অবস্থা সম্পন্ন বাড়িতে সেমাই তৈরির ম্যাশিন ছিল। চাউলের আটা তৈরি হতো ঢেকিতে বা জাতার সাহায্যে। গরু, ছাগল বা হাঁস-মুরগীর মাংশ রান্না হতো প্রায় প্রতি বাড়িতে। মহিষের মাংশের প্রচলন তখন ছিল না; মানুষ এই মাংশকে ঘৃনা করতো। এখন গরুর মাংশের চেয়ে মহিষের মাংশের জনপ্রিয়তা বেশি। এক শ্রেণির মানুষ মনে করে গরুর মাংশের রোগ চেতানো উপকরণ থাকলেও মহিষের মাংশে নেই। সেকারণে আমার মতো ডায়াবেটিকের রোগীরাও ভীতিহীনভাবে মহিষের মাংশকে নিরাপদ মনে করছে। বিশেষ বিশেষ দিবস ছাড়া অন্যান্য দিনগুলোতে মাংশের তুলনায় মাছ ব্যবহার হতো বেশি। মাংশের তুলনায় মাছের দাম ছিল খুবই কম। ঈদে আত্মীয়দের বিশেষ করে মেয়ে জামাইকে দাওয়াত করে খাওয়ানো এবং উপহার দেয়ার প্রচলন ছিল এখনকার চেয়ে ঢের বেশি। ঈদ উৎসবে বাড়ির মেয়েরা ভুতের মতো পরিশ্রম করতো। ধান থেকে চাউল বের করা (তখন খুব একটা চাউলের মিল ছিল না, থাকলেও নাগলের বাইরে) চাউল থেকে আটা বানানো, আটা থেকে পিঠা তৈরি প্রভৃতি সকল কাজই করতে হতো বাড়ির মহিলা সদস্যদের। বাড়ির মুiæব্বিরা বাড়ির প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী ক্রয় করতো সাধ্য মোতাবেক। এখনকার ঈদের বাজারে মহিলাদের যতো দেখা যায়, তখনকার ঈদের বাজারে মহিলাদের ততো দেখা যেত না। তারা ছিলো পর্দার অন্তরালের কলাকুশলী।

তখনকার ঈদ আনন্দ ছিল ধর্মীয় গোড়ামীবিহীন অফুরন্ত আনন্দের, বিপুল উৎসাহের, অবারিত উদ্দীপনার সুশৃঙ্খল সামাজিক বন্ধনের, সমগ্র মানব জাতির মহত্মের দৃষ্টান্তের, বাঙ্গালির চিরচেনা মানবতার মহত্মের, অন্তরগত আন্তরিকতাপূর্ণ, অকৃত্তিম ভাললাগার সুখের শিখা।

এবারের ঈদ ছিল ব্যতিক্রমী। করোনায় ঈদ হয়েছে ঈদের মাঠের পরিবর্তে বাড়িতে বাড়িতে অথবা মসজিদে। ঈদে কুলাকুলি নেই, সালাম-সালামী নেই। সারা পৃথিবীজুড়ে অদৃশ্য শÎæ করোনা ভাইরাসকে প্রতিহত করার অঙ্গীকার ঘোষণার ঈদ: এবারের ঈদ না আনন্দের; না শোকের, না-উৎসবের। এমন ঈদ যেন আর কখনোই না আসে সেজন্য আমাদের প্রত্যেকটি মানুষকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বারবার হাত ধুয়ে স্বাস্থ্য সচেতনভাবে চলতে হবে। মানুষের অভ্যাস পালটালেই করোনা পিছু হটবে। করোনা পিছু হটলেই আগামী ঈদ উৎসব প্রকৃত উৎসবের মর্যাদা পাবে।

 

 

 

 

 

এছাড়া, আরও পড়ুনঃ

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More